ঈদ শুভেচ্ছার নামে অবৈধ ব্যানার–ফেস্টুনের ছড়াছড়ি – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

ঈদ শুভেচ্ছার নামে অবৈধ ব্যানার–ফেস্টুনের ছড়াছড়ি

প্রকাশিত: ৯:১৭ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৬

ঈদ শুভেচ্ছার নামে অবৈধ ব্যানার–ফেস্টুনের ছড়াছড়ি

sylhet-city-cor২১ সেপ্টেম্বর ২০১৬, বুধবার: ঈদ শুভেচ্ছাসংবলিত ব্যানার-ফেস্টুন-পোস্টারে ছেয়ে গেছে সিলেট নগর। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতা-কর্মী-সমর্থকেরাই মূলত নগরবাসীকে এভাবে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। এসব শুভেচ্ছাসংবলিত ফেস্টুন সাঁটানোর মধ্যে সরকারদলীয় কর্মী-সমর্থকেরাই বেশি এগিয়ে। সিটি করপোরেশনের অনুমতি ছাড়া অবৈধভাবে এসব সাঁটানো হলেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এসব অপসারণে কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছে না।
সিলেট নগর ঘুরে দেখা গেছে, বন্দরবাজার এলাকায় অবস্থিত নগরের একমাত্র পদচারী–সেতু থেকে শুরু করে বৈদ্যুতিক খুঁটি, রাস্তার মোড়, বিপণিবিতানের সামনের দর্শনীয় স্থান, স্কুল-কলেজের ফটক, গাছ—যেদিকে চোখ যায় পবিত্র ঈদুল আজহার শুভেচ্ছাসংবলিত পোস্টার-ফেস্টুন-ব্যানারের ছড়াছড়ি। এ ছাড়া সরকারি-বেসরকারি স্থাপনা এবং বাসাবাড়ির দেয়াল দখল করেও অনেকে পোস্টারও সেঁটেছেন।
আওয়ামী লীগ ও বিএনপির ওয়ার্ড পর্যায়ের পাঁচজন নেতা বলেন, পয়লা বৈশাখ, ঈদ, পূজা কিংবা অন্যান্য উৎসব উপলক্ষে নগরবাসীকে শুভেচ্ছা জানানোর রেওয়াজ বিগত কয়েক বছর ধরেই চলে আসছে। রাজনৈতিক নেতা-কর্মীরা নিজেদের সরব অস্তিত্ব জানান দেওয়ার উদ্দেশ্যেই মূলত এমন প্রচারণা চালান।

তবে এ ধরনের প্রচারণার বিষয়টি এখন রুচিহীন ও দৃষ্টিকটু প্রতিযোগিতায় রূপান্তরিত হয়েছে বলে মনে করেন সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সিলেটের সভাপতি ফারুক মাহমুদ চৌধুরী। তিনি বলেন, ‘সস্তা সুনামের আশায় সিটি কর্তৃপক্ষের কোনো অনুমোদন না নিয়েই রাজনৈতিক নেতা-কর্মীরা ব্যানার-ফেস্টুন লাগাচ্ছেন। এতে নগরের স্বাভাবিক সৌন্দর্য নষ্ট হচ্ছে। বিষয়টি এখন বাড়াবাড়ি পর্যায়ে চলে গেছে। এটি আত্মপ্রচারণার একটি নগ্ন প্রতিযোগিতা।’

গতকাল সোমবার দুপুরে সরেজমিনে দেখা গেছে, নগরের বন্দরবাজার, সুরমা মার্কেট, জিন্দাবাজার, চৌহাট্টা, আম্বরখানা, তালতলা, কাজিরবাজার, শেখঘাট, লামাবাজার, রিকাবীবাজার, শিবগঞ্জ, শাহী ঈদগাহ, টিলাগড়, উপশহর, হুমায়ুন রশীদ চত্বর, কদমতলী, পাঠানটোলা, সুবিদবাজার, কালীবাড়ি, আখালিয়াসহ অর্ধশতাধিক এলাকার প্রধান সড়কের বৈদ্যুতিক খুঁটি ও স্থাপনায় অবৈধ ব্যানার-ফেস্টুন সাঁটা হয়েছে।

সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এনামুল হাবীব বলেন, এটি অত্যন্ত নিম্ন রুচির পরিচয়। এর চেয়েও বড় কথা, অনেকেই সিটি করপোরেশনের অনুমতি না নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা দখল করে এসব করছেন। শিগগির এসব অপসারণে অভিযান চালানো হবে।

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল