ওসি আখতার নায়, মুন্না-ছাত্রলীগ (ভিডিও) – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

ওসি আখতার নায়, মুন্না-ছাত্রলীগ (ভিডিও)

প্রকাশিত: ১১:৩০ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৩, ২০১৮

ওসি আখতার নায়, মুন্না-ছাত্রলীগ (ভিডিও)

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ (এসএমপি) শাহপরাণ (রহ.) থানা এলাকায় আইনশৃঙ্খলার চরম অবনতি ঘটেছে। একে পর এক বেরুচ্ছে শাসকদল ছাত্রলীগের শবমিছিল। অধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে নগরীর টিলাগড় এলাকায় একর পর এক ঝরছে ছাত্রলীগের রক্ত। গত সেপ্টেম্বর থেকে এ পর্যন্ত ৫ মাসের ব্যবধানে ঝরে পড়েছে শাসকদলের তিনটি তাজা প্রাণ। ছাত্রলীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দলের ফলে একের পর এক খুন হচ্ছেন কর্মীরা। নগরীর টিলাড়গড়ে সিলেট জেলা ছাত্রলীগের একাধিক গ্র“প রয়েছে। এদের একটি হচ্ছে সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের ক্রীড়া ও যুব বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট রঞ্জিত সরকার সমর্থিত ছাত্রলীগ। অপরটি হচ্ছে সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক কাউন্সিলর আজাদুর রহমান আজাদ সমর্থিত ছাত্রলীগ। তৃতীয়টি হচ্ছে সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি হিরণ মাহমুদ নিপু সমর্থিত ছাত্রলীগ। ছাত্রলীগের আজাদ গ্র“পের সন্ত্রাসীরা সম্পূর্ন বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। ছাত্রলীগের প্রদান ঘাটি এমসি কলেজ, সিলেট সরকারী কলেজ সহ টিলাগড় এলাকায় আধিপত্য বিস্তারে মরিয়া হয়ে উঠে ছাত্রলীগ আজাদ গ্র“প। একের পর এক রক্ত ঝরাতে থাকে প্রতিদ্ধন্দ্বি গ্র“প গুলোর। গত বছরের ১৪ সেপ্টেম্বর ছাত্রলীগ আজাদ গ্র“পের হাতে খুন হয় ছাত্রলীগ কর্মী জাকারিয়া আহমদ মাছুম। এঘটনায় ঘাতকদের গ্রেফতারে ব্যর্থ আইনশৃঙ্খলাবাহিনী। ফলে বেপরোয়া আজাদ গ্র“প এক মাসের ব্যবধানে আজাদ গ্র“পের সন্ত্রাসীরা ১৬ অক্টোবর প্রকাশ্য দিবালোকে কুপিয়ে খুন করে ছাত্রলীগ হিরণ মাহমুদ নিপু গ্র“পের কর্মী ওমর আহমদ মিয়াদকে। এঘটনায়ও ঘাতকদের গ্রেফতার না করে তাদের আসকারা দিতে থাকায় এ বছরের ৭ জানুয়ারী একই আজাদ গ্র“পের হাতে খুন হয় ছাত্রলীগ রঞ্জিত গ্র“পের কর্মী তানিম খান। তানিম খুনের ঘটনায় মামলা নিয়েও নাটক সাজিয়েছেন ছাত্রলীগের একটি মহল। তানিমের স্বজনরা মামলা দিতে না রাজি হলে। অবশেষে ছাত্রলীগের এক কর্মীকে বাদি বানিয়ে ঝগাকিছুড়ি একটি মামলা রুজু করেন তিনি। খুনের ঘটনায় ৮/১০জন জড়িত থাকলেও মামলা হয় ২৯ জনের বিরুদ্ধে। ছাত্রলীগ নেতাকর্মী ছাড়াও মামলায় আসামী করা হয় সরকার বিরোধী ছাত্রদলের নেতা মহানগর ছাত্রদলের যুগ্ম সম্পাদক উমেদুর রহমান উমেদ সহ অনেককে। এমনকি দীর্ঘ দিন ধরে কারান্তরীন জুনেদকেও চোখবুঝে আসামী করা হয় এ মামলায়। প্রকৃত খুনিদের মামলা থেকে রেহাই দিয়ে ঘটনাটি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে মামলাটি সাজানো হয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শী সহ প্রতিপক্ষ ছাত্রলীগ হিরণ মাহমুদ নিপুর বর্ণনায় তানিম খুনের ঘটনায় জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক রায়হান, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মুন্না ও মুসফিক সরাসরি জড়িত থাকলেও তাদের আসামী করা হয় নি এ মামলায়। ছাত্রলীগের নির্যাতিত নেতাকর্মীদের বক্তব্য শাহপরাণ থানার ওসি মূলত আখতার হোসেন নয়। এ থানায় ওসির দায়িত্বপালন করছে আজাদ গ্র“পের সন্ত্রাসী মুন্না। মুন্নার দিক নির্দেশনায়ই তামিম হত্যা মামলাকে ভিন্নখাতে প্রবাহ করা হচ্ছে। ফলে তানিম হত্যার ন্যায় বিচার প্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত হওয়ার সমূহ সম্ভবনা বিদ্যমান। এখন জেলা ছাত্রলীগ এক আতংকের নাম ও মৃত্যুপুরিতে পরিণত হয়েছে। ফলে তিন মাসের ব্যবধানে সিলেট জেলা ছাত্রলীগের কমিটি ভেঙ্গে দিতে বাধ্য হয়েছে কেন্দ্রীয় কমিটি।

 

এমসি কলেজ গেইট থেকে সরাসরি

Posted by Humayun Kabir Liton on Sunday, 7 January 2018