কোম্পানীগঞ্জে অনির্দিষ্টকালের অবরোধ প্রত্যাহার – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

কোম্পানীগঞ্জে অনির্দিষ্টকালের অবরোধ প্রত্যাহার

প্রকাশিত: ১১:০৬ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৯, ২০১৭

কোম্পানীগঞ্জে অনির্দিষ্টকালের অবরোধ প্রত্যাহার

প্রশাসনের আশস্বাসের প্রেক্ষিতে কোম্পানীগঞ্জের অনির্দিষ্টকালের সড়ক অবরোধ কর্মসূচি প্রত্যাহার করা হয়েছে। আজ বিকেল ৪ টায় স্থানীয় পাড়য়া বাজারে আয়োজিত এক সমাবেশে এ অবরোধ কর্মসূচি প্রত্যাহারের ঘোষনা দেওয়া হয়। এরপর বিকেলে থেকে সিলেট-কোম্পানীগঞ্জ সড়কে যানবাহন চলাচল শুরু হয়। উদ্ভুত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে আন্দোলনকারী ব্যবসায়ী ও শ্রমিক নেতৃবৃন্দের সাথে আইন শৃংখলা কমিটির এক বিশেষ সাধারন সভা অনুষ্টিত হয়।

দীর্ঘ তিন ঘন্টার বৈঠকে ব্যবসায়ী ও শ্রমিকদের দাবী মানার আশ্বাসে অবরোধ কর্মসূচি প্রত্যাহার করা হয়। পরে বিকেল চারটার দিকে স্থানীয় পাড়য়া বাজারে সর্বস্থরের ব্যবসায়ী ও শ্রমিকদের এক প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্টিত হয়। এদিকে বৃহস্পতিবার ভোর থেকে অনির্দিষ্টকালের সড়ক অবরোধে পুরো কোম্পানীগঞ্জ অচল হয়ে পড়ে। সর্বস্থরের ব্যবসায়ী ও শ্রমিকরা বিভিন্ন রাস্তার মোড়ে অবস্থান নেন। ফলে সকল প্রকার যানবাহন বন্ধ হয়ে পড়ে। কোম্পানীগঞ্জের পাথর ব্যবসায়ী ও শ্রমিকদের ডাকা অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট নিয়ে আয়োজিত বিশেষ সভার এক পর্যায়ে সিলেটের জেলা প্রশাসকের সঙ্গে কথা বলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল লেইছ।

তিনি জানান, পরিবেশ অধিদপ্তরের দায়ের করা মামলায় যারা নির্দোষ, তাদেরকে কোনো ভাবে হয়রানি কিংবা অভিযুক্ত করা হবে না। সঠিক তদন্তের মাধ্যমে দুষ্কৃতকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে জেলা প্রশাসক আশস্বাস প্রদান করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল বাছির, কোম্পানীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ শফিকুর রহমান খান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আপ্তাব আলী কালা মিয়া, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কামান্ডার ডাঃ আব্দুন নুর, ইউপি চেয়ারম্যান বাবুল মিয়া, সিদ্দিকুর রহমান রুকন, জামাল উদ্দিন, পাথর ব্যবসায়ী সমবায় সমিতির সভাপতি আব্দুল জলিল, উপজেলা শ্রমিকলীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম প্রমূখ।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার অফিসে বৈঠক শেষে বিকেলে স্থানীয় পাড়য়া বাজারের পূর্বনির্ধারিত সমাবেশ অনুষ্টিত হয়। উত্তর রনিখাই ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মোঃ কালা মিয়ার সভাপতিত্বে ও উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা মোঃ সাইফুল ইসলামের পরিচালনায় প্রতিবাদ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, পশ্চিম ইসলামপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ও উপজেলা চুনাপাথর আমদানীকারক ব্যবসায়ী হাজী মোঃ শামীম আহমদ। প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, ব্যবসায়ী ও শ্রমিকরা প্রতিনিয়ত বিভিন্ন ভাবে নির্যাতিত হয়ে আসছেন।

অন্যায় ভাবে অসহায় ব্যবসায়ী ও শ্রমিকদের নামে মামলা দিয়ে হয়রানী ও হুমকি দেওয়া হচ্ছে। তিনি বলেন, জেলা প্রশাসকের আশস্বাসের প্রেক্ষিতে আমরা অবরোধ প্রত্যাহার করেছি। এর ফলে ফের যানবাহন চলাচল শুরু হয়েছে। তিনি আরো বলেন, পরিবেশ অধিদপ্তর ও কোম্পানীগঞ্জের প্রশাসন নিরপেক্ষ তদন্ত করলে অবশ্যই তাদের সার্বিক সহযোগিতা প্রদান করা হবে। এদিকে বিকেলে স্থানীয় পাড়য়া বাজারে আয়োজিত সমাবেশে উত্তর রণিখাই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি কালা মিয়ার সভাপতিত্বে বক্তারা বলেন- কোম্পানীগঞ্জ হচ্ছে সিলেটের অক্সিজেন। সরকার বছরে শত কোটি টাকার রাজস্ব পেয়ে থাকে।

এখানে অবৈধ যে পাথর উত্তোলন করা হচ্ছে সেই পাথর থেকে রয়েলিটি আদায় করছে প্রশাসনও। সুতরাং অবৈধভাবে পাথর উত্তোলন করতে হলে আগে উপজেলা প্রশাসনকে রয়েলিটি আদায় বন্ধ করতে হবে। তারা ব্যবসায়ী ও আওয়ামীলীগ নেতাদের উপর মামলার জন্য দায়ী করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল লাইছের কার্যক্রমকে। তারা বলেন- আবুল লাইছ দয়ারবাজার, কালাইরাগ, ধলাই নদী এলাকায় বিএনপি ও জামায়াতের লোকদের পাথর লুটপাটে সহযোগিতা করছেন। আর ওই সব পাথর সিন্ডিকেটের ইন্ধনে আমদানী ব্যবসায়ী ও আওয়ামী লীগ নেতাদের উপর মামলা দায়ের করা হয়েছে। বক্তারা সমাবেশে কোম্পানীগঞ্জের ইউএনও আবুল লাইছের প্রত্যাহার দাবি করেন।

প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক হাজী মোঃ আলা উদ্দিন, পুর্ব ইসলামপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মুল্লুক হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান, আওয়ামীলীগ নেতা ও পশ্চিম ইসলামপুর ইউনিয়নের সাবেক প্যানেল চেয়ারম্যান মোঃ গেদা মিয়া, ইসলামপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি আবুল হোসেন মেম্বার, উপজেলা শ্রমিকলীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম, আওয়ামীলীগ নেতা হাজী ইলিয়াছুর রহমান, মোহাম্মদ আলা উদ্দিন, আফজাল হোসেন বতুল্লাহ,

উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য জুয়েল আহমদ, জামাল আহমদ জামান, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ নেতা জালাল উদ্দিন, আব্দুল আজিজ, সফিক মেম্বার, আমির উদ্দিন, বশর মিয়া, ইসলাম উদ্দিন, ডাঃ হায়াত আলী, বুরহান উদ্দিন, জুবেল আহমদ, ইসলাম উদ্দিন, কবির মিয়া, ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা আলীম উদ্দিন, এখলাছ আলী, হাজী আমিনুল ইসলাম, সামছুল ইসলাম, রফিক আহমদ, উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফারুকুজ্জামান রানা, পাঠাগার বিষয়ক সম্পাদক ফখরুল ইসলাম নোমান, পশ্চিম ইসলামপুর শ্রমিকলীগের সভাপতি আশরাফুল ইসলাম চান মিয়া, সহ সভাপতি আনোয়ার হোসেন আনু, শ্রমিক নেতা বাবুল মিয়া, আনসার উদ্দিন জিলানি, তেরা মিয়া, ইসমাইল আলী প্রমূখ। বিজ্ঞপ্তি