ওসমানীনগরে দফায় দফায় হামলার শিকার একটি পরিবার : গ্রেফতার নেই – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

ওসমানীনগরে দফায় দফায় হামলার শিকার একটি পরিবার : গ্রেফতার নেই

প্রকাশিত: ৫:৫৪ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৮, ২০১৭

ওসমানীনগরে দফায় দফায় হামলার শিকার একটি পরিবার : গ্রেফতার নেই

সিলেটের ওসমানীনগরে দফায় দফায় সন্ত্রাসী হামলার শিকার নিরীহ একটি পরিবার। এ ঘটনায় মামলা হলেও অজ্ঞাতকারনে আসামীদের গ্রেফতার করছে না পুলিশ। ফলে বেপরোয়া সন্ত্রাসীরা তাদের হামলা-মামলা অব্যাহত রেখে চলেছে। পৃথক হামলায় শিশুসহ আহত হয়েছেন ৬ জন।
সরেজমিন অনুসন্ধ্যানে জানা গেছে, ওসমানীনগর থানার আলীপুরের বাবুল মিয়ার সাথে ভূমি সংক্রান্ত বিরোধ রয়েছে প্রতিবেশী ‘ভূমিখেকো’ আব্দুস সালামের। বিরোধ মিমাংসার জন্য বুধবার (১৮অক্টোবর) গ্রামের মসজিদের মুতাওয়াল্লী লিয়াকতের বাড়িতে সালিশ বসে। সালিশ চলাকালে আব্দুস সালাম ও তার লোকজন পরিকল্পিতভাবে বাবুল মিয়াদের উপর সশস্ত্র হামলা চালায়। হামলায় বাবুল মিয়াসহ ৬জন গুরুতর আহত হন। আহত অন্যরা হচ্ছেন, লেবু মিয়া, শফিক মিয়া, সাজনু বেগম, জুলেখা বেগম ও বিরন মিয়া। গুরুতর অবস্থায় বাবুল মিয়াসহ আহতদের সিলেট ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় বাবুল মিয়া বাদী হয়ে ২৩ অক্টোবর সিলেটের ওসমানীনগর থানায় ৬ জনকে এজাহারভুক্ত করে ১০জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা {নং-১২(১০)১৭} করেন। মামলার এজাহারভুক্ত আসামীরা হচ্ছে থানার আলীপুর গ্রামের আব্দুস সালাম, সোনা উল্লাহ, মুকিত মিয়া, আজমান উল্লাহ, মামুন মিয়া ও মছব্বির মিয়া। মামলার খবর পেয়ে ক্ষিপ্ত হয়ে আব্দুস সালাম ও তার শশুর তেরাবালীর লোকজন বৃহস্পতিবার (২৬অক্টোবর) দুপরে স্থানীয় ময়না বাজারের ব্রীজে পেয়ে বাবুলের চাচাতো ভাই জায়েদকে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে গুরুতর আহত করে। বাজারের ব্যবসায়ী ফজলু মিয়া, রুমেল ও আছাব মিয়াদের হস্তক্ষেপে জায়েদ প্রাণে রক্ষা পায় এবং পরে তাকেও সিলেট ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। দ্বিতীয় দফায় হামলার ঘটনায় থানায় পৃথক মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে থানা সূত্রে জানা গেছে।
সরেজমিন অনুসন্ধ্যানে স্থানীয়রা অভিযোগ করেছেন, আলীপুরের তেরাবালীর বাড়িতে তীর ও জুয়া খেলাসহ নানা অসামাজিক কর্মকান্ডের আসর বসে। তেরাবালীর জামাতা আব্দুস সালাম এ আসর পরিচালনা করে থাকে। উপরন্তু আব্দুস সালামের সাথে রয়েছে ওসমানীনগর থানা পুলিশের কতিপয় অসাধু কর্মকর্তার গভীর সখ্যতা। আর এ কারণেই আব্দুস সালাম ও তার শশুর তেরাবালী সম্পূর্ন বেপরোয়া হয়ে গ্রামের নিরীহ লোকদের উপর হামলা ও মিথ্যা মামলা অব্যাহত রখেছে। এলাকাবাসী তীর ব্যবসায়ী তেরাবালী ও তার জামাতা আব্দুস সালামের বিরুদ্ধে প্রতিরোধমূলক আইনে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্তা-ব্যক্তিদের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
হামলা ও মামলার ব্যাপারে ওসামানীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. শহীদুল্লাহ হামলা ও মামলার সত্যতা নিশ্চিত করে সাংবাদিকদের জানান, মামলার পর থেকে আসামীরা আত্মগোপনে চলে গেছে। তাদের গ্রেফতারে পুলিশের তল্লাশী অভিযান অব্যাহত রয়েছে।