ঈদ বাজার : রাত জেগে থাকে সিলেট (ভিডিও) – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

ঈদ বাজার : রাত জেগে থাকে সিলেট (ভিডিও)

প্রকাশিত: ২:৫৬ পূর্বাহ্ণ, মে ১, ২০২২

ঈদ বাজার : রাত জেগে থাকে সিলেট (ভিডিও)

সাকিব আহমেদ :: দুয়ারে কড়া নাড়ছে পবিত্র ঈদুল ফিতর। শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখাসাপেক্ষে আগামী সোম অথবা মঙ্গলবার সিলেটসহ সারা দেশের মুসলমান উদযাপন করবেন প্রধান এই ধর্মীয় উৎসব।

ঈদকে কেন্দ্র করে করে শেষ মুহূর্তে জমে উঠেছে সিলেটের ঈদবাজার। নগরীর দোকানপাট এবং শপিং মলগুলােতে এখন ক্রেতাদের উপচেপড়া ভিড়। ব্যবসায়ীদের দম ফেলার ফুরসতন নেই যেন। তবে ব্যবসায়ীরা বলছেন- এবার সিলেটে বাজার জমে উঠেছে ২০ রমজারেন পর থেকে।

গত দুই বছর দেশে ছিল করােনার সংক্রমণ। সংক্রমণ ঊর্ধ্বমুখী থাকায় ছিল নানা ধরনের বিধিনিষেধ। সেই বিধি-নিষেধের জন্য নগরীর অনেক মার্কেট পুরােপুরি ছিল বন্ধ। এ ছাড়া যেসব মার্কেট খােলা ছিল সেগুলােতেও আশানুরূপ ব্যবসা হয়নি। এবার সংক্রমণ কম থাকায় আগে থেকেই প্রস্তুতি নিতে থাকেন ব্যবসায়ীরা। নতুন নতুন পণ্য তুলতে শুরু করেন দোকানে। নানা রকমের বাতি জ্বালিয়ে, মার্কেট ও আশপাশের এলাকাকে সাজিয়ে ক্রেতাদের আকৃষ্ট করার চেষ্টা করা হয়।

শনিবার (৩০ এপ্রিল) নগরীর জিন্দাবাজার, বন্দরবাজার, নয়াসড়ক ও কুমারপাড়া এলাকার শপিং মলগুলােতে গিয়ে দেখা যায়, শেষ মুহূর্তে এসে জমজমাট বেচাকেনা হচ্ছে। ক্রেতাদের চাপে দম ফেলার সময় নেই বিক্রেতাদের। সব বয়সী মানুষকেই দেখা গেছে কেনাকাটা করতে। দিনে ভিড় কিছুটা কম হলেও ইফতারের পর হাটার জায়গা থাকছে না মার্কেটগুলােতে। মধ্যরাত পর্যন্ত চলছে কেনাকাটা। এর ফলে নগরীর ব্যস্ততম সড়কগুলােতে লেগে থাকছে যানজট।

 

ঈদ ঘনিয়ে আসায় তৈরি পােশাক ছাড়াও জুতা, কসমেটিকস ও জুয়েলারির দোকানেও ভিড় বেড়েছে। শিশুদের পণ্যসামগ্রীর দোকানেও উপচেপড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেছে।

মহানগর ব্যবসায়ী ঐক্য কল্যাণ পরিষদের সভাপতি মাে. আব্দুর রহমান রিপন বলেন, ‘শেষদিকে এসে বেচাকেনা বেড়েছে। ব্যবসায়ীরা গত দুই বছরের ক্ষতি অনেকটাই পুষিয়ে নিতে পারবেন বলে মনে করছি।‘

ঈদের আগের রাত পর্যন্ত মার্কেটে এমন ভিড় থাকবে বলে মনে করেন তিনি।

ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, মেয়েদের জন্য এবারের অন্যতম আকর্ষণ ‘কাচা বাদাম’, ‘পুষ্প, গুল বাহার, চেরি নামের থ্রিপিস। লাল, নীল, সবুজসহ বিভিন্ন রঙের থ্রিপিস রয়েছে কাঁচা বাদামের। আর কাপড়ের প্রকারভেদে দুই হাজার থেকে সাড়ে ৩ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে থ্রি-পিসগুলাে। অন্যান্য ড্রেসের দামও প্রায় একইরকম। কাপড় ভেদে দাম কম বেশি রাখছেন বিক্রেতারা। এসব থ্রিপিস ছাড়াও জয়পুরি জর্জেট, অরগাঞ্জা, কাশ্মিরী কাতান এবং পাকিস্তানি ও কাশ্মিরী জর্জেট দৃষ্টি কাড়ছে নারী ক্রেতাদের।

ঈদের কানাকাটায় ছেলেদের প্রথম পছন্দ পাঞ্জাবি। গত কয়েক বছরের মতাে এবারও বাজারে সুতি ও প্রিন্টের পাঞ্জাবির চাহিদা বেশি। এ ছাড়া সুতার কাজ করা পাঞ্জাবি ও ভারতীয় পাঞ্জাবিরও কদর রয়েছে। এসব পাঞ্জাবি ১ হাজার থেকে ৪ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আর ইন্ডিয়ান সিল্ক বিক্রি হচ্ছে আরও বেশি দামে।

এদিকে, দাম নিয়ে ক্রেতাদের মধ্যে রয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। তবে দুই বছর পর ঈদের মার্কেটে এসে কাপড় কিনতে পেরে খুশি সবাই।

নগরীর জিন্দাবাজারস্থ শুকরিয়া মার্কেটে কেনাকাটা করতে আসা সালাউদ্দিন বলেন, ‘দাম খুব একটা চড়া- সেটা বলা ঠিক হবে না। ক্রয়ক্ষমতার মধ্যেই রয়েছে। আর দুই বছর পর বাজারে এসে কেনাকাটা করতে পেরেছি, এতেই খুশি।’

সুমি নামের এক নারী ক্রেতা বলেন, ‘দাম কিছুটা বেশি মনে হয়েছে। তবে এবার করােনা না থাকায় বাজার ঘুরে ঈদের পােশাক কিনতে পারছি- এটাই অনেক।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল