ছাতকের পল্লীতে সহপাঠির ছুরিঘাতে কলেজ ছাত্র খুন: দুই বন্ধু আহত – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

ছাতকের পল্লীতে সহপাঠির ছুরিঘাতে কলেজ ছাত্র খুন: দুই বন্ধু আহত

প্রকাশিত: ১:০০ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৭, ২০১৬

ছাতকের পল্লীতে সহপাঠির ছুরিঘাতে কলেজ ছাত্র খুন: দুই বন্ধু আহত

satokkk১৭ অক্টোবর ২০১৬, সোমবার: ছাতকের পল্লীতে সহপাঠির ছুরিঘাতে আল আমিন নামের একজন কলেজ ছাত্র খুন হয়েছেন। সোমবার দুপুর ১টায় ছাতকের জাউয়া ইউনিয়নের বড়কাপন পয়েন্টে এই খুনের ঘটনাটি ঘটে। এসময় সহপাঠিকে বাঁচাতে কলেজ ছাত্র আল-আমিনের দুই বন্ধু দিলাল ও জুনেল এগিয়ে আসলে তাদেরও এলোপাতারি ছুরিকাঘাত করা হয়। তাদেরকে গুরুতর আহত অবস্থায় সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পুলিশ ঘটনার পরপরই অভিযান চালিয়ে ঘাতক জাউয়া ডিগ্রি কলেজের ছাত্র আক্কাস আলীকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।
জানা যায়, সুনামগঞ্জ জেলার দোয়ারা বাজার এলাকার পলিরচর গ্রামের কাচা মিয়ার পুত্র আল-আমিন ছাতকের জাউয়া ডিগ্রি কলেজে অধ্যয়নরত ছিলেন। সেই সুবাদে পার্শ্ববর্তী দেবের গাঁওয়ে একটি লজিংয়ে থাকতেন আল-আমিন। ঘটনার দিন একই কলেজের ছাত্র তার সহপাঠি আক্কাস আলী তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আল আমিনকে উপুর্যপরি ছুরিকাঘাত করলে তিনি ঘটনাস্থলেই মারা যান। তাকে ছাতক থানা পুলিশের এসআই কামরুজ্জামান এর নেতুত্বে একদল পুলিশ উদ্ধার করে স্থানীয় কৈতক হাসপাতালে নিয়ে যান। এরিপোর্ট লেখার সময় বিকেল ৪টায় তাকে সুনামগঞ্জ জেলা হাসপাতালে ময়না তদন্তের জন্য প্রেরণের প্রস্তুতি চলছিলো। আটক আক্কাস আলী জাউয়া ডিগ্রি কলেজের ছাত্র ও ছাতকের চরমহল্লাহ ইউনিয়নের ছনুয়া গ্রামের রসিক আলীর ছেলে। ঘটনার পরপরই আল আমিনকে দেখতে ছুটে যান ছাতক উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অলিউর রহমান চৌধুরী বকুল, ভাইস চেয়ারম্যান আবু শাহাদাৎ মোহাম্মদ লাহিন, দোয়ারা বাজার উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ছালেহা বেগম, জাউয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুরাদ হোসেন। খবর পেয়ে আল আমিনের স্বজনরা ঘটনাস্থলে পৌচেছেন। এঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল