কানাইঘাট-জকিগঞ্জ আসনে মাঠে আ.লীগ, বিএনপি ও জাপার ১১ নেতা – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

কানাইঘাট-জকিগঞ্জ আসনে মাঠে আ.লীগ, বিএনপি ও জাপার ১১ নেতা

প্রকাশিত: ১১:০৮ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৮, ২০১৮

কানাইঘাট-জকিগঞ্জ আসনে মাঠে আ.লীগ, বিএনপি ও জাপার ১১ নেতা
সংসদীয় আসন সিলেট-৫ সিলেটের সীমান্তবর্তী দুটি উপজেলা কানাইঘাট ও জকিগঞ্জ নিয়ে এ আসনটি গঠিত। আগামী একাদশ সংসদ নির্বাচন নিয়ে সারা দেশের ন্যায় এ অঞ্চলেও বইছে নির্বাচনী হাওয়া। গ্রামেগঞ্জে ও চায়ের স্টলে বিভিন্ন দলের সম্ভাব্য প্রার্থীদের নিয়ে চলছে আলোচনা। বিগত দিনে এলাকার উন্নয়ন, সাধারণ মানুষের পাশাপাশি দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ ও প্রার্থীদের যোগ্যতার বিভিন্ন দিক আলোচনায় স্থান পাচ্ছে। এদিকে নানা কৌশলে মাঠে সক্রিয় রয়েছেন মনোনয়নপ্রত্যাশী আওয়ামী লীগের হাফ ডজন, বিএনপির ৩ ও জাতীয় পার্টির ২  নেতা।
মনোনয়নপ্রত্যাশীদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি আলোচনায় রয়েছেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতা ও সাবেক সংসদ সদস্য হাফিজ আহমদ মজুমদার, জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও হুইপ সেলিমউদ্দিন এমপি এবং সিলেট জেলা বিএনপির সহসভাপতি ও কানাইঘাট উপজেলা চেয়ারম্যান  আশিক উদ্দিন চৌধুরী এ ছাড়াও রয়েছেন  সিলেট জেলা বিএনপির জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি  আবদুল কাহির চৌধুরী।
বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়,এ ছাড়াও তৎপর রয়েছেন সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মাসুক আহমদ, যুবলীগের কেন্দ্রীয় প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. আহমদ আল কবির, কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় উপকমিঠির সদস্য লায়ন ফয়সাল আহমদ রাজ ও সিলেট জেলা বিএনপির সহ সভাপতি মামুনুর রশীদ মামুন (চাকসু মামুন) সাবেক ছাত্রনেতা অ্যাডভোকেট মোস্তাক আহমদ ও জাপার নেতা সাব্বির আহমদ ও জাপা নেতা জাকির হুসেন জেলা আওয়ামী লীগ নেতা আবদুল মুমিন চৌধুরী।
২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এ আসনে মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে এমপি নির্বাচিত হন জাতীয় পার্টির সেলিমউদ্দিন। এবারও তার প্রার্থিতার বিষয়টি স্থানীয় নেতাকর্মীরা মনেপ্রাণে চাইছেন। তবে সেলিমউদ্দিনের বাড়ি পার্শ্ববর্তী উপজেলা বিয়ানীবাজারে হওয়ায় এ আসনে তার প্রার্থিতার বিষয়টি আওয়ামী লীগের নেতারা মানতে নারাজ।
গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে এ আসনের অন্তর্ভুক্ত এ দুই উপজেলায় বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী জয়লাভ করেন। এই জয়কে পুঁজি করে আগামী সংসদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পেতে মাঠে দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন জেলা বিএনপির ৩ নেতা।  ও আওয়ামীলীগ বিএনপি নেতারা স্থানীয় পর্যায়ে দলীয় কর্মসূচির পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠানে নিয়মিত অংশগ্রহণ করছেন তারা। একই সঙ্গে কেন্দ্রেও বিভিন্নভাবে লবিয়িং চালিয়ে যাচ্ছেন তারা।এ ব্যাপারে জানতে চাইলে আশিক উদ্দিন চৌধুরী বলেন, আমি  দলের দুশসময়ে  উপজেলা চেয়ারম্যান  নির্বাচিত হয়েছি, আমি আশাবাদী দল আমাকে নিবাচিত করবে, আরেক আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় উপকমিঠির সদস্য  লায়ন ফয়সাল আহমদ রাজ বলেন, আমি কানাইঘাট -জকিগঞ্জের মানুষের মন স্হান করে নিয়েছি, আমি আশাবাদী জননৈএী শেখ হাসিনা আমাকে মনোনয়ন  দিবেন, আরেক প্রার্থীসাবেক ছাত্রনেতা মোসতাক আহমদ বলেন, আমি কানাইঘাট জকিগঞ্জ আসনে আওয়ামীলীগ এর মনোনয়ন পাব বলে আশাবাদি।

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল