‘জঙ্গি সন্দেহে’ শাবিপ্রবি শিক্ষার্থীকে আটক – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

‘জঙ্গি সন্দেহে’ শাবিপ্রবি শিক্ষার্থীকে আটক

প্রকাশিত: ১১:৫৬ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ১৯, ২০১৬

‘জঙ্গি সন্দেহে’  শাবিপ্রবি শিক্ষার্থীকে আটক

sustশাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস থেকে ইন্ড্রাস্ট্রিয়াল এন্ড প্রোডাকশন ইঞ্জিনিয়ারিং (আইপিই) বিভাগের  চতুর্থ বর্ষ দ্বিতীয় সেমিস্টারের এক শিক্ষার্থীকে আটক করেছে পুলিশ। সোমবার তাকে জঙ্গি সন্দেহে পুলিশের বিশেষ ইউনিট আটক করে নিয়ে যায় বলে জানা গেছে।

আটককৃত শিক্ষার্থীর নাম আব্দুল আজিজ। তাঁর গ্রামের বাড়ি সিলেটের কোম্পানিগঞ্জ উপজেলায়। আটককৃত আব্দুল আজীজের ভাই আব্দুল কাদির বলেন, “আমার ভাইকে পুলিশ ধরে নিয়ে গেছে ক্যাম্পাস থেকে। কেন নিয়ে গেছে কারণ জানানো হয়নি। আমরা জালালাবাদ ও কতোয়ালী থানায় গিয়েও ভাইকে পাইনি। তারা কোন তথ্য দিচ্ছে না”

আব্দুল কাদির বলেন তাঁর ভাই খুবই নিরীহ প্রকৃতির। সে কোন অন্যায় কাজের সাথে জড়িত নন বলে জানান তিনি।
বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র বিষয়ক পরিচালক প্রফেসর ড. রাশেদ তালুকদার মুঠোফোনে জানান, ”সোমবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের ক্যাফেটেরিয়ার সামনে থেকে সাদা পোশাকি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা সন্দেহভাজন হিসাবে তাকে আটক করে নিয়ে যায়। এসময় উপস্থিত থাকা জালালাবাদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কেন তাকে আটক করা হচ্ছে তা পরে জানানো হবে বলে নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষার্থীকে  কেন ধরে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে তা জানার অধিকার আছে কর্তৃপক্ষের। তবে, স্থানীয় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ঘটনাস্থলে থাকা কিছুটা আস্থা পেয়েছি।এবং তিনি পোশাকধারী ছিলেন। বাকি ৪ /৫ জনের আভিযানিক দলের সবাই ছিলেন সাদা পোশাকের ।
রাশেদ তালুকদার আরো জানান, গতকাল সরকারের পক্ষ থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সক শিক্ষার্থীদের বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ ও বিশেষ করে অনুপস্থিতির তথ্য প্রদানের পত্র এসেছে। কর্তৃপক্ষ এনিয়েও একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন। আমি সেই কমিটিরি সভাপতি। আমরা ইতিমধ্যে সকল বিভাগের কাছে তথ্য চেয়ে পত্র পাঠিয়েছি।

তবে কি কারণে তাকে আটক করা হয়েছে, এ ব্যপারে মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত নিশ্চিত হতে পারেনি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। বিস্তারিত জানাতে রাজি হয়নি পুলিশও। তবে একটি সূত্র জানিয়েছে সাম্প্রতিক স্পর্শকাতর একটি ইস্যুতে সন্দেহভাজন হিসেবে তাকে আটক করেছে কাউন্টার টেররিজম ইউনিট।
সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের উপকমিশনার (মিডিয়া) রহমতুল্লাহকে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন  “এখন মিটিংয়ে আছি পরে কথা বলবো।”
জালালাবাদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আক্তার হোসেন বলেন , “তাকে আটক করেছে বিশেষ ইউনিট”। এর বেশি কিছু তিনি জানেন না বলা জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।