ভারত সিরিজের জন্য এরই মাঝে দিল্লি পৌঁছে গেছে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল। বৃহস্পতিবার সেখানকার অরুন শাহ জেটলি স্টেডিয়ামে অনুশীলনে নামে ক্রিকেটাররা। তবে এরই মাঝে আলোচনায় উঠে এসেছে সেখানকার আবহাওয়া। সফরের শুরুতেই সেখানে ম্যাচ দেয়ায় সমালোচনাও করছে অনেকে।

বিশ্বে সবচেয়ে বেশি বায়ুদূষণ হয় দিল্লিতে। ‘ওয়ার্ল্ড এয়ার কোয়ালিটি র‍্যাংকিং’ অনুসারে এক নম্বরে আছে এই শহর। এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্স অনুসারে দিল্লিতে দূষণের মাত্রা ৫১২! দ্বিতীয় স্থানে থাকা মঙ্গোলিয়ার উলানবাতার শহরে এই মাত্র ১৮৩। এই পার্থক্যই দিল্লির পরিবেশগত অবস্থা সম্পর্কে ধারণা দেয়ার জন্য যথেষ্ট।

এছাড়া তালিকার এগারোতম স্থানে থাকা ঢাকার বায়ুদূষণের মাত্রা ১২৮। এ থেকে দেখা যায়, ঢাকার চেয়েও চারগুণ বেশি দূষণযুক্ত শহর দিল্লি। এখানে দূষণের মাত্রা এতোই বেশি যে দিনের বেলাও কুয়াশা দেখা যায়। যা আসলে কুয়াশা নয়, মূলত ধূলিকণা থেকে সৃষ্ট।

এমন দূষণে অনুশীলনে নেমে বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছেন ক্রিকেটার ও কোচরা। সহজে শ্বাস নিতে পারছেন না কেউই। খাপ খাইয়ে নিতে না পারায় দু-একজন অসুস্থও হয়ে পড়ছেন।

সামনে আরো কিছুদিন এই দূষণের মাঝে থাকতে হবে ক্রিকেটারদের। এমন পরিস্থিতিতে ক্রিকেটারদের শরীরে বিরূপ প্রভাব পড়া স্বাভাবিক। যার ফলে সফরের বাকি সময়টায় শারিরীকভাবে খারাপ অনুভূত হতে পারে। এ অবস্থায় খেলার উপরেও খারাপ প্রভাব পড়বে।

দূষণের কথা মাথায় রেখে বিসিবি থেকে ম্যাচ স্থানান্তরের জন্য অনুরোধ করা হয়। কিন্তু সেটি আমলে নেয়নি বিসিসিআই। এ থেকে মনে হতেই পারে ক্রিকেটারদের স্বাস্থ্যগত সমস্যা হতে পারে জেনেও ইচ্ছে করেই এমন কাজ করেছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড।

বিরূপ এ পরিবেশে যত দ্রুত ক্রিকেটাররা মানিয়ে নিতে পারবেন, ততোই মঙ্গল তাদের জন্য। বাংলাদেশ দলের জন্যও।

স্পোর্টস ডেস্ক

Leave a comment

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.