কর্মসূচিতে অংশ না নেয়ায় শিক্ষার্থীকে হল থেকে বের করে দিল ছাত্রলীগ – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

কর্মসূচিতে অংশ না নেয়ায় শিক্ষার্থীকে হল থেকে বের করে দিল ছাত্রলীগ

প্রকাশিত: ১১:৩১ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৯, ২০১৮

কর্মসূচিতে অংশ না নেয়ায় শিক্ষার্থীকে হল থেকে বের করে দিল ছাত্রলীগ

কর্মসূচিতে অংশ না নেয়ায় বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাকৃবি) মেয়েদের আবাসিক একটি হলে ছাত্রফ্রন্টের প্রথম বর্ষের এক কর্মীকে হল থেকে বের করে দিয়েছে ছাত্রলীগ। বিশ্ববিদ্যালয়ের বেগম রোকেয়া হলে সোমবার রাতে ওই ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী ছাত্রী আফসানা আহমেদ ইভা মঙ্গলবার সকালে হল গেটের সামনে হলে থাকার দাবিতে আমরণ অনশন শুরু করে।

ইভা জানান, ৪ জানুয়ারি ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে দুপুরে আনন্দ শোভাযাত্রার আয়োজন করে বাকৃবি ছাত্রলীগ। ওই দিন প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীদের ছাত্রলীগের কর্মসূচিতে অংশ নিতে বাধ্য করে ওই হলের ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। কিন্তু ইভা কর্মসূচিতে অংশ নিতে অপারগতা প্রকাশ করেন। এরপর তাকে হল থেকে বের করে দেয়ার হুমকি দেয়া হয়। এরপর সোমবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে বাকৃবি ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি তানিয়া আফরিন সিনথি এবং কর্মী সাদিয়া স্বর্ণা, ইলা ও শিলা রুম থেকে তাকে বের করে দেন। এ সময় হল প্রভোস্ট আমাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের হেলথ কেয়ার সেন্টারে গিয়ে অবস্থান করার কথা বলেন। প্রসঙ্গত, হলে সংস্কারকাজ চলায় হেলথ কেয়ার সেন্টারে সাময়িকভাবে কিছু ছাত্রীকে রাখা হয়েছে। কিন্তু ওই ছাত্রী নিরাপত্তাহীনতার কথা বলে সেখানে যেতে অপারগতা প্রকাশ করেন। রাতে তিনি হলের ফটকে অবস্থান করেন।

হল প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. ইসমত আরা বেগম বলেন, সমস্যা তৈরি হওয়ায় একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দেই। আপাতত আফসানাকে সাময়িকভাবে হেলথ কেয়ার সেন্টারে অন্য ছাত্রীদের সঙ্গে থাকতে বলি। কিন্তু সে তা করেনি।

সকাল ৮টার দিকে আফসানা হলের ফটকের সামনে এসে হলে অবস্থান ও আমরণ অনশন শুরু করেন। পরে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এ ঘটনাটি ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়লে দুপুর ১২টার দিকে প্রক্টর ওই ছাত্রীকে তার কার্যালয়ে নিয়ে যান।

এদিকে বেলা সাড়ে ১২টার দিকে সিনথির নেতৃত্বে বেশকিছু ছাত্রলীগ কর্মী ও শিক্ষার্থী ওই ছাত্রীর বিরুদ্ধে হল ফটকের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন। ছাত্রীরা বলেন, ওই ছাত্রী হলে ওঠার পর থেকেই সিনিয়র শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বেয়াদবি করছিলেন। এমনকি প্রভোস্টের সঙ্গেও বেয়াদবি করেন। তাই সাধারণ শিক্ষার্থীরা তাকে হল থেকে বের করে দিয়েছে। আমরা ইভাকে এই হলে চাই না। সে (ইভা) এই হলে থাকলে আমরা কেউ এই হলে থাকব না।

পরে বেলা আড়াইটার দিকে ফের হলের সামনে অনশন শুরু করেন আফসানা। তখন সাবেক প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম জাকির হোসেন এবং প্রক্টরিয়াল বডির সদস্য ওই ছাত্রীকে নিয়ে হলের ভেতরে নিয়ে যান। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত তাদের সঙ্গে ওই ছাত্রীর আলোচনা চলছে।