ওরা ৭১ কে মুখে নয়, অন্তরে লালন করে- এফ এইচ ফারহান – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

ওরা ৭১ কে মুখে নয়, অন্তরে লালন করে- এফ এইচ ফারহান

প্রকাশিত: ৬:৪৯ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০১৭

ওরা ৭১ কে মুখে নয়, অন্তরে লালন করে- এফ এইচ ফারহান

শ্রদ্ধেয় বড় ভাই, যার কাছ থেকে অামি সব সময় ভালো কিছু শেখার প্রত্যাশা রাখি, সেই “রুহুল অালম চৌধুরী উজ্জ্বল “ভাইয়ের ( চেয়ারম্যান, হৃদয়ে ৭১ ফাউন্ডেশন, কেন্দ্রীয় সংসদ) অামন্ত্রণে অারেক বড় ভাই, যার সরলতা এবং স্পষ্টবাদিতায় অামি মুগ্ধ, হৃদয়ে ৭১ ফাউন্ডেশনের সদস্য প্রিয় ” অাদিল ইসলাম ” ভাই ‘র প্রবাস গমন উপলক্ষে একটি সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে ২৫ শে সেপ্টেম্বরের সন্ধ্যায় প্রধান অালোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অাওয়ামী কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য,সিলেট মহানগর অাওয়ামীলীগের সভাপতি এবং সাবেক সিসিক মেয়র বদর উদ্দিন অাহমদ কামরান ভাই, হৃদয়ে ৭১ ‘র ইঞ্জিনখ্যাত নগর অাওয়ামী নেতা অধ্যাপক জাকির হোসেন ভাই সহ অারো অনেক গুণী ব্যক্তিত্ব।
হৃদয়ে ৭১ ফাউন্ডেশনের সিলেট জেলা এবং মহানগর শাখা কর্তৃক অায়োজিত অনুষ্ঠানে ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও হৃদয়ে ৭১ পরিবারের সদস্য বড় ভাই ফারহান সাদিক এবং অাফসার ভাইয়ের যৌথ পরিচালনায় অনুষ্ঠানের প্রথমেই স্বাগত বক্তব্য রাখার জন্য দরগা গেইটস্থ কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের সাহিত্য অাসর হলরুমে ডাকা হয় অামাকে। প্রথমত হৃদয়ে ৭১ সংগঠন এবং এর কার্যক্রম সম্পর্কে অামি পুরোপুরিই অজ্ঞাত ছিলাম, দ্বিতীয়ত প্রবাস গমন উপলক্ষে সংবর্ধনার কথা চিন্তা করে প্রিয় অাদিল ভাইয়ের জন্য শুভ কামনা করে হৃদয়ে ৭১ ‘র ভাবার্থ এবং ফাউন্ডেশনের সঠিক পথে সাফল্য প্রত্যাশা করা ছাড়া অামার তেমন কিছুই বলার ছিল না। সংক্ষিপ্ত বক্তব্য সমাপ্ত করেই নির্ধারিত অাসনে গিয়ে বসে রইলাম।মিনিট খানেক পর দুষ্টু ছেলে খ্যাত ( চঞ্চল অর্থে) হৃদয়ে ৭১ ‘র মহাপরিচালক ইব্রাহীম আহমদ জেসি ভাইয়ের হৃদয়স্পর্শী বক্তব্য অামার মনে একরকম উত্তাল সৃষ্টি করে দেয়। এ কোনো মিছিলের উত্তাল নয়, এটা সত্যের উত্তাল, প্রকৃত সত্যকে উপলব্ধি করার উত্তাল। সেই সাথে প্রিয় মফি ভাইয়ের স্বাধীনতার কবিতা প্রত্যেকের মনকে সত্যপ্রেমে জাগ্রত করে তুলেছিল। ক্ষণিকের জন্য ভুলেই গিয়েছিলাম এটা অামাদের কোনো এক সদস্যকে কেন্দ্র করে সংবর্ধনা অনুষ্ঠান, স্বাধীনতার কবিতায় যেন ফুটে ওঠেছিল ৭১ ‘র রক্তস্পর্শী অগ্নি ঝড়। অাদিল ভাইয়ের বক্তৃতায় বঙ্গবন্ধু প্রেম, তার সৎ সাহস, তার সরলতা এবং তার স্পষ্টবাদিতার এক অসাধারণ চিত্র ফুটে ওঠেছিল।
এবার বক্তৃতায় প্রিয় উজ্জ্বল ভাই, অামার দৃষ্টি শ্রদ্ধেয় বড় ভাইয়ের দুই চোখের দিকে। বাঙালি সত্ত্বার স্বাধীনতা সংগ্রামের বিভিন্ন ধাপ অতি সুন্দরভাবে যুক্তিপ্রমাণ সহ উপস্থাপন করেন তিনি। ১৭৫৭ থেকে ১৯৪০ ‘র লাহোর প্রস্তাব, ৪৭ ‘র অখন্ড বাংলা অান্দোলন, ৫২ ‘র ভাষা অান্দোলন, ৫৪ ‘র যুক্তফ্রন্ট, ৬৬ ‘র ৬ দফা, অাগরতলা মামলা, ৬৯ ‘র গণঅভ্যুত্থান, ৭০ ‘র নির্বাচন, ৭১ ‘র মুক্তির সংগ্রাম সহ বিভিন্ন দিক অতিসুন্দরভাবে বর্ণনা করে ১৭ ই মার্চ ১৯২০ সালে জন্ম নেয়া বাঙালির সাধীনতা সংগ্রামের অগ্রনায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দেশপ্রেম ও সঠিক এবং সাহসী নেতৃত্বের বিভিন্ন দিক ফুটে ওঠে ওনার বক্তৃতায়। উজ্জ্বল ভাই দেখিয়ে দেন বঙ্গবন্ধু শুধু একটি অাদর্শ নেতৃত্ব নয়, বঙ্গবন্ধু মুক্তির প্রেরণা, বঙ্গবন্ধু দেশ পরিচালনার একটি সাবলীল প্ল্যাটফর্ম। পাশাপাশি উচ্চারিত হয় নবাব সিরাজউদ্দৌলা, শেরে বাংলা- মওলানা ভাসানী থেকে শুরু করে মুক্তিযুদ্ধের সেনানায়েক, অামার প্রিয় ব্যক্তিত্ব এম এ জি ওসমানী সহ মুক্তিযুদ্ধের চিফ অব স্টাফ অাব্দুর রব সাহেবের নাম। বঙ্গবন্ধুর নাম ব্যবহার করে যারা সন্ত্রাসকে প্রশ্রয় দেয় তাদের প্রতি নিন্দা জ্ঞাপন করে, সকলকে সঠিক ইতিহাস জেনে বঙ্গবন্ধুর অাদর্শ বুকে লালন করার অাহবান জানানো হয়। শুধুমাত্র বঙ্গবন্ধুর নাম অামার অন্তসত্ত্বাকে এমনভাবে নাড়া দিয়েছিল, মনে হচ্ছিলো বঙ্গবন্ধু কিছুক্ষণ পরেই অামার সামনে উপস্থিত হবেন। হৃদয়ে ৭১ ফাউন্ডেশনের উপদেষ্ঠা অধ্যাপক জাকির ভাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, বঙ্গকন্যা শেখ হাসিনার লিখা একটি বইয়ের গুরুত্বপূর্ণ কিছু অংশ উপস্থাপন করে, স্বাধীনতার সঠিক ইতিহাসকে অন্তরে স্থান দিয়ে, মুক্তি সংগ্রামের চেতনাকে বল বানিয়ে নতুন প্রজন্মকে সামনে এগিয়ে চলার অাহবান জানান। পাশাপাশি সকল প্রকার ভ্রান্তির বেড়াজাল থেকে বের হওয়ার পথ হিসেবে ৭১ কে হৃদয়ে স্থান দেয়ার বিষয়টিকে গুরুত্ববহ হিসেবে অাখ্যায়িত করেন।সাবেক মেয়র কামরান ভাইয়ের বক্তৃতায় ৭১ ‘র শক্তি বহন করে বঙ্গবন্ধুর বাকশাল গঠনকে দেশ গড়ার ভিত্তিরূপে বিবেচনা করে বর্তমান বিভিন্ন সমস্যা এবং সমাধানের পথ সম্পর্কে সঠিক জ্ঞানলাভে তরুণদের অাগ্রহী হওয়ার বিষয়টি ফুটে ওঠে। দেওয়ান ফরিদ গাজী সাহেব, হুমায়ূন রশীদ সাহেব, কিবরিয়া সাহেব সহ কয়েকজন যোগ্য নেতৃত্বের নাম উল্লেখ করে হৃদয়ে ৭১ কে স্বাগত জানিয়ে তিনি হৃদয়ে ৭১ ফাউন্ডেশন কে বর্তমান সময়ের সবচেয়ে প্রয়োজনীয় বিষয়রূপে বিবেচনা করেন এবং সত্যানুসন্ধানী এই সংগঠনটি একদিন বিশ্বব্যাপী তার কার্যক্রমকে বিস্তৃত করবে এমন প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন। হৃদয়ে ৭১ পরিবারের অারো কিছু ভাইদের সঠিক এবং তাৎপর্যপূর্ণ বাস্তব জ্ঞানে ভরপুর বক্তৃতা এবং অবশেষে সংগঠনটির নগর শাখার সভাপতি মওলানা জামিল ভাইয়ের মোনাজাতের মধ্যদিয়ে অনুষ্ঠানটির অালোচনা পর্বের সমাপ্তি ঘটে। অালোচনা পর্বটি যেমন ছিল সঠিক জ্ঞানে ভরপুর, তেমনি বঙ্গবন্ধু, স্বাধীনতা, প্রেরণা, পরিকল্পনা, সংস্কৃতি এবং শক্তি সবমিলিয়ে হৃদয়ে ৭১ অামাকে নিয়ে গিয়েছিল সত্যের জগতে।
বাস্তব অর্থে হৃদয়ে ৭১ শুধুমাত্র একটি সংগঠন নয় বরং মুক্তি চেতনায় বিশ্বাসী একটি প্ল্যাটফর্ম, যেখান থেকে সত্যানুসন্ধানী নেতৃত্বরা সময়ের পরিক্রমায় দেশ গঠনের লক্ষে বেরিয়ে অাসবে। হৃদয়ে ৭১ ‘র সাপ্তাহিক পাঠচক্র স্বাধীনতার প্রকৃত ইতিহাসকে জানার এক সুবর্ণ সুযোগ। যা অালোকিত করবে জ্ঞানকে এবং জ্ঞান অালোকিত করবে সমাজকে। বর্তমান সময়ে রাজনীতিতে একটি বিষয় বেশ চোখে পড়ে। অামাদের কিছু কালো পোশাকধারী রাজনীতিবিদরা বঙ্গবন্ধুর নাম উচ্চারণ করেন ঠিকই, কিন্তু কাজ করেন অসামাজিক। এমনকি অামাদের কতিপয় ছাত্রনেতারাও জয় বঙ্গবন্ধু বলেন ঠিকই, কিন্তু বঙ্গবন্ধু মায়ের নাম অামেনা বলেন! অাবার অনেক পাঠ্যপুস্তকও স্বাধীনতার ভ্রান্ত ইতিহাসে ভরপুর। সবমিলিয়ে অাজকের সমাজ ভ্রান্তির শিকলে বন্ধি। অধিকাংশ ছাত্রনেতারা জানেনই না বঙ্গবন্ধু কি বা কি তার অাদর্শ! স্বাধীনতার ইতিহাস তো অনেক দূর! ওনারাই অাবার রাস্তাঘাটে, এমনকি পাবলিক টয়লেটের দেয়ালেও পোস্টার লাগান ওনারা নাকি জননেতা! সাথে সাথে টেন্ডারবাজি, হত্যা, রাহাজানি, ভাঙচুর,চুরি,ডাকাতি চাঁদাবাজি, ইভটিজিং, মাদক সহ নানা সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে ওনারা এক্সপার্ট। কিছু প্রভাবশালী নেতারাও অাবার এইসব কালো পোশাকধারী মহানায়কদের ওপর ভর করে চলেন এবং বলেন এরা হচ্ছে অামাদের বঙ্গপ্রেমী ছাত্রনেতা, অামাদের ভবিষ্যৎ নেতৃত্ব। অথচ তারা জানেই না, নেতা কি বা নেতৃত্ব কি। যারা নিজেদের অস্তিত্ব সম্পর্কে সচেতন নয়, তারা কিভাবে দেশের হয়ে নেতৃত্ব দিবে? অন্ধকারে বসবাস করে দেশ গড়া যায় না, অালোরও প্রয়োজন হয়। জাতিকে বিভ্রান্তির বেড়াজাল থেকে বের করে নিয়ে অাসতে এবং ভবিষ্যতের যোগ্য নেতৃত্ব গঠনের স্বার্থে এইসব কালো পোশাকধারী নেতা এবং তাদের ভবিষ্যৎ নেতৃত্ব, ভন্ডামির সাথে জড়িত ভদ্রলোকগণ সহ নতুন প্রজন্মের স্বাধীনতার ইতিহাস বিকৃত ভুল-ভ্রান্তির বেড়াজালে অাবদ্ধ সকল ভাইবোনদের জন্য একটি শিক্ষণীয় প্ল্যাটফর্ম হচ্ছে হৃদয়ে ৭১ ফাউন্ডেশন। কেননা, ওরা ৭১ কে মুখে নয়, অন্তরে লালন করে।

মো. ফয়েজুল হাসান ফারহান
লেখক এবং সংগঠক