কুলাউড়ায় ইউএনও অফিসের সহায়ক রুনার বিরুদ্ধে টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

কুলাউড়ায় ইউএনও অফিসের সহায়ক রুনার বিরুদ্ধে টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ

প্রকাশিত: ৬:৫৮ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৭, ২০২০

কুলাউড়ায় ইউএনও অফিসের সহায়ক রুনার বিরুদ্ধে টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ

স্বপন দেব, নিজস্ব প্রতিবেদক :: কুলাউড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার কার্যালয়ের অফিস সহায়ক রুনা বেগমের বিরুদ্ধে মিথ্যে প্রলোভন দিয়ে অসহায়দের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ ওঠেছে। সরকারি ঘর তৈরির তালিকায় নাম সংযুক্ত করে দেয়ার নামে বেশ কয়েকজন হতদরিদ্র মহিলার কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নেয় ওই কর্মচারি। বৃহস্পতিবার(২৬ নভেম্বর) বিকালে ১০-১২ জন মহিলা ইউএনও অফিসে এসে ইউএনও এটিএম ফরহাদ চৌধুরীকে বিষয়টি জানালে তাৎক্ষনিক কয়েকজনের টাকা ফেরৎ দেন অভিযুক্ত রুনা।
উপজেলার সাদিপুর গ্রামের বাসিন্দা হোছনারা বেগম বলেন, তিনি বিভিন্ন কাজে উপজেলা পরিষদে আসা-যাওয়া করেন। এই সুবাদে পরিচয় হয় ইউএনও কার্যালয়ের অফিস সহায়ক রুনা বেগমের সাথে। পরিচয়ের সূত্রে রুনা বেগম তাকে বলেন, এলাকায় হতদরিদ্র মহিলা থাকলে তাদের নাম তিনি সরকারি পাকা ঘরের তালিকায় তুলে দিতে পারবেন। বিনিময়ে তাকে জনপ্রতি ১ হাজার টাকা করে দিতে হবে। এই কথা শুনে হোছনারা বেগম সাদিপুর ও মীরশংকর এলাকার ২০ জন হতদরিদ্র মহিলার ভোটার আইডি কার্ডের ফটোকপি এবং জনপ্রতি ১ হাজার করে ২০ হাজার টাকা রুনা বেগমের হাতে তুলে দেন। সেখান থেকে রুনা বেগম যাতায়াত খরচের জন্য হোছনারাকে কিছু টাকা দিয়েছেন। কিন্তু টাকা নেয়ার ৩ মাস পর থেকে রুনা বেগম তাকে কোন পাত্তা দিচ্ছেননা। অফিসে আসলে এই সপ্তাহে হবে, আগামী সপ্তাহে হবে বলে ফিরিয়ে দেন। অন্যদিকে এলাকার মহিলাদের নানামুখী চাপ সইতে না পেরে নিরুপায় হয়ে ইউএনও মহোদয়ের শরনাপন্ন হয়েছেন।
একই ইউনিয়নের মীরশংকর এলাকার বাসিন্দা রুবেনা বেগম, আছলিমা বেগম, আমেনা বেগম, রুবেনা বেগম, রেনু বেগমসহ উপস্থিত ৮-১০ জন মহিলা জানান, তারা সকলেই পৃথকভাবে ১ হাজার থেকে ৩ হাজার টাকা করে রুনা বেগমের কাছে দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, সরকারি ঘরের তালিকায় তাদের নাম তুলে দিবেন। তারা সকলেই পাকা ঘর পাবেন। পরে রুনা বেগম টালবাহানা শুরু করায় তারা ইউএনও মহোদয়ের কাছে বিষয়টি জানাতে এসেছেন। বিষয়টি নিয়ে তারা লিখিত অভিযোগের প্রস্তুতি নিচ্ছেন।
অপরদিকে এই রুনা বেগমের আরও নানা অপকর্মের গোঞ্জন রয়েছে মানুষের মাঝে। পার্শ্ববর্তী উপজেলা শ্রীমঙ্গলের বাসিন্দা রুনা বেগম ২০১৩ সালে কুলাউড়ায় যোগদানের পরপরই নানা অপকর্মে জড়িয়ে পড়েন। নিজের উর্ধ্বতন কর্মচারিদের অনেক সময় কোন পাত্তাই দেননা। সরকারের উপর মহলে তার নিজস্ব লোক আছে, এমনটি প্রচার করে অফিসে নিজের মনমর্জি আসা-যাওয়া এবং চলাফেরা করেন। তার দম্ভোক্তিমুলক কথার ¯্রােতে অনেকেই তার সাথে তর্কে জড়ানোর সাহস করেননা।
এব্যাপারে ইউএনও কার্যালয়ের অফিস সহায়ক রুনা বেগম ২০ হাজার টাকার বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, আমি তাদের কাছ থেকে ১হাজার ৯শ টাকা নিয়েছিলাম। কিন্তু স্যারের কাছে বিচার দেয়ায় সেই টাকাগুলো আবার ফেরৎ দিয়ে দিয়েছি।

কুলাউড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার এটিএম ফরহাদ চৌধুরী জানান, কয়েকজন মহিলা এসে বিষয়টি বলার পর রুনা বেগমকে (টাকা নিয়ে থাকলে) তাৎক্ষনিক তাদের টাকা ফেরৎ দেয়ার নির্দেশ দিয়েছি। ভুক্তভোগীরা লিখিত অভিযোগ দিলে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।