আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ছাত্রদল-ছাত্রলীগের মধ্যে সংর্ঘষে ২ ছাত্রলীগ কর্মী অাহত – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ছাত্রদল-ছাত্রলীগের মধ্যে সংর্ঘষে ২ ছাত্রলীগ কর্মী অাহত

প্রকাশিত: ৪:৫৯ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৯, ২০১৬

আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ছাত্রদল-ছাত্রলীগের মধ্যে সংর্ঘষে ২ ছাত্রলীগ কর্মী অাহত

bcdddd১৯ অক্টোবর ২০১৬, বুধবার: সিলেট নগরীর স্টেডিয়াম মার্কেট এলাকায় ছাত্রলীগের পীযুষ গ্রুপের নেতাকর্মী ও ছাত্রদলের প্রান্তিক গ্রুপের মধ্যে সংর্ঘষের ঘটনা গঠেছে।
আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বুধবার (১৯ অক্টোবর) ছাত্রদল ও ছাত্রলীগের মধ্যে এ সংর্ঘষ ঘটে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায় সিলেট মহানগর ছাত্রদলের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক কাওসার মাহমুদ সুমনকে একা পেয়ে তুলে নিয়ে যায় মহানগর ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সজল দাস অনিকের নেতৃত্বে ছাত্রলীগের নেতা কর্মীরা। পরে ছাত্রদল মহানগর শাখার সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক তানভীর আহমদ চৌধুরীর নেতৃত্বে পীযুষের আস্তানায় ধাওয়া চালিয়ে কাওসার মাহমুদ সুমনকে উদ্ধার করা হয়। এসময় ছাত্রলীগের ২ কর্মী আহত হন। এসময় ছাত্রলীগ ল্যাব ডি নোভা সহ আশেপাশের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর করে। তবে হামলার ঘটনা বিভিন্ন জন বিভিন্ন ভাবে উপস্থাপন করছেন।
বিষয়টি নিয়ে মহানগর ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সজল দাস অনিকের সাথে আলাপ কালে তিনি জানান, আওয়ামীলীগের ২০ তম সম্মেলন উপলক্ষ্যে নগরীর চৌহাট্রা ও স্টেডিয়াম মার্কেট এলাকার কোথায় কোথায় বিল বোর্ড লাগানো হবে তা নিয়ে আমি জাহেদ ও ময়নুলকে নিয়ে চৌহাট্রা হয়ে স্টেডিয়াম মার্কেট এলাকায় আমরা ৩ জন গেলে কাওসার মাহমুদের পরিচিত একজনের সাথে আলাপ কালে পিছন থেকে ছাত্রদল জাহেদের উপর হামলা চালায়। পরে আবার দরগার গেইটে ময়নুলকে পেয়ে ধরে নিয়ে গিয়ে মারপিট করে।

789ঘটনার বিষয়ে মহানগর ছাত্রদলের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক কাওসার মাহমুদ সুমন জানান, বিগত কয়েক দিন পূর্বে আমার নিজ প্রতিষ্ঠান দিনোবা ফার্মেসীতে এসে পিযুষ ক্রান্তি দে ফ্রি শেয়ার হওয়ার জন্য বলেন, আমি রাজি না হলে প্রত্যেক দিন ২০০০ টাকা চাঁদা প্রদানের জন্য বলেন, এতেও আমি রাজি না হলে আজ বুধবার সন্ধ্যা ৫.৩০ মিনিটের সময় মহানগর ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সজল দাস অনিক, ছাত্রলীগ নেতা জামিল, ময়নুল, জাহিদুল অজ্ঞাত ৫০ জন ফার্মেসীতে হামলা চালিয়ে আমাকে তুলে নিয়ে যায়। মির্জাজাঙ্গাল আশ্রমের পিছনে নিয়ে মারপিট শুরু করে সাদা কাগজে সাক্ষার নেওয়া হয়। পরে আমাকে বলেন পীযুষ দাকে চাঁদা না দিলে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার জন্য। পরে আমার বড় ভাই রাত ৯.৩০ মিনিটের দিকে ফার্মেসী খুলে তারা আবারও অনিকের নেতৃত্বে হামলা চালায় বলে তিনি অভিযোগ করেন। এই বিষয়ে মামলার প্রস্তুতি চলছে। এই নিয়ে স্টেডিয়াম মার্কেট এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। নিরাপত্তার স্বার্থে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়ন করা হয়েছে।

বিস্তারিত আসছে……………..

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল