কুমারগাঁও বিদ্যুৎ উপকেন্দ্রে আহত সেই শ্রমিক শাকিল কে ঢাকায় প্রেরণ – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

কুমারগাঁও বিদ্যুৎ উপকেন্দ্রে আহত সেই শ্রমিক শাকিল কে ঢাকায় প্রেরণ

প্রকাশিত: ১০:১৬ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৯, ২০২০

কুমারগাঁও বিদ্যুৎ উপকেন্দ্রে আহত সেই শ্রমিক শাকিল কে ঢাকায় প্রেরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক
সিলেটের কুমারগাঁও বিদ্যুৎ উপকেন্দ্রে মেরামত কাজের সময় আহত শাকিল সরকারকে ঢাকায় প্রেরণের প্রস্তুতি চলছে। শনিবার (১৯ ডিসেম্বর) রাত সাড়ে ৯ টায় তথ্য জানিয়েছেন শাকিল সরকারের ভাতিজা আকাশ মিয়া।

তিনি জানান, সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে একটি অস্ত্রোপাচার করা হয়েছে। তবে চিকিৎসকরা আমাদের জানিয়েছেন রোগীর অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে ঢাকায় নিয়ে যেতে। বর্তমানে আমরা তাকে ঢাকায় নেওয়ার প্রস্তুতি নিশ্চি।

এর আগে শনিবার (১৯ ডিসেম্বর) সাড়ে তিনটার দিকে সিলেটের কুমারগাঁও বিদ্যুৎ উপকেন্দ্রে মেরামত কাজের সময় বিদ্যুৎ সংযোগ দিলে শাকিল সরকার বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে নিচে পড়ে যান।

আহত শাকিলের বাড়ি ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা উপজেলার তারাকান্দি চেচুয়া বাজার এলাকায়।

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, তার শরীরের ৮০ শতাংশ পুড়ে গেছে। এছাড়া বিদ্যুতের লাইন থেকে পড়ে যাওয়ায় কয়েকটি রড তার মাথা ও ঘাড়ে ঢুকে গেছে। ফলে তার অবস্থা আশঙ্কাজনক রয়েছে। অস্ত্রোপাচার শেষে তার অবস্থা বলা যাবে।

এদিকে মেরামত কাজে দুর্ঘটনার কারণে রাত সাড়ে সাতটা পর্যন্ত বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন ছিলো পুরো সিলেট নগরী। ফলে বেশ দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে নগরবাসীকে।

এর আগে সিলেট ১৩২/৩৩ কেভি গ্রিড উপকেন্দ্রের ৩৩ কেভি বাসে জরুরি মেরামত ও সংরক্ষণ কাজের জন্য শনিবার সকাল থেকে সিলেট নগরীর সব এলাকাসহ সিলেট সদর ও দক্ষিণ সুরমা উপজেলার কিছু অংশে এবং সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকবে বলে জানিয়েছিল বিউবি

জরুরি এই মেরামত কাজের শেষ পর্যায়ে এই দুর্ঘটনা ঘটায় সন্ধ্যা সাড়ে সাতটা পর্যন্ত দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে।

আহত শাকিল সরকারের ভাতিজা আকাশ মিয়া জানান, সকাল ৭টা থেকে পুরো সাবস্টেশন বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে ৩৩ কেভি বাসের মেরামত কাজ করছিলেন ১৭ জন শ্রমিক। বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে আমাদের লোক লাইনে থাকাবস্থায় সাব স্টেশন থেকে বিদ্যুৎ সংযোগ চালু করে দেওয়া হয়। এসময় ৩৩ কেভি বাসে থাকা শাকিল সরকার বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে স্টেশনের মূল গেইটের উপর পড়ে যান। এসময় গেইটের উপরে থাকা তিন চারটা রড তার মাথা, ঘাড় ও পিঠে ঢুকে যায়। তাৎক্ষণিকভাবে আমরা তাকে হাসাপতালে নিয়ে আসি। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন তার শরীরের ৮০ শতাংশ পুড়ে গেছে। এছাড়া মাথা দিয়ে রড ঢুকে যাওয়ায় অবস্থা আশঙ্কাজনক।

প্রত্যক্ষদর্শী সিলেট সদর উপজেলা যুবলীগের সভাপতি দুলাল আহমদ জানান, আমরা পাশ দিয়ে যাচ্ছিলাম। হঠাৎ বিকট শব্দ শুনে দেখি একজন শ্রমিক তারে ঝুলছেন ও একজন গেইটের উপরে পড়ে আছেন। আমরা উদ্ধার করে তাকে হাসপতালে পাঠিয়েছি। আরেকজন শ্রমিক তারের মধ্যে ঝুলন্ত ছিলেন বলে দাবি করেন তিনি।

বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড সিলেটের প্রধান প্রকৌশলী খন্দকার মোকাম্মেল হোসেন জানান, মেরামত কাজ শেষে একজন শ্রমিক নামতে গিয়ে পড়ে দুর্ঘটনার শিকার হয়েছেন। তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে, শ্রমিককে লাইনে রেখে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া হয়নি, কাজ শেষে সে নামতে গিয়ে পড়ে দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে জানান তিনি।