আয়কর দেওয়ার মাধ্যমে দেশ অনেক দূর এগিয়েছে : এমপি সামাদ – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

আয়কর দেওয়ার মাধ্যমে দেশ অনেক দূর এগিয়েছে : এমপি সামাদ

প্রকাশিত: ১১:১৯ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৩, ২০১৯

আয়কর দেওয়ার মাধ্যমে দেশ অনেক দূর এগিয়েছে : এমপি সামাদ

নিজস্ব প্রতিবেদন
সিলেট-৩ আসনের এমপি, বাণিজ্য ও ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী বলেছেন, আয়কর দেওয়ার মাধ্যমে দেশ অনেক দূর এগিয়ে গেছে। আমরা বঙ্গবন্ধুর দেখানো পথে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এগিয়ে যাচ্ছি। দেশে জিডিপির আকার চার গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। সেখানে করদাতার সংখ্যা মাত্র দ্বিগুণ বেড়েছে।
তিনি জানান, ২০০১ সালে সিলেটে কর আদায় হয়েছিল ৪৭ কোটি টাকা। আর ২০১৮-১৯ বর্ষে ৬২৯ কোটি টাকা কর আদায় হয়েছে। তিনি বলেন, আপনি কত টাকা কর দিলেন সেটা বড় নয়, নিজে একজন করদাতা হিসেবে পরিচয় দিতে গর্ববোধ করবেন। একজন করদাতা হিসেবে আপনার সন্তানও গর্ববোধ করবে। দেশ এখন তলাবিহীন ঝুড়ি নয়। বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হয়েছে। তিনি বলেন, ‘আমরা সব সময়ই অবকাঠামোসহ বিভিন্ন পর্যায়ে উন্নয়ন চাই। কিন্তু কর না দিলে উন্নয়ন হবে কীভাবে। কর গ্রহণকে উৎসাহিত করতে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) সেরা করদাতাদের সম্মানিত করছে।’ তিনি কর প্রদানকে উৎসাহিত করতে জেলা থেকে উপজেলা পর্যায়ে এ কার্যক্রম ছড়িয়ে দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, যাঁরা কর দেওয়ার উপযুক্ত, তাঁরা যথাযথভাবে কর দিলে বাংলাদেশ স্বপ্নের ঠিকানায় পৌঁছাবে।
এমপি মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী বুধবার সকালে সিলেট নগরীর রিকাবী বাজারস্থ মোহাম্মদ আলী জিমনেশিয়ামে সিলেট কর অঞ্চলের উদ্যোগে সিলেটের সর্বোচ্চ ও দীর্ঘ মেয়াদী করদাতাদের সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।
কর অঞ্চল সিলেটের কমিশনার রঞ্জিত কুমার সাহা’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন উপ-মহাপুলিশ পরিদর্শক সিলেট রেঞ্জ মো. কামরুল আহসান বিপিএম, অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মো. তাহমিদুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার পরিতোষ ঘোষ, কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট সিলেটের কমিশনার গোলাম মো. মুনির, দি সিলেট চেম্বার অব কামার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রিজ সভাপতি এ টি এম শোয়েব, আয়কর আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট আবুল ফজল। সম্মাননা পদকপ্রাপ্ত করদাতাদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সাংবাদিক আফতাব চৌধুরী, মোতাহার হোসেন, ডা. শামসুন্নাহার, এ.কে আতাউল গণি, মাধবী লতা পাল, দেবাংশু দাশ মিঠু, নুরুল ইসলাম প্রমুখ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন কর অঞ্চল সিলেটের যুগ্ম কমিশনার সাহেদ আহমদ চৌধুরী। শুরুতে পবিত্র কুরআন তেলাওয়াত করেন কর অঞ্চল সিলেটের প্রধান সহকারী শাহীর আলম।
২০১৮-১৯ অর্থবছরে চার ক্যাটাগরিতে সিলেট বিভাগে ৩৫ জনকে সেরা করদাতা নির্বাচিত করে জাতীয় রাজস্ব বিভাগ (এনবিআর)। করদাতাদের উৎসাহিত করতে সিলেট সিটি কর্পোরেশন ও চার জেলায় দীর্ঘ মেয়াদী’ ও ‘তরুণ সর্বোচ্চ’ ক্যাটাগরিতে ১০ জন করে ২০ জন এবং ১৫ জন শ্রেষ্ট করদাতা নির্বাচন করা হয়েছে।
২০১৮-১৯ অর্থবছরে দীর্ঘমেয়াদী সর্বোচ্চ করদাতা হলেন সিলেট সিটি করপোরেশন এলাকায় আফতাব চৌধুরী ও মঈনুল হক চৌধুরী। সিলেট জেলায় মো. আছদ্দর আলী ও ইকবাল আহমদ চৌধুরী, মৌলভীবাজারে আব্দুল বাছিত তরফদার ও হাজি আফছার উদ্দিন, হবিগঞ্জে রনজিত কুমার রায় ও ত্রিদেবী কান্তি চৌধুরী, সুনামগঞ্জ জেলায় মো. মোস্তফা মিয়া ও আজিজুর রহমান।
সর্বোচ্চ করদাতা নির্বাচিত হয়েছেন সিলেট সিটি করপোরেশন এলাকায় একেএম আতাউল করিম, নাসিম হোসেন ও ফরিদ বক্স। সিলেট জেলায় মো. মোতাহার হোসেন, মো. সাব্বির হোসেইন ও ফারুক আহমদ, মৌলভীবাজার জেলার মো. আকবর আলী, হাসিব হোসেন খান ও আবু সুলতান মোহাম্মদ ইদ্রিছ, হবিগঞ্জে মিজানুর রহমান শামীম, মিজ সাইদাতুন নেছা ও মো. আহসান কবির, সুনামগঞ্জে আবুল মহসিন মাহবুব, নুরুল ইসলাম ও মো. মুহিবুর রহমান।
তরুণ ক্যাটাগরিতে সর্বোচ্চ করদাতা নির্বাচিত হয়েছেন সিলেট সিটি করপোরেশন এলাকায় দেবাংশু দাস এবং ডা. শামসুন্নাহার বেগম। সিলেট জেলায় রফিকুল ইসলাম ও আসমা আক্তার, মৌলভীবাজারে অরজিত দেব ও শামীম আরা তারেক, হবিগঞ্জে তাজ উদ্দিন ও মাধবী লতা পাল, সুনামগঞ্জে জুয়েল আমিন ও দিলশাদ বেগম চৌধুরী।
এছাড়া ব্যক্তি পর্যায়ে ট্যাক্স কার্ড পাবেন প্রতিবন্ধি ক্যাটাগরিতে সিলেটের ডা. মামুনুর রশিদ, নতুন করদাতা ক্যাটাগরিতে সৈয়দ জমিলা বেগম ও মো. মিরাজুল ইসলাম এবং ফার্ম ক্যাটাগরিতে সিলেটের শিবগঞ্জের মেসার্স এএসবিএস। তারা ঢাকা থেকে ট্যাক্স কার্ড গ্রহণ করেন।
কর অঞ্চল সূত্র জানায়, মৌলভীবাজার জেলায় ১৫ থেকে ১৮ নভেম্বর পর্যন্ত চারদিন মেলা চলবে মৌলভীবাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় অডিটরিয়ামে।
সুনামগঞ্জে ১৬ থেকে ১৯ নভেম্বর পর্যন্ত চারদিন ডিএস রোডের শহীদ আবুল হোসেন মিলনায়তনে এবং হবিগঞ্জে ১৭ থেকে ২০ নভেম্বর পর্যন্ত চারদিন কলেজ রোড জেলা অডিটরিয়ামে মেলা অনুষ্ঠিত হবে।
উপজেলা পর্যায়ে সিলেটের গোলাপগঞ্জে হাজি আসিদ আলী কমপ্লেক্সে ১৬ ও ১৭ নভেম্বর, সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার মন্ডলীভোগ মতিন ভিউ’তে ১৭ ও ১৮ নভেম্বর, সিলেটের বালাগঞ্জে তাজপুর বাজার হাজি মশ্রব আলী কমপ্লেক্সে ১৫ ও ১৬ নভেম্বর, মৌলভীবাজারে শ্রীমঙ্গলে হাউজিং এস্টেট ৩ নং রোডে ৫০/বি অফিস প্রাঙ্গনে ১৭ ও ১৮ নভেম্বর এবং জেলার কুলাউড়ায় মহিলা কলেজ রোডে ১৫৭ টিটিডিসি এরিয়া সড়কে ১৮ ও ১৯ নভেম্বর মেলা অনুষ্ঠিত হবে। মেলায় ২১টি স্টল থাকবে। প্রতিটি স্টল থেকে গ্রাহকদের ওয়ানস্টপ সার্ভিস দেওয়া হবে।