‘জঞ্জাল’ অপসারণে বিচ্ছিন্ন স্যাটেলাইট ও ইন্টারনেট সংযোগ, দুর্ভোগ – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

‘জঞ্জাল’ অপসারণে বিচ্ছিন্ন স্যাটেলাইট ও ইন্টারনেট সংযোগ, দুর্ভোগ

প্রকাশিত: ৮:৩৯ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১১, ২০১৭

‘জঞ্জাল’ অপসারণে বিচ্ছিন্ন স্যাটেলাইট ও ইন্টারনেট সংযোগ, দুর্ভোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক:: সিলেট নগরীর সড়কগুলোতে ঝুলে থাকা স্যাটেলাইট (ডিশের ক্যাবল) আর ইন্টারনেট ক্যাবলের জঞ্জাল অপসারণে অভিযান চালিয়েছে সিলেট সিটি কর্পোরেশন (সিসিক)। সোমবার (১০ এপ্রিল) মধ্যরাতে নগরীর জিন্দাবাজার ও এর আশপাশের এলাকায় এ অভিযান পরিচালনা করা হয়। এসময় বৈদ্যুতিক খুঁটি থেকে অপসারণ করা হয় অবৈধভাবে ঝুলে থাকা স্যাটেলাইট ও ইন্টারনেট সংযোগের তারগুলো।

অবৈধভাবে ক্যাবল ব্যবহারের বিরুদ্ধে পরিচালিত এই অভিযানের ফলে বিপাকে পড়েছেন নগরবাসী। ক্যাবল অপসারণের ফলে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে নগরীর কিছু এলাকার ইন্টারনেট সংযোগ। বন্ধ রয়েছে পুরো নগরীর ডিশ সংযোগ। অবৈধ ক্যাবল স্থাপনের জন্য দায়ী না হয়েও এর দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে গ্রাহকদের। ইন্টারনেট না থাকায় কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানেরও।

সিলেটে ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে অন্যতম আম্বার আইটির ইনচার্জ সঞ্জীব চৌধুরী সিলেটসংবাদ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “ইন্টারনেট ক্যাবল অপসারণ করা হবে এমন কোনো নোটিশ আমাদের দেয়া হয়নি। আমাদের একবার বলা হয়েছিলো, ক্যাবলগুলো যেন আমরা গুছিয়ে সুন্দরভাবে রাখি। তবে বৈদ্যুতিক খুঁটি থেকে তা সরাতে হবে, এমন কিছু আমাদের বলা হয়নি।”

গ্রাহক দুর্ভোগ আরও কিছুদিন থাকবে জানিয়ে তিনি বলেন, “বাসা-বাড়ি ও প্রতিষ্ঠানে ইন্টারনেট সংযোগ আগামী ৩/৪ দিন বন্ধ থাকবে।”

ইন্টারনেটের পাশাপাশি সোমবার মধ্যরাত থেকে নগরীতে বন্ধ রয়েছে ডিশ সংযোগও। ফলে ক্যাবল টিভি চ্যানেল দেখা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন গ্রাহকরা।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ডিশ সংযোগদাতা প্রতিষ্ঠান সিলেট ক্যাবল সিস্টেমস (এসসিএস) প্রাইভেট লিমিটেড এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক জুনেল আহমদ সিলেটসংবাদ কে বলেন, “হঠাৎ করেই গতরাতে আমাদের ক্যাবল লাইন অপসারণ করা হয়েছে। এর জন্য আমাদের কোনো নোটিশ দেয়া হয়নি। তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থলে গিয়ে আমরা এর কারণ জানতে চাইলে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনাকারী সিসিকের কর্মকর্তারা জানান, ইন্টারনেট সেবাদাতাদের ক্যাবলের কারণে জঞ্জাল সৃষ্টি হয়েছে, তাই তারা ক্যাবল অপসারণ করছেন।”

তিনি আরও জানান, “আমরা আশা করছি আজকের মধ্যেই বিষয়টির সুরাহা করতে পারবো। তবে ক্যাবলগুলো উচ্ছেদ করার কারণে সেগুলো প্রতিস্থাপন করতে বেশ কিছু সময় লাগবে। সংযোগ চালু হতে কয়দিন লাগতে পারে, তা এখনই বলা যাচ্ছে না।”

সিলেটে স্যাটেলাইট ক্যাবল সংযোগদাতা প্রতিষ্ঠান আলাপ কমিউনিকেশন লিমিটেডের সিলেট বিভাগীয় ইনচার্জ অর্ণব বলেন, “কোনোরকম নোটিশ ছাড়াই গতকাল মধ্যরাতে ডিশের ক্যাবলগুলো অপসারণ করা হয়েছে। এতে গ্রাহকরা যেমন বিপাকে পড়েছেন, তেমনি আমরাও আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি। আমরাও চাই সিলেটের সৌন্দর্যবর্ধন হোক। সেক্ষেত্রে আমাদের সাথে আলোচনা করা যেত। কোনো ভিন্ন উপায় থাকলে আমরা অবশ্যই তা মেনে চলতাম। কিন্তু কিছু না জানিয়েই হঠাৎ করে আমাদের ক্যাবলগুলো অপসারণ করা হয়েছে।”

তিনি জানান। “আমরা এখন সিসিক কার্যালয়ে আছি। চেষ্টা করবো সিসিকের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তার সাথে ফলপ্রসু বৈঠক করার জন্য। যদি বৈঠকে কোনো সমাধান হয়, তবুও সংযোগ চালু করতে কয়েকদিন সময় লাগতে পারে।”

সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এনামুল হাবিব এ ব্যাপারে সিলেটসংবাদকে জানান, “নোটিশ না পাওয়ার ব্যাপারটি ঠিক নয়। ২০১৪ সালে সিসিকের মেয়র তাদের নোটিশ পাঠিয়েছেন। কিন্তু তারা (সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান) এ ব্যাপারে কোনো উদ্যোগ নেননি। এরপর চলতি বছর জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারিতে তাদেরকে আবারও এ বিষয়টি অবগত করা হয়েছিলো।”

গ্রাহক দুর্ভোগের কথা জানতে চাইলে এনামুল হাবিব বলেন, “অল্প কিছু জায়গায় ইন্টারনেট সংযোগ বিচ্ছিন্ন আছে। সেগুলো ঠিক হয়ে যাবে। আমি একটু বাইরে আছি। অফিসে ফিরে এসসিএস এর প্রতিনিধি দলের সাথে বৈঠক করবো।”

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল