ঈদ করতে এলাকায় ছুটছেন বিএনপি নেতারা – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

ঈদ করতে এলাকায় ছুটছেন বিএনপি নেতারা

প্রকাশিত: ১২:৪৯ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১০, ২০১৬

ঈদ করতে এলাকায় ছুটছেন বিএনপি নেতারা

bnp-eiddddঈদকে কেন্দ্র করে রাজনীতিকদের বাড়ি ফেরার তাগিদ অন্যদের চেয়ে একটু বেশিই। আর এবার খালেদা জিয়া সৌদি আরবে থাকায় সেই তাগিদে হাওয়া একটু বেশিই লেগেছে বিএনপি নেতাদের। বেশিরভাগ বিএনপি নেতাই এবার ঢাকায় ঈদ না করে এলাকায় ছুটছেন।

এদিকে বিএনপির অনেকে পরিবার-পরিজনের সঙ্গে ঈদ করতে পারলেও কয়েক হাজার নেতা-কর্মীর ঈদ কাটবে কারাগারে। চার দেয়ালের আবদ্ধ ঘরে। এছাড়া এবারও অর্ধশতাধিক নিখোঁজ নেতাকর্মীর স্বজনদের ঈদ কাটবে বিবর্ণ। এখনও তাদের ফিরে পাওয়ার অপেক্ষায় প্রহর গুনছেন স্বজনরা।

গত কয়েক বছর বাংলাদেশের বৃহৎ রাজনৈতিক দল বিএনপি নেতাদের কাটছে নিরানন্দ ঈদ। এবারও তার ব্যতিক্রম হচ্ছে না। দলটির চেয়াপারসন থেকে শুরু করে তৃণমূল পর্যন্ত বেশিরভাগ নেতা রয়েছেন কোনো না কোনো ঝামেলায়। মামলা-মোকদ্দমা, কারাবাস, গুটিয়ে যাওয়া ব্যবসা-বাণিজ্যে, গ্রেপ্তার এড়াতে আত্মগোপন, হুলিয়া, সঙ্গে যোগ হয়েছে জাতীয় কাউন্সিলের পর কমিটিতে কাঙ্খিত পদ না পাওয়ার যন্ত্রণা। এরপরও বছরব্যাপী রাজনীতি নিয়ে ব্যস্ত থাকা নেতারা ঈদের দিনও ব্যস্ত সময় পার করবেন।

বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া, সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও তার পরিবার এবং কোকোর স্ত্রী পবিত্র ঈদুল আজহা পালন করবেন সৌদি আরবে। বর্তমানে তারা হজ পালন করতে সৌদি আবর রয়েছেন।

বিএনপি নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এ বছর দলটির বেশিরভাগ নেতাই ঈদ করবেন নিজ নিজ নির্বাচনী এলাকায়। প্রতিবার বেশিরভাগ নেতা দলীয় প্রধান বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময়ের জন্য ঢাকায় ঈদ করেন। কিন্তু তিনি দেশে না থাকায় বেশিরভাগ নেতাই এলাকায় ঈদ করবেন।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর নিজ এলাকা ঠাকুরগাঁয়ে ঈদ করবেন। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন ও এম কে আনোয়ার কুমিল্লায়, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ, ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার, লেফটেন্যান্ট জেনারেল মাহবুবুর রহমান (অব.), ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া, মির্জা আব্বাস ঢাকায় ঈদ করবেন। তবে স্থায়ী কমিটির জ্যেষ্ঠ নেতা তরিকুল ইসলাম তার নিজ এলাকা যশোরে ঈদ করবেন। বরাবরই তিনি যশোরে ঈদ করেন। বিএনপির স্থায়ী কমিটিতে স্থান পাওয়া নতুন সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী নিজ এলাকা চট্টগ্রামে ঈদ করবেন।

আরেক নতুন সদস্য সালাহ উদ্দিন আহমেদ ভারতে আছেন। অনুপ্রবেশের দায়ে সেখানে তার নামে মামলা চলছে। সালাহ উদ্দিন জামিনে থাকলেও দেশ ত্যাগে নিষেজ্ঞা থাকায় তাকে ভারতেই ঈদ করতে হচ্ছে।

তবে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আ স ম হান্নান শাহ অসুস্থ অবস্থায় সিএমএইচ হাসপালে ভর্তি আছেন। তার অবস্থার উন্নতি না হলে হাসপাতালেই তাকে ঈদ করতে হবে।

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যানদের মধ্যে শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন, বেগম সেলিমা রহমান, ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, শওকত মাহমুদ, অ্যাডভোকেট আহমদ আযম খান ঢাকায় ঈদ করবেন। আলতাফ হোসেন চৌধুরী নিজ এলাকা পটুয়াখালী, ঢাকায় ঈদ করবেন। বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ঢাকায় ঈদ করবেন। এম মোর্শেদ খান, আবদুল্লাহ আল নোমান, মীর মোহাম্মদ নাসির উদ্দিন তাদের নির্বাচনী এলাকা চট্টগ্রামে ঈদ করবেন। ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর বরিশালে এবং শামসুজ্জামান দুদু চুয়াডাঙ্গায় ঈদ করবেন বলে জানিয়েছেন।

ঢাকার প্রাক্তন মেয়র ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকা এ মুহূর্তে চিকিৎসার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে অবস্থান করছেন। সপরিবারে তিনি সেখানেই এবারের ঈদ উদযাপন করবেন। বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা সাবিহউদ্দিন আমেদ, রিয়াজ রহমান ঢাকায় ঈদ করবেন।

দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী ও যুগ্ম মহাসচিব আসলাম চৌধুরীকে কারাগারে ঈদ করতে হচ্ছে। যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন ঢাকায়, মজিবুর রহমান সরোয়ার বরিশালে, সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল হজ পালন করতে যাওয়ায় তিনি সৌদি আরব, খায়রুল কবির খোকন নরসিংদী, হারুন-অর রশিদ হারুন ঈদ করবেন গ্রামের বাড়ি চাঁপাইনবাবগঞ্জে।

দলের সাংগঠনিক সম্পাদক এমরান সালেহ প্রিন্স ময়মনসিংহ এবং ফরিদপুর বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ ফরিদপুরে ঈদ করবেন।

বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার প্রতিবারের মতো এবার গ্রামের বাড়িতে ঈদ করবেন। এছাড়াও যুগ্ম মহাসচিব হাবিব-উন নবী খান সোহেল, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক মীর সরফত আলী সপু, ঢাকা মহানগর বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক এমএ কাইয়ুমসহ বিএনপির অনেক নেতারা আত্মগোপনে থাকায় প্রকাশ্যে ঈদ পালন করতে পারবে না।

এ ছাড়া কারাগারে কাটবে যাদের ঈদ:

দীর্ঘ দুই বছর ধরে কারাগারে আছেন হবিগঞ্জের পৌর মেয়র ও জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জি কে গউছ। একই মামলায় তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়। এরপর কারাগারে থেকেই দ্বিতীয় দফায় মেয়র নির্বাচন করেন তিনি। তাই এবার কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগারে কাটবে জনপ্রিয় এই বিএনপি নেতা ঈদ।

এছাড়া দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে কারাগারে রয়েছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক মন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টু, সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও গাজীপুরের মেয়র অধ্যাপক এম এ মান্নানসহ কয়েক সহস্রাধিক নেতাকর্মী।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল