অপ্রিয়ও হলে সত্য আমাদের লোকজন প্রচার, অপপ্রচার কোনটাই জানেনা ঠিকমতো.. চৌধুরী মনি – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

অপ্রিয়ও হলে সত্য আমাদের লোকজন প্রচার, অপপ্রচার কোনটাই জানেনা ঠিকমতো.. চৌধুরী মনি

প্রকাশিত: ৪:২০ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ৭, ২০২১

অপ্রিয়ও হলে সত্য আমাদের লোকজন প্রচার, অপপ্রচার কোনটাই জানেনা ঠিকমতো.. চৌধুরী মনি

 গোলাম ইস্তেজা চৌধুরী মনি:

দলের কেন্দ্র থেকে স্থানীয় পর্যায়ের বিভিন্ন কমিটিতে থাকা লোকজন আরও কয়েকধাপ এগিয়ে, এরা জন্মদিন, মৃত্যুদিন, বিবাহবার্ষিকী নিয়ে মিলেমিশে আছে। মামুনুল হক বা ধর্মের লেবাসে থাকা অন্য সব ধর্মব্যবসায়ীদের ধর্মব্যবসার কথা জনগণের সামনে আনতে ওদের হাজারটা অপকর্মের উদাহরণ যথেষ্ট। সেগুলো না করে লোকজন মামুনুলের ছবি কনডমে বসিয়ে সার্কাজম করে,

হেফাজতের কোন নেতা মামুনুলের বিরুদ্ধে দুইলাইন লিখছে সেটা আন্ডার লাইন করে পোস্ট করে, আযহারী কি বললো সেটা হাইলাইট করে। এইসব করতে গিয়ে মূল বিষয়টা তার গুরুত্ব হারিয়ে ফেলে। কোনটা সার্কাজমের সময় আর কোনটা না এটাই বুঝেনা। এইসব সার্কাজম করার কারনে ধর্মভীরু মানুষের কাছে ভুল বার্তা যায়, মানুষ মৌলবাদের বিরুদ্ধে গর্জে উঠার বদলে থমকে যায়, ক্ষুদ্ধ হয় আওয়ামী লীগের উপর।

২০০১ এর নির্বাচনের বছর বা তারও কম সময় আগে এই মামুনুলদের পূর্বসুরী ধর্মব্যবসায়ী আমিনিদের কঠোর হাতে দমন করতে গিয়ে আওয়ামী লীগ কাউকে সাথে পায়নি। যার ফল নির্বাচনে প্রভাব ফেলেছিলো। আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে মানুষকে ক্ষ্যাপাতে কুকুরের মাথায় টুপি দিয়ে অপপ্রচার করেছিলো এই মৌলবাদীরা নিজেরাই।

এমন সব অপপ্রচারের বিরুদ্ধে লড়তে হয়েছিলো আওয়ামী লীগকে একাই। আওয়ামী লীগ লড়েছে, মিথ্যার বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগ বার বার জিতেছে। এবারও মৌলবাদের বিরুদ্ধে জিততে হলে লড়তে হবে আওয়ামী লীগকে একাই।

লড়তে হলে জানতে হবে, জানাতে হবে। এর বিকল্প নেই। আমি একটা অনুরোধ করি; নিজে লিখতে না পারেন, অন্তত যারা ভালো লিখে তাদের লেখাগুলো কপি করে হলেও প্রচার করুন। এইসব ফালতু সার্কাজম থেকে ওইগুলো অনেক বেশী প্রয়োজন।

লেখকঃ সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা

 গোলাম ইস্তেজা চৌধুরী মনি