চুনারুঘাটে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দুই শিবির ক্যাডার গ্রেফতার

প্রকাশিত: ১:৩৩ পূর্বাহ্ণ, জুন ১০, ২০২০

চুনারুঘাটে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দুই শিবির ক্যাডার গ্রেফতার
চুনারুঘাট প্রতিনিধি 
সরকার ও দেশের বিরুদ্ধে অপপ্রচারের অভিযোগে আব্দুর রাজ্জাক রাজু ও আব্দুল জাহির নামের দুই শিবির ক্যাডারকে আটক করেছে পুলিশ।
ওসি শেখ নাজমুল হক, তদন্ত ওসি চম্পক দাম, এসআই শহিদুল ও এসআই আজহার মঙ্গলবার দিনভর অভিযান চালিয়ে রাজুকে চুনারুঘাট সদর এবং জাহিরকে আহম্মাদাবাদ ইউপি’র গংগানগর গ্রাম থেকে গ্রেফতার করা হয়।
রাজু এবং জাহিরের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের করেছেন, চুনারুঘাট হিন্দু কমিউনিটি নেতা প্রণয় পাল।
তদন্ত ওসি চম্পক দাম জানান, আব্দুর রাজ্জাক রাজু ও আব্দুল জাহিরের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হবার পর তদন্ত সাপেক্ষে তাদেরকে আটক করা হয়।
রাজু উপজেলার আহম্মদাবাদ ইউনিয়নের বনগাঁও গ্রামের মানিক মিয়ার ছেলে ও জাহির হারাজোড়া গ্রামের সায়েদ আলীর ছেলে।
এলাকাবাসিরা জানান, রাজু এবং জাহির শিবিরের ক্যাডার। এরা সম্প্রতি হিন্দু সম্প্রদায় এবং উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িক উস্কানিমূলক লেখা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে পোষ্ট করে।
এরা দীর্ঘদিন নিজেকে নানা বাহিনীর পরিচয়ে পুরো উপজেলায় সরকার বিরোধী কর্মকান্ড পরিচালনা করে আসছিলো। উপজেলার সীমান্ত এলাকায় মাদকের ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে বখরা আদায় সহ নানান অপকর্মে লিপ্ত এই দুই দুষ্কৃতকারী। তাদের বিরুদ্ধে বিজিবিসহ বিভিন্ন বাহিনীর নানা অভিযোগ সরকারের উপর মহলে প্রেরণ করার পর একটি গোয়েন্দা সংস্থা করোনার আগেই মাঠে নামে এবং তাদের বিরুদ্ধে তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে প্রেরণ করার পর চুনারুঘাট পুলিশ তাদেরকে গ্রেপ্তার করেন।
এছাড়াও তারা মানুষের মানহানি ও হয়রানি করতে ফেইসবুকে অপ্রীতিকর স্ট্যাটাস দিয়ে আসছে। এদিকে ফেইসবুকের অপব্যবহার করে নানান গুজব ছড়াচ্ছে, তাদের কুকীর্তি হাসিল করার জন্য। সমাজের ভালো মানুষদেরও মাদক ব্যবসায়ি সাজিয়ে হুমকির মাধ্যমে চাঁদাবাজি করাই তাদের আসল উদ্দেশ্য।
অনুসন্ধানে জানা যায়, তারা সকাল হলেই প্রতিদিন থানার গেইট, হাসপাতাল ও উপজেলা গেইটে ওতপেতে থাকে। সাধারণ মানুষকে বিভিন্ন প্ররোচণায় ফেলে তাদের কাছ থেকে হাতিয়ে নেয় অর্থকড়ি। এড়াও আব্দুর রাজ্জাক রাজু হবিগঞ্জের চাঞ্চল্যকর পাবেল হত্যা মামলার আসামী। দীর্ঘদিন (প্রায় ৪বছর) পালিয়ে বেড়ানোর পর এলাকায় সে তার কোলস পাল্টে চাঁদাবাজি ও বিভিন্ন অপকর্মে নামে সতীর্থ জাহিরকে নিয়ে। তাদের অপকর্ম ও যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ উপজেলাবাসী। তাদের যথাযোগ্য বিচার দাবী করছেন সকলে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল