অভিষিক্ত অধিনায়ক পন্তের কাছে হারলেন অভিজ্ঞ ধোনি – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

অভিষিক্ত অধিনায়ক পন্তের কাছে হারলেন অভিজ্ঞ ধোনি

প্রকাশিত: ১:০৫ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ১১, ২০২১

অভিষিক্ত অধিনায়ক পন্তের কাছে হারলেন অভিজ্ঞ ধোনি

গত আইপিএল খেলেননি ভারত দলের সাবেক তারকা সুরেশ রায়না।

এবারের আসরে ফিরেই জানিয়ে দিলেন অবসর নিলেও ফুরিয়ে যাননি। প্রথম ম্যাচেই দুর্দান্ত ইনিংস খেলে দিল্লি ক্যাপিটালসের সামনে ১৮৯ রানের বিশাল লক্ষ্য দাঁড় করালেন।

আর রানের বিশাল লক্ষ্য তাড়ায় আরো দুটি দুর্দান্ত ইনিংস উপভোগ করল আইপিএলপ্রেমীরা।

চেন্নাই সুপার কিংসের বোলারদের রীতিমতো তুলোধোনা করলেন দিল্লির দুই ওপেনার পৃথ্বী শ আর শিখর ধাওয়ান।

এ দুই ব্যাটসম্যানের ১৩৮ রানের দুর্দান্ত এক জুটিতে ভর করে ৮ বল বাকি থাকতেই চেন্নাইয়ের বিশাল লক্ষ্য ছুঁয়ে ফেলে দিল্লি।

মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে ঋষভ পন্তের কাছে ৭ উইকেটের বড় ব্যবধানে হারলেন মহেন্দ্র সিং ধোনি।

আজ দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে মাত্র ৩৮ বলে ৭২ রানের ইনিংস খেললেন পৃথ্বী। যেখানে ৯টি বাউন্ডারি আর ৩টি ছক্কার মার ছিল। ক্যারিবীয় পেসার ডোয়াইন ব্রাভোর বলে থামেন পৃথ্বী শ।

১৬তম ওভারে শিখর ধাওয়ানকে থামান শার্দুল ঠাকুর। আউট হওয়ার আগে মাত্র ৫৪ বলে ৮৫ রানের টর্নেডো ইনিংস খেললেন এই ভারতীয় ব্যাটসম্যান। যেখানে ১০ বাউন্ডারি আর দুটি ছক্কার মার ছিল।

দুই ওপেনারকে সাজঘরে ফেরালেও তাতে দিল্লির জয় ঠেকাতে পারেনি চেন্নাই।

বাকি কাজটা সারতে অধিনায়ক ঋষভ পন্তের বেগ পেতে হয়নি। ৯ বলে ১৪ রানের কেমিও ইনিংস খেলে জয়কে ত্বরান্বিত করেন মার্কুস স্টইনিস।

শেষ ১২ বলে দিল্লির প্রয়োজন ছিল ৭ রানের। হাতে ৮ উইকেট। আইপিএলের মতো মঞ্চে যা অনায়াসেই সম্ভব।

এক ওভার ২ বল বাকি থাকতেই লক্ষ্যে পৌঁছে যায় দিল্লি। অবশ্য ১৮.৩ বলে শার্দুলের বলে ডিপ মিড-উইকেটে ধরা পড়েন স্টইনিস।

উইকেটপ্রাপ্তির জয়োল্লাসে মাততে পারেনি ধোনি ও তার সতীর্থরা।

পরের বলেই বাউন্ডারি হাঁকিয়ে জয় নিশ্চিত করে ঋষভ পন্ত। ফলে ৮ বল বাকি থাকতেই ৭ উইকেটে নিজেদের প্রথম ম্যাচে জয় তুলে নিল দিল্লি ক্যাপিটালস।

এর আগে টস জিতে চেন্নাইকেই ব্যাট করার আমন্ত্রণ জানান দিল্লি অধিনায়ক পান্ত। এই ম্যাচেই অধিনায়ক পান্তের অভিষেক ঘটল।

শুরুতে চেন্নাই শিবিরে ধাক্কা দেন দিল্লির দুই বোলার  ক্রিস ওকস এবং আভেশ খান। দলীয় ৭ রানের মাথায় চেন্নাইর দুই ওপেনারকে তুলে নেন তারা দু’জন।

এরপরই ঘুরে দাঁড়ায় চেন্নাই। মঈন আলি এবং সুরেশ রায়নার ৫৩ রানের জুটি চেন্নাইকে বিপর্যয় কাটিয়ে তোলে। ২৪ বলে এ সময় ৩৬ রান করে আউট হন মঈন আলি।

এরপর আম্বাতি রাইডুকে সঙ্গে নিয়ে ৬৩ রানের দারুণ এক জুটি গড়ে তোলেন রায়না। দলীয় ১২৩ রানের মাথায় আউট হন রাইডু। এরপর ৩৬ বলে ৫৪ রান করে সাজঘরে ফেরেন রায়নাও।

প্রথম ম্যাচেই ব্যর্থ হয়েছেন অধিনায়ক ধোনি। মাত্র ২ বল খেলেই শূন্য রানে আউট হয়ে যান।

শেষদিকে স্যাম ক্যারান ঝড় তুললে বড় সংগ্রহ পায় চেন্নাই। ১৫ বলে ৩৪ রান করে আউট হন ক্যারান। রবিন্দ্র জাদেজা অপরাজিত ছিলেন ১৭ বলে ২৬ রান করে।

SR/