এসআই বিজয়ের বিরুদ্ধে সিলেট পুলিশ সুপারের কাছে অভিযোগ – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

এসআই বিজয়ের বিরুদ্ধে সিলেট পুলিশ সুপারের কাছে অভিযোগ

প্রকাশিত: ১:০৮ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৬, ২০১৬

এসআই বিজয়ের বিরুদ্ধে সিলেট পুলিশ সুপারের কাছে অভিযোগ

Gouangat৬ সেপ্টেম্বর ২০১৬, মঙ্গলবার: সিলেটের গোয়াইনঘাট থানার এস আই নিহাররেন্দু বিজয় দাস বিরুদ্ধে সিলেট পুলিশ সুপারের কাছে একটি অভিযোগ দাখিল করেছেন গোয়্নাঘাট উপজেলার কামাইদ গ্রামের বেবুল দাসের স্ত্রী নিয়তি রাণী দাস। এই অভিযোগে তিনি তার মামলার তদন্ত কর্মকর্তা বদলী অনুরোধ জানিয়েছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গোয়াইনঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিসিয়াল ৩ আদালতে দায়ের করা সিআর মামলা নং-৭১/২০১৬ইং তদন্ত কর্মকর্তা দায়িত্বদেন এস আই নিহাররেন্দু বিজয় দাসকে। দায়িত্ব পাওয়ার পর এস আই বিজয় তার ব্যবহারিত মুঠোফোন ০১৭১৪৪৩৩৩২২ নম্বর থেকে নিয়তি রানী দাসের ব্যবহারিত ০১৭৮০৩১৩৫০২ এই নাম্বারে ফোন করে দেখা করার জন্য বলেন। তখন নিয়তি রাণী দাস অসুস্থতা কারণে দেখা করতে পারবে না বলেন। কিন্তু দেখা করতে পারবেন না শুনে এসআই বিজয় দাস তার উপর চড়ায় হয়ে বিভিন্ন অকথ্য ভাষায় গালি গালাজ করেন। পরে এসআই বিজয় আবার দেখার করার কথা বলে, নিয়তি রাণী দাস ২৭ আগস্ট তিনি পরবেন না জানিয়ে তার ছেলে বিমান দাস ও বোনের ছেলে নিশি কান্ত দাসকে এস আই বিজয়ের সাথে দেখা করতে পাঠান।
নিয়তি রাণী দাসের ছেলে ও বোনের ছেলে থানার পৌছার পর রাত আনুমানিক ৮.১৫ মিনিটের সময় ফোন করে এস আই বিজয় নিয়তি রানীকে বলেন আপনার ছেলেকে গোয়াইনঘাট বাস ষ্টেশন থেকে ৫ বোতল মদ সহ গ্রেফতার করেছেন। এসআই বিজয় নিজের ব্যবহারিত ফোন ও নিয়তি রাণীর ছেলের ফোন থেকে একথা বলেন নিয়তি রানী বলেন ছেলে যদি অপরাধী হয় তা হলে কোট বিচার করবে আপনি কোটে পাঠিয়ে দিন। এসআই বিজয় দাস নিয়তি রাণীকে আসার জন্য বলেন তিনি আসলে ছেলেদের ছেড়ে দেওয়া হবে বলে জানান।
পরে স্থানীয় কয়েক জন গণ্যমান্য লোক নিয়ে নিয়তি রাণী দাস থানা গেলে তাকে আপোষনামায় স্বাক্ষর করার জন্য বলেন। নিয়তি রানী দাস আপোষনামা স্বাক্ষর করেন নি তিনি বলেন কোর্টে মামলা পাঠিয়ে দিন কোর্ট বিচার করবে এসময় উপস্থিত স্থানীয় লোকদের সহযোগিতায় এসআই বিজয় দাস নিয়তি রাণী দাসের ছেলে ও বোনের ছেলেকে ছেড়ে দিতে বাধ্য হন। অভিযোগে তিনি এই ধরনের দুর্ণীতি বাজ পুলিশ অফিসারের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা ও তার মামলার তদন্ত কর্মকর্তা থেকে বদলীর অনুরোধ জানান।
এই বিষয়ে গোয়াইনঘাট থানার ওসি সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোর রিসিভ করেন নি।

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল