কবিগুরুকে স্মরণ করে সিংহবাড়ির উদ্যোগ ও প্রকাশনা নতুন প্রজন্মকে উদ্দীপ্ত করবে: মেয়র আরিফ – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

কবিগুরুকে স্মরণ করে সিংহবাড়ির উদ্যোগ ও প্রকাশনা নতুন প্রজন্মকে উদ্দীপ্ত করবে: মেয়র আরিফ

প্রকাশিত: ১২:১৭ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৬, ২০২০

কবিগুরুকে স্মরণ করে সিংহবাড়ির উদ্যোগ ও প্রকাশনা নতুন প্রজন্মকে উদ্দীপ্ত করবে: মেয়র আরিফ

কবিগুরুকে স্মরণ করে শতবর্ষ পরে সিংহবাড়ির উদ্যোগ ও প্রকাশনা নতুন প্রজন্মকে উদ্দীপ্ত করবে। কবি গুরু রবীন্দ্রনাথের শ্রীভূমি শ্রীহট্টে শুভাগমনের শতবার্ষিকী অনুষ্ঠানকে স্মরণীয় করে রাখতে নগরীর চৌহাট্টাস্থ সিংহবাড়ির অন্দর আঙ্গিনায় রবিরাগে রঞ্জিত ‘কবি প্রণাম, আজি হতে শতবর্ষ আগে ও তাঁর চরণ ধ্বনি স্মারকত্রয়ীর প্রকাশনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী উপরোক্ত বক্তব্য রাখেন।
তিনি বর্তমান প্রজন্মের ছেলে-মেয়েদেরকে নিয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেন এবং তাদেরকে আরো বেশি মানবিক মূল্যবোধে গড়ে তোলার জন্য অভিভাবকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।
গতকাল ২৫ ডিসেম্বর শুক্রবার বিকেল ৩টায় আয়োজিত প্রকাশনা অনুষ্ঠান সিলেটের বিশিষ্ট কবি ও গবেষক প্রফেসর নৃপেন্দ্র লাল দাশের সভাপতিত্বে ও এডভোকেট বিজয় কৃষ্ণ বিশ্বাসের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন সিংহ বাড়ির পক্ষে প্রকাশনা সম্পাদক সমাজসেবী জ্যোর্তিময় সিংহ মজুমদার চন্দন। সভায় মূখ্য আলোচক ছিলেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ফারজানা সিদ্দিকা। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন দৈনিক সিলেট মিরর সম্পাদক আহমেদ নূর, কবি ও লোকসংস্কৃতি গবেষক অধ্যাপক ড. আবুল ফতেহ ফাত্তাহ্, কবি ও গবেষক এ. কে. শেরাম, লেখক প্রাবন্ধিক গবেষক ও অনুবাদক মিহির কান্তি চৌধুরী, সিলেটের বিশিষ্ট আইনজীবী এ. ইউ. শহীদুল ইসলাম, সিলেট মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির ড. মোস্তাক আহমেদ দীন। সভায় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সম্মিলিত নাট্য পরিষদ সিলেটের সভাপতি মিশফাক আহমদ চৌধুরী মিশু, সিলেট জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক শামীম আহমদ, লেখক বিধুভূষণ ভট্টাচার্য্য, শিক্ষয়িত্রী শিলা চৌধুরী, অধ্যাপক কৃষ্ণপদ সূত্রধর, কবি ও ব্যাংকার সুমন বনিক, এ্যাপেক্সিয়ান চন্দন দাশ, শিক্ষয়িত্রী শাশ্বতী পাল সোমা, সংগঠক বিনয় ভূষণ তালুকদার, সিংহবাড়ির পক্ষে ব্যাংকার সৌমিত্র সিংহ মজুমদার। ‘কবিগুরুর আমার মুক্তি আলোয় আলোয় এবং আগুনের পরশমণি ছোঁয়ায় প্রাণে, এ জীবন পূণ্য কর’ সঙ্গীত পরিবেশন করেন সিলেটের বিশিষ্ট রবীন্দ্র সঙ্গীত শিল্পী রানা কুমার সিংনহার পরিচালনায় আনন্দলোক সিলেটের শিল্পীবৃন্দ। স্বাগত বক্তব্যে প্রকাশনা সম্পাদক জ্যোতির্ময় সিংহ মজুমদার চন্দন প্রকাশনাত্রয়ী থেকে বিক্রয়লব্ধ অর্থ বঙ্গবন্ধু, কবিগুরু ও জাতীয় কবির নামে ৩টি বৃত্তি প্রদানে ব্যয়িত হবে বলে ঘোষণা করেন। শুরুতেই মঙ্গলপ্রদীপ প্রজ্জ্বলন ও প্রকাশনা সমূহের মোড়ক উন্মোচন করেন প্রধান অতিথি সহ অতিথিবৃন্দ।
অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, সিলেট রামকৃষ্ণ মিশন আশ্রমের সম্পাদক শ্রীমৎ স্বামী চন্দ্রনাথানন্দজী মহারাজ, সিলেটের বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও সমাজসেবী অধ্যাপক বিজিত কুমার দে, শিক্ষাবিদ অধ্যাপক প্রশান্ত কুমার সাহা, বাংলাদেশ ব্যাংকের অব. ডিজিএম প্রণব কুমার দেবনাথ, ব্যাংকার অনাথ বন্ধু এষ, লেখক ও সংগঠক অমিতা বর্ধন, শিক্ষাবিদ অধ্যাপক পার্থ সারথী নাগ, কবি পুলিন রায়, কবি ও সাংবাদিক সঞ্জয় নাথ সঞ্জু, কবি আবিদ ফায়সাল, কবি ধ্রুব গৌতম, কবি পাপড়ি রায়, কবি হিমেল রায়, শিক্ষয়িত্রী জয়তী ঘোষ লোনা, ছড়াকার নিরঞ্জন চন্দ্র চন্দ, ব্রতচারী ও কবি বিমান তালুকদার সহ সিলেটে কবি গুরু ও সিংহবাড়ির অসংখ্য গুণগ্রাহী উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে অতিথিবৃন্দকে ফুল দিয়ে বরণ ও জলযোগে আপ্যায়িত করেন সিংহবাড়ির পক্ষে প্রভাতী সিংহ মজুমদার, পরমা সিংহ মজুমদার ও সিংহ বাড়ির অন্যান্য সদস্যবৃন্দ। শেষে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে বক্তব্য রাখেন সিংহবাড়ির পক্ষে এডভোকেট সুজয় সিংহ মজুমদার।
বক্তারা আরো বলেন, সিলেটের সামগ্রীক ইতিহাসকে ধারণ করতে এই রবীন্দ্র অনুরাগের অনুষ্ঠান ও প্রকাশনা অনুষ্ঠান স্বার্থকতা লাভ করবে। এছাড়া বহির্বিশ্বে কবিগুরুকে তুলে ধরতে তাঁর সৃষ্টিশীল কাজকে অন্যান্য ভাষায় অনুবাদ করতে হবে। কবিগুরুর গান আমাদের জাতীয় সঙ্গীত। তাই তিনি আমাদের জীবনে আরো বেশি প্রাসঙ্গিক। সিলেটের অতিথিপরায়নতার কথা উল্লেখ করে বক্তারা বলেন, এসব আয়োজনের মধ্য দিয়ে আমরা বারবার সম্মিলিত হতে চাই। জাতীয় কবি কাজী নজরুলের সিলেটে শুভাগমনের আসন্ন উৎসবকে স্মরণীয় করতে এখনি উদ্যোগ গ্রহণ করার তাগিদ প্রদান করা হয়। এছাড়া মণিপুরী নৃত্যকে বিশ্ব ভারতী সহ বিশ্বসভায় প্রতিষ্ঠিত করতে কবিগুরুর অবদানের কথা শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন। প্রধান অতিথি সভায় সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে একটি আধুনিক ও সমৃদ্ধ লাইব্রেরী পূণরায় চালু করার কথা পূনর্ব্যক্ত করেন। বিজ্ঞপ্তি