খুন দিয়ে বছর শুরু সিলেট ছাত্রদলের: নিন্দা – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

খুন দিয়ে বছর শুরু সিলেট ছাত্রদলের: নিন্দা

প্রকাশিত: ৯:৩৫ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১, ২০১৮

খুন দিয়ে বছর শুরু সিলেট ছাত্রদলের: নিন্দা

বিশেষ প্রতিনিধি:: নতুন বছরের প্রথম দিনে খুন দিয়ে কর্মসূচি শুরু করলো সিলেট ছাত্রদল। সোমবার দেশব্যাপি ছিল ছাত্রদলের ৩৯ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর আনন্দ শোভাযাত্রা বা কেক কেটে দিনটি পালন করা। সেই লক্ষে শোভাযাত্রা করতে সিলেট নগরীর কোর্ট পয়েন্টে জড়ো হয় সিলেট জেলা ও মহানগর ছাত্রদল নেতা কর্মীরা।

কিন্তু তাদের সেই আনন্দ শোভাযাত্রাটি মুহুর্তেই রুপ নেয় বিষাদের শোর। মাত্র কয়েক মিনিটের মধ্যে নিজ দলের ক্যাডারদের ছুরিকাঘাতে খুন হন নগর ছাত্রদল নেতা শিমু।
যার কারণে বছরের শুরুতেই এমন হত্যাকান্ড সিলেটবাসির জন্য অভিশাপ হিসেবে বিবেছিত করছেন অনেকেই। সিলেটের একাধিক সচেতন নগরবাসির ধারণা, বছরের শুরুতেই যদি সিলেট ছাত্রদল এভাবে খুন করে সিলেট’র রাজপথ রক্তে রঙ্গিত করে। তাহলে সারা বছরই যাবে তাদের গ্রুপিং বিরোধ আর সংর্ঘষে। তাই সচেতন সিলেটবাসির দাবি হানাহানি, খুন পরিহার করে দলীয় কার্যক্রম যেন পরিচালনা করে সকল দলের নেতাকর্মীরা।

সূত্র জানায়, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদি ছাত্রদল এর ৩৯ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে নিজ দলের ক্যাডারদের ছুরিকাঘাতে সিলেটে এক ছাত্রদল নেতা খুন হন। নিহত আবুল হাসনাত শিমু সিলেট মহানগর ছাত্রদলের সাবেক সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক। সোমবার বিকালে সিলেট নগরীর কোর্ট পয়েন্টে ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত হওয়ার পর ওসমানী হাসপাতালে নেয়া হয় শিমুকে। সেখানে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। শিমু নগরের আরামবাগ এলাকার আব্দুল আজিজের ছেলে। তিনি ১৯ নং ওয়ার্ড ছাত্রদলের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন।

জানা যায়, প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলে সিলেট নগরীর কোর্ট পয়েন্ট থেকে সোমবার বিকাল ৪টায় শোভাযাত্রা বের করে ছাত্রদল। এসময় শোভাযাত্রার সামনে দাঁড়ানো নিয়ে নেতাকর্মীদের মধ্যে ধাক্কাধাক্কি শুরু হয়। একপর্যায়ে তারা হাতাহাতিতে লিপ্ত হয়। এসময় ছাত্রদল নেতা শিমুর বুকে ছুরিকাঘাত করা হয়।
পরে অন্যান্য ছাত্রদল নেতাকর্মীরা তাকে দ্রুত ওসমানী হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
ওসমানী হাসপাতালে দায়িত্বে থাকা পুলিশের এসআই নজরুল ইসলাম শিমু খুনের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন
প্রত্যদর্শীরা জানান, ছাত্রদলের ৩৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলে মিছিলে অংশ নেয় শিমু। এ সময় ছাত্রদলের দু’গ্রুপের মধ্যে মারামারি শুরু হলে তার বুকে ছুরিকাঘাত করা হয়। পরে দ্রুত তাকে উদ্ধার করে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
সিলেট কোতোয়ালী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গৌসুল হোসেন বলেন, ছাত্রদলের মিছিলে মারামারি চলাকালে নিজ দলের কর্মীর ছুরিকাঘাতে শিমু নিহত হয়। এ ঘটনায় এখনো কাউকে আটক করা হয়নি।

ছাত্রদল নেতা শিমু হত্যার নিন্দা জানিয়েছেন সিলেট বিভাগ ছাত্রদল

মদন মোহন বিশ্বব্যিালয় কলেজ শিক্ষার্থী ও সিলেট মহানগর ছাত্রদলের সাবেক সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল হাসনাত শিমু হত্যার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে জড়িতদের বিরুদ্ধে দৃষ্ঠান্তমূলক শাস্তির দাবী জানিয়েছেন সিলেট বিভাগ ছাত্রদল নেতৃবৃন্দ।
সোমবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের সহ-সভাপতি (সিলেট বিভাগ) মাহবুবুল হক চৌধুরী, সহ-সাধারণ সম্পাদক আহমদ চৌধুরী ফয়েজ ও সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক (সিলেট বিভাগী) জাকির হোসেন উজ্জ্বল বলেন, সুন্থ তদন্তের মাধ্যমে জড়িতদের বিরুদ্ধে দৃষ্ঠান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা গ্রহন করা হউক। তদন্তের স্বার্থে ঘটনা স্থলে সিসিকের সিসি ক্যামেরা রয়েছে সেই ক্যামের ফুটেজ দেখে প্রকৃত অপরাধীদের গ্রেফতার করে আইনী এবং যদি দলের কেউ হয়ে থাকে তার বিরুদ্ধে দলীয় গঠনতন্ত্র অনুসারে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। নেতৃবৃন্দ ছাত্রদল নেতা আবুল হাসনাত শিমু রুহের মাগফেরাত কামনা করেন এবং শোকাহত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন।