খোলাফায়ে রাশেদীন সুশাসনের দৃষ্টান্ত – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

খোলাফায়ে রাশেদীন সুশাসনের দৃষ্টান্ত

প্রকাশিত: ১২:১৬ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ৩০, ২০২০

খোলাফায়ে রাশেদীন সুশাসনের দৃষ্টান্ত

এম এ মান্নান

 

ইসলামের চার খলিফার শাসনামল বা খোলাফায়ে রাশেদীন ছিল সুশাসন ও ন্যায়- পরায়ণতার দৃষ্টান্ত। রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মদিনায় যে কল্যাণ রাষ্ট্রের সূচনা করেন সে রাষ্ট্রের পতাকাকে শক্ত হাতে বহন করেছেন হজরত আবু বকর (রা.), ওমর (রা.), ওসমান (রা.) এবং আলী (রা.)। সুশাসনের ক্ষেত্রে ইসলামী খেলাফতকে যে কারণে আজকের যুগেও উদাহরণ হিসেবে অভিহিত করা হয়। চতুর্থ খলিফা হজরত আলী (রা.) মিসরের গভর্নর মালিক ইবনে আসতারের কাছে লেখা চিঠিতে সুশাসন এবং গরিব লোকদের প্রতি যত্নবান হওয়ার তাগিদ দেন। তিনি লেখেন- ‘যাদের ইখতিয়ারে জীবনধারণের ন্যূনতম উপকরণ নেই, দরিদ্র, অসহায়, কপর্দকহীন ও অক্ষম প্রভৃতি সমাজের নিম্ন শ্রেণির লোকের ক্ষেত্রে আল্লাহর কথা মনে রাখবে। কারণ এ শ্রেণির মধ্যেই রয়েছে তারা যারা অপরিতৃপ্ত ও যারা অন্যের কাছে হাত পাতে। আল্লাহতায়ালা তাদের ব্যাপারে যে দায়িত্ব দিয়েছেন সে ব্যাপারে যত্নবান হও। কারণ এ জন্য তোমাকে জবাবদিহি করতে হবে। সরকারি তহবিল থেকে এবং জমির ফসল থেকে তাদের জন্য একটি অংশ নির্ধারণ করে দাও। … এরা হচ্ছে সেই লোক যাদের দায়িত্ব তোমার ওপর অর্পিত হয়েছে। সুতরাং বিলাসী জীবন যেন তোমাকে তাদের থেকে দূরে সরিয়ে নিয়ে না যায়। বড় বড় সমস্যা সম্পর্কে তোমাকে সিদ্ধান্ত নিতে হয়- এ যুক্তিতে তুমি ছোট ছোট বিষয়াদির দায়িত্ব থেকে রেহাই পাবে না। সুতরাং তাদের ব্যাপারে অমনোযোগী হয়ো না এবং আত্মশ্লাঘার কারণে তাদের দিক থেকে তোমার মুখ ফিরিয়ে নিও না। মানুষ যাদের নীচু মনে করে তাদের মধ্য থেকে যারা তাদের অস্তিত্ব চোখে না পড়ার কারণে তোমার কাছে আবেদন জানাতে আসতে পারে না তাদের প্রতি মনোযোগ দাও। তাদের খোঁজখবর নেওয়ার জন্য এমন কতক বিশ্বস্ত ও নির্ভরযোগ্য লোককে দায়িত্ব দাও যারা আল্লাহকে ভয় করে ও বিনয়ী। তারা এ ধরনের লোকদের অবস্থা সম্পর্কে তোমাকে অবগত করবে। অতঃপর, যেদিন তোমাকে আল্লাহর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে হবে সেদিনের জবাবদিহিতার কথা স্মরণ রেখে তুমি তাদের সঙ্গে আচরণ করবে। কারণ তোমার শাসনাধীন লোকদের মধ্যে এ লোকরাই সমতাভিত্তিক আচরণের সবচেয়ে বড় হকদার। তবে সেই সঙ্গে তোমাকে অন্যদের অধিকারও আদায় করতে হবে। কারণ এ জন্যও তোমাকে আল্লাহর কাছে জবাবদিহি করতে হবে। সেই এতিম ও বৃদ্ধদের ব্যাপারে যত্নবান হও যাদের জীবনধারণের জন্য প্রয়োজনীয় উপকরণ নেই, অথচ তারা মানুষের কাছে হাত পেতে বেড়ায় না।

ইসলামের ইতিহাসে নিষ্ঠাবান প্রশাসক, সাহসী সেনাপতি এবং উদারমনা ব্যক্তিত্ব হিসেবে মালিক ইবনে আসতারের নাম চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে। তিনি পরবর্তীতে প্রধানমন্ত্রী এবং ইসলামী খেলাফতের প্রধান সেনাপতি হন। সুপ্রশাসক হিসেবেও তার সুনাম ছিল। মালিক ইবনে আসতার ছদ্মবেশে প্রায়ই ঘোরাফেরা করতেন কুফার রাস্তায়, নাগরিকরা কে কী অবস্থায় আছে তা স্বচক্ষে দেখার উদ্দেশ্য নিয়ে। একদিন সন্ধ্যার পর তিনি খালি পায়ে হেঁটে যাচ্ছিলেন কুফার রাস্তা দিয়ে। শত ছিন্ন পোশাক তার। তাকে দেখে পাগল বলে ভাবেন এক পথিক। শুধু ভাবা নয়, মজা করতে তিনি ঢিল ছোড়েন। ঢিলের আঘাতে ইবনে আসতার কিছুটা বিব্রতবোধ করে তাকান সেই নাগরিকের দিকে। তারপর সোজা হাঁটা শুরু করেন।’
ছদ্মবেশ সত্ত্বেও অন্য এক পথিক ঠিকই চিনে ফেলেন মালিক ইবনে আসতারকে। তিনি ঢিল নিক্ষেপকারী পথিককে বললেন, তুমি যাকে ঢিল মারলে তাকে কি চেন? খেলাফতের প্রধানমন্ত্রী ও প্রধান সেনাপতিকে ঢিল ছোড়ার সাহস পেলে তুমি কীভাবে? পথিক এ কথা শুনতেই ভয়ে তার অন্তরাত্মা কেঁপে উঠল। বুঝলেন, আমিরুল মুমেনিন হজরত আলী (রা.)-এর প্রধানমন্ত্রী ও প্রধান সেনাপতির দিকে অন্যায়ভাবে ঢিল ছুড়ে মহা অপরাধ করেছেন। অপরাধবোধে আক্রান্ত হয়ে পড়লেন পথিক। ক্ষমা চাওয়ার জন্য তিনি ছুটে গেলেন মালিক ইবনে আসতারের দিকে। কিন্তু তার আগেই তিনি ঢুকে পড়লেন এক মসজিদে। পথিক কিংকর্তব্যবিমূঢ় অবস্থায় ঠায় দাঁড়িয়ে থাকলেন মসজিদের সামনে। উদ্দেশ্য, প্রধানমন্ত্রী মসজিদ থেকে বের হলেই তার পা ধরে ক্ষমা চাইবেন। কিছুক্ষণ পর বের হলেন মালিক ইবনে আসতার। পথিক তার পায়ের কাছে বসে ক্ষমা প্রার্থনার সুরে আবেদন জানিয়ে বললেন- মহান, আমি আপনাকে চিনতে পারিনি। মনের খেয়ালে দুষ্টুমি করে ঢিল ছুড়ে মহা অপরাধ করেছি। আপনি ক্ষমা না করলে এ অপরাধ আমাকে তাড়িয়ে বেড়াবে। মালিক ইবনে আসতার পথিকের কথায় ক্ষুব্ধ না হয়ে শান্তভাবে বললেন- আল্লাহর কসম তুমি আমাকে ঢিল মারার পর মুহূর্তেই আমি তোমাকে ক্ষমা করে দিয়েছি। তবে, ‘মানুষ যখন অপরাধ করে তখন দুটি হক নষ্ট হয়। এর একটি- বান্দার হক, অন্যটি আল্লাহর। আমি বান্দার হকের মালিক। সে হিসেবে তোমাকে ক্ষমা করে দিয়েছি। তুমি আমার ওপর জুলুম করে আল্লাহর হকও নষ্ট করেছ। এ অপরাধ থেকে আল্লাহ যাতে তোমাকে ক্ষমা করেন সে জন্য মসজিদে ঢুকে সালাত আদায় করে মহান আল্লাহর কাছে তোমার জন্য ক্ষমা চেয়েছি।’ চার খলিফার আমলে নাগরিকদের সঙ্গে কতটা মানবিক ও ক্ষমাশীল আচরণ করা হতো এ ঘটনা তারই প্রমাণ।

লেখক : ইসলামবিষয়ক গবেষক।
সুত্র : বাংলাদেশ প্রতিদিন

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল