কাউয়া সেলিমের যত বিলবোর্ড আছে সব গুলো সরিয়ে ফেলা উচিত… – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

কাউয়া সেলিমের যত বিলবোর্ড আছে সব গুলো সরিয়ে ফেলা উচিত…

প্রকাশিত: ৩:২৭ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৬, ২০১৮

কাউয়া সেলিমের যত বিলবোর্ড আছে সব গুলো সরিয়ে ফেলা উচিত…

বিশেষ প্রতিবেদন: বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামি ৩০ জানুয়ারী সিলেট সফরে আসছেন। তাঁর সফরকে কেন্দ্র করে ব্যানার-বিলবোর্ডে ছেয়ে গেছে সিলেট নগরীর বিভিন্ন এলাকা। স্থানে স্থানে চলছে তোরণ নির্মাণের প্রতিযোগিতা। পাশাপাশি জনসভায় ব্যাপক লোক সমাগম ঘটাতে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান’র পাশাপাশি কেন্দ্রীয় নেতারাও আসছেন সিলেট সফরে।
নগরী ঘুরে দেখা গেছে, শেখ হাসিনার ছবি সংবলিত পোস্টারে ছেয়ে গেছে পুরো নগরী। নগরীর দেয়ালে দেয়ালে শোভা পাচ্ছে বিভিন্ন রঙের পোস্টার। পাশাপাশি দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা নিজেদের ছবি সংবলিত বিলবোর্ড স্থাপন করেছেন স্থানে স্থানে। পাশাপাশি নির্মাণ করা হচ্ছে সুদৃশ্য তোরণ। এক্ষেত্রে পিছিয়ে নেই সংসদ নির্বাচন ও সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র পদে মনোনয়ন প্রত্যাশীরাও।
সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সাবেক নগর পিতা কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের নির্বাহী কমিটি সদস্য ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বদর উদ্দিন কামরান এবং সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আসাদের নাম শুনা গেলেও এখন তৃতীয় ব্যাক্তি মেয়র প্রার্থী হিসেবে মাহি উদ্দিন সেলিমের নাম উচ্চারিত হচ্ছে।
ইতিমধ্যে ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে মেয়র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পেয়েছেন পোশাক ব্যবসায়ীদের সংগঠন বিজেএমইএর সাবেক সভাপতি আতিকুল ইসলাম। সিলেট ফুটবল এসোসিয়েশনের সভাপতি, জেলা ক্রীড়ার সংস্থার সাধারণ সম্পাদক এবং বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সদস্য মাহি উদ্দিন সেলিম সিটি নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশার কথা জানিয়ে গত ৪ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র কাছে ‘দোয়া’ চাইলে প্রধানমন্ত্রী মাহি উদ্দিন সেলিমকে ‘দোয়া’ দেয়ার বিষয়টি প্রকাশ পায়। সেলিম নিজের ফেইসবুক ওয়ালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে তার হাস্যোজ্জল ছবি আপলোড করেন।
সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে মাহি উদ্দিন সেলিম নিজের পরিচয় দিলে প্রধানমন্ত্রী তাকে চেনেন বলে জানান। এ সময় সাবেক ফুটবলার ইলিয়াস প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করেন- সেলিম সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে অংশ নিতে চায়। এ সুযোগে মাহি উদ্দিন সেলিম প্রধানমন্ত্রীর দোয়া চাইলে শেখ হাসিনা বলেন, ‘কাজ চালিয়ে যাও, আমার দোয়া রইলো’। মাহি উদ্দিন সেলিমের দোয়া পাওয়ার বিষয়টি সংগঠনের মধ্যে ব্যাপক আলোচনার জন্ম দিয়েছে। মাহি উদ্দিন আহমদ সেলিমকে এরপর প্রধানমন্ত্রীর সাথে হাস্যোজ্জল ছবি দিয়ে বিলবোর্ডে নগরবাসীকে শুভেচ্ছা জানান।

এক সময় মাহি উদ্দিন সেলিম প্রয়াত অর্থ ও পরিকল্পনা মন্ত্রী এম সাইফুর রহমানেরে আস্থাভাজন হিসেবে সমগ্র সিলেটে পরিচিত ছিলেন। তিনি বিএনপির ঘরানার মানুষ থাকলেও হঠাৎ করে তিনি আওয়ামী লীগ ঘরানার মানুষ হিসেবে পরিচিতি নিচ্ছেন। এখন তিনি সিলেটের জনপ্রিয় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের অত্যন্ত কাছের মানুষ হিসেবে ইতিমধ্যে সুপ্রকাশ পেয়েছে। এই নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে সিলেট মহানগর ছাত্রলীগের জনপ্রিয় সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আলীম তুষার ‘মাহি উদ্দিন সেলিম’র মাথায় একটি কাক বসিয়ে তাকে কাউয়া হিসেবে আখ্যায়িত করে লিখেছেন যা হুব হুব নিচে তুলে ধরা হলো:

কাউয়া সেলিমের যত বিলবোর্ড সিলেটে আছে সব গুলো সরিয়ে ফেলা উচিত!
আপনাদের সকলের সহযোগিতা চাই…..
কোন কাউয়ার স্থান সিলেটে হবে না!!

সিলেট আওয়ামী লীগের বাহিরে জেলা ও মহানগর স্বেচ্ছাসেবকলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতাদের ছবি সংবলিত বিলবোর্ড, ব্যানার, ফেস্টুন নগরীতে শোভা পাচ্ছে সেখানে মাহি উদ্দিন সেলিমের বিলবোর্ড গুলো দেখা যায়।
এদিকে, শেখ হাসিনার জনসভাকে সফল করতে প্রতিদিন দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত নগরীসহ সিলেটের উপজেলা গুলোতে মাইকিং করা হচ্ছে। মাইকিং করার পাশাপাশি মহানগর সহ বিভিন্ন জেলায় আমন্ত্রণ জানিয়ে লাগানো হচ্ছে সমাবেশের পোস্টার।
এছাড়া সিলেট, সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ ও সিলেট নগরীর এবং জেলার বিভিন্ন ওয়ার্ডে জনসভা সফল করার লক্ষে চলছে বর্ধিত কর্মী সভা ও প্রচারণা।
প্রধানমন্ত্রী আগামী ৩০ জানুয়ারি সিলেটে বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মসূচিতে যোগদান ছাড়াও বিকেলে নগরীর চৌহাট্রাস্থ সরকারী আলীয়া মাদ্রাসা মাঠে জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় ভাষণ দেবেন।