আপনার কন্যা/বোন যেন ছাত্রলীগে যোগ না দেয় সেই প্রতিরোধক টিকা দিন – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

আপনার কন্যা/বোন যেন ছাত্রলীগে যোগ না দেয় সেই প্রতিরোধক টিকা দিন

প্রকাশিত: ৬:৪৭ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৪, ২০১৮

আপনার কন্যা/বোন যেন ছাত্রলীগে যোগ না দেয় সেই প্রতিরোধক টিকা দিন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কুয়েতমৈত্রী হলের ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক শ্রাবনী শায়লার চাঁদাবাজি এবং মঙ্গলবারের সন্ত্রাসের চিত্র ইতিমধ্যে সবাই জেনেছেন। অথচ আমরা তার ফেসবুক প্রফাইলে যেয়ে দুটি ভিন্ন চিত্র দেখতে পেলাম।একজন মেয়ে, একজন নারী শ্রাবনী কিভাবে ধাপে ধাপে ছাত্রলীগের চরিত্র নিজের ভিতরে ধারন করেছে সেটা তার প্রফাইল দেখলেই সুন্দর ধারনা পাওয়া যাচ্ছে। এখনে দেওয়া ছবি দুটি দেখুন। প্রথম ছবিটা ছাত্রলীগ করার আগেকার এবং পরের ছবিটা ছাত্রলীগ করার পরেরকার।দুটো ছবিতেই শ্রাবনীকে দেখা গেলেও, প্রথম ছবিটাতে দেখা যাচ্ছে একজন চিরন্তন বাঙালী নারীকে। অন্য ছবিটি একজন নারী নাকি অন্য প্রজাতি সেটা বুঝা মুশকিল। শ্রাবনী ছাত্রলীগ হবার আগে ছিল একজন নারী, আর ছাত্রলীগ হয়ে আজ সে চাঁদাবাজ এবং সন্ত্রাসী। একারনে সকল নারীকে ছাত্রলীগ প্রতিরোধের টিকা নেওয়া উচিৎ যেন তারা ছাত্রলীগ না হতে পারে, কোনভাবে যেন ছাত্রলীগে যোগ না দেয়। আপনার কন্যাকে আজই ছাত্রলীগ প্রতিরোধের টিকা দিন।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার শিক্ষার্থীদের ওপর ছাত্রলীগের নিপীড়নসহ তিন দফা দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক আখতারুজ্জামানকে তার কার্যালয়ে অবরুদ্ধ করেছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেনের নেতৃত্বে ছাত্রলীগের পুরুষ কর্মীরা এবং শ্রাবনী শায়লার নেত্রীত্বে নারী কর্মীরা একযোগে শিক্ষার্থীদের ওপর আক্রমণ করে।
প্রথমে ছাত্রলীগে কর্মীরা ইট-পাথর মেরে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের আহত করে ও সরিয়ে দেয়ার চেষ্টা করে। এরপর লোহার রড ও লাঠিসোটা নিয়ে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর ঝাপিয়ে পড়ে ছাত্রলীগ। এসময় ছাত্রলীগের কর্মীদের হাতে লাঞ্ছিত হন বেশ কয়েকজন আন্দোলনরত নারী শিক্ষার্থী। ছাত্রলীগের কর্মীরা তাদের শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে এবং গায়ের পোশাক ছিঁড়ে ফেলে। লাঠিসোটার উপর্যুপরি আঘাতে গুরুতর ২০ জনসহ অন্তত ৪০জন শিক্ষার্থী আহত হন।
ছাত্রলীগ নেত্রী শ্রবনী নিজ হাতে আন্দোলনরত ছাত্রীদের মারধর করে জামাকাপড় ছিঁড়ে ফেলে। চুল ধরে রাস্তায় ফেলে লাথি দিতে থাকে।

গত বছর নভেম্বরের ৩ তারিখ এই নেত্রীকে নিয়ে দিগন্তবার্তায় একটি চাঁদাবাজি এবং সন্ত্রাসের রিপোর্ট প্রকাশ হয়েছিল। তারপর থেকে কিছুটা নমনীয় ছিলেন এই সন্ত্রাসী নেত্রী।কুয়েতমৈত্রী হলের ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক শ্রাবনী শায়লার কর্মকাণ্ড সরেজমিন ঘুরে জানা যায়- হলের আশেপাশের সবজি, মাছ, চা সহ সকল দোকানদারেরা সপ্তাহে ৫০০০/ টাকা না দেয়ার কারনে সকল দোকান বন্ধ করে দিয়েছে। সংশ্লিষ্ট ভুক্তভোগী দোকানদারেরা হাউমাউ করে কান্নাকাটি করছিলো। একদিকে সংসার চালানো অন্যদিকে দোকানের ভাড়া কিভাবে মেটাবে সেটা ভেবেই তারা আতঙ্কিত।ইতিপূর্বে এই হলের ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মেয়েদের জোড় পূর্বক স্মৃতিসৌধে নিয়ে যায় এবং ছাত্রীরা যৌন হয়রানির শিকার হয়েছিল।