ইসলামী শিক্ষা সার্বজনীন বাধ্যতামূলক করা হলে দেশে কোন জঙ্গী তৈরী হত না–ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

ইসলামী শিক্ষা সার্বজনীন বাধ্যতামূলক করা হলে দেশে কোন জঙ্গী তৈরী হত না–ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ

প্রকাশিত: ৯:৩৮ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ৫, ২০১৬

ইসলামী শিক্ষা সার্বজনীন বাধ্যতামূলক করা  হলে দেশে কোন জঙ্গী তৈরী হত না–ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ

Islami Andulon Michil Pic 05.08.16ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ সিলেট জেলা ও মহানগর নেতৃবৃন্দ প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনি বলেছিলেন সন্তানদেরকে ইসলাম ধর্ম শিক্ষায় গড়ে তুলতে হবে। ইসলাম শান্তির ধর্ম এবং জুম’আর খুৎবা নির্ধারণ করা হয়নি এজন্য আপনাকে অভিনন্দন কিন্তু একটি বিষয় আপনাকে বিবেচনা করতে হবে আপনি দেশের প্রধানমন্ত্রী আপনার কথার গুরুত্ব সবার উপরে সন্তানরা ইসলাম ধর্ম কোথায় শিখবে পাঠ্য বইয়ের মধ্যে তো ইসলাম নেই আছে হিন্দুত্ববাদী ও নাস্তিক্যবাদী শিক্ষানীতি। পাঠ্যসূচী থেকে বাদ দেয়া হয়েছে বিদায় হজে¦র ভাষণ ও প্রিয় নবীর জীবনী, বাদ দেয়া হয়েছে হযরত ওমর রা: ও হযরত আবু বকরের রা: জীবনী। তার পরিবর্তে পাঠ্যসূচীতে সংযুক্ত করা হয়েছে রামকৃষ্ণকে কিভাবে ভক্তি করতে হয়, গরুকে মায়ের মত মনে করে জবাই করা যাবে না। কালিপূজা ও পাঠাবলি দেয়ার নিয়ম শেখানো হচ্ছে। এটা শিখানো হলে মানুষ চরিত্রবান হবেনা চরিত্রহীন হবে। ইসলামী আদর্শ না থাকার কারণে ১৯৮২ সাল থেকে ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ১৭৫টি সন্ত্রাসী হামলা সংঘটিত হয়েছিল এর অধিকাংশ সংগঠিত হয়েছে খৃষ্টান ও ইহুদীদের দ্বারা। ইসলামী শিক্ষা যদি সার্বজনীন বাধ্যতামূলক করা হতো তাহলে দেশে কোন জঙ্গী তৈরী হত না। ইসলাম শুধু মুসলমানদের নয় বিধর্মীদেরও নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছে। ইসলামী শিক্ষা না থাকার কারণে দেশব্যাপী সন্ত্রাস, নৈরাজ্য ও নিরপরাধ মানুষ খুন হচ্ছে। ইসলামের ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে দেশি-বিদেশী ষড়যন্ত্রকারীরা সন্ত্রাস প্রতিষ্ঠা করে দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্বকে ধ্বংস করে তাদের আধিপত্য প্রতিষ্ঠা করতে চাচ্ছে। সে বিষয়টিকেও সরকারের সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিতে হবে।
নেতবৃন্দ ‘বিতর্কিত জাতীয় শিক্ষানীতি’ ও শিক্ষা আইন বাতিল এবং দেশব্যাপী সন্ত্রাস, নৈরাজ্য, দেশী-বিদেশী ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ সিলেট জেলা ও মহানগরের উদ্যোগে শুক্রবার বাদ জুম্মা বন্দরবাজারস্থ কেন্দ্রিয় জামে মসজিদের সম্মুখে সমাবেশ শেষে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিলটি নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে নগরীর চৌহাট্টা পয়েন্টে গিয়ে মোনাজাতের মাধ্যমে শেষ করা হয়।
মিছিল পূর্ব সমাবেশে বক্তব্য রাখেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ সিলেট জেলা সভাপতি নযির আহমদ, জেলা সহ-সভাপতি আলহাজ¦ আব্দুল করিম, সেক্রেটারী হাফিজ মাওলানা ইমাদ উদ্দিন, মহানগর সভাপতি মুফতী মোঃ ফখর উদ্দিন, সেক্রেটারী ডা. রিয়াজুল ইসলাম রিয়াজ, ইসলামী শ্রমিক আন্দোলন সিলেট জেলা সভাপতি আলহাজ¦ ফজলুল হক, ইশা ছাত্র আন্দোলন সিলেট জেলা সভাপতি মোঃ সোহেল আহমদ, মহানগর সভাপতি মুহা. মাহমুদুল হাসান প্রমুখ। বিজ্ঞপ্তি

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল