জবি উপাচার্যের অপ্রীতিকর মন্তব্যের প্রতি শাবি সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের প্রতিবাদ – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

জবি উপাচার্যের অপ্রীতিকর মন্তব্যের প্রতি শাবি সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের প্রতিবাদ

প্রকাশিত: ৬:৩৩ অপরাহ্ণ, জুন ১২, ২০২০

জবি উপাচার্যের অপ্রীতিকর মন্তব্যের প্রতি শাবি সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের প্রতিবাদ

শাবি প্রতিনিধি

গত বুধবার(১০ জুন) মেস ভাড়া মওকুফ প্রসঙ্গ নিয়ে অপ্রীতিকর মন্তব্যে করেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য। এর প্রতিবাদে তীব্র নিন্দা জানায় শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়(শাবিপ্রবি) শাখা সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট।

শুক্রবার (১২ জুন) সকালে সংগঠনটির সহ-সভাপতি তৌহিদুজ্জামান জুয়েল এবং সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ মিয়া এক বিবৃতিতে এ নিন্দা জানায়। এর পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে সংহতি প্রকাশ করেন।

বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়, বর্তমান সময় কোভিড-১৯ এর কারণে সারা বিশ্বে এক বিশেষ পরিস্থিতি দাঁড়িয়েছে । গত ১৭ মার্চ  থেকে বাংলাদেশের সমস্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এই ভাইরাসের ফলে অর্থনীতির পাশাপাশি প্রভাব পড়েছে শিক্ষা ক্ষেত্রেও। বাংলাদেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় গুলোতে পর্যাপ্ত আবাসন ব্যবস্থা না থাকায় বেশিরভাগ শিক্ষার্থী বাধ্য হয়েই মেসে থাকেন। অনেক শিক্ষার্থী আছেন যারা টিউশনি করিয়ে তাদের নিজেদের খরচ যোগায়।

তিনমাস যাবৎ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীরা তাদের গ্রামের বাড়িতে চলে গেলেও মেস মালিকেরা তাদের ভাড়াটিয়াদের ভাড়া দেওয়ার জন্য বার বার চাপ প্রয়োগ করছে। মেস ভাড়া মওকুফের জন্য শিক্ষার্থীরা ঘরে বসে দাবি জানাচ্ছে। অনলাইন আন্দোলন করছে। তারই প্রেক্ষিতে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন জেলা প্রশাসনের প্রচেষ্টায় শিক্ষার্থীদের মেস ভাড়া মওকুফ করতে সক্ষম হয় ।

বিবৃতিতে আরও উল্লেখ করা হয়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা তাদের মেস ভাড়া মওকুফ করার দাবি করায় উক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এক অপ্রীতিকর মন্তব্য করেন। তিনি শিক্ষার্থীদের বলেন ‘তোমরা এতো মিসকিন, নিজেদের আত্মমর্যাদা পর্যন্ত নেই। আমি কি বিজ্ঞাপন দিয়েছিলাম যে, দরিদ্রদের ভর্তি করা হয় ! এটা কি দরিদ্রদের এতিমখানা, মাদ্রাসা? বিড়ি-সিগারেট, রিক্সা ভাড়া, বান্ধবীরে আইস্ক্রীম খাওয়ানো লাগতেছেনা । এসব টাকা দিয়ে বাড়ি ভাড়া দিচ্ছেনা কেন ?”

জবি উপাচার্য এমন অপ্রীতিকর, নিম্নরুচি মন্তব্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ধারণারই পরিপন্থী। একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ কর্তাব্যক্তির এরকম দায়হীন বক্তব্য খুবই হতাশাজনক। আমরা শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে সংহতি জানিয়ে দাবি করছি যে উক্ত ভিসি যেন তার এই বক্তব্য প্রত্যাহার করে নেন। পাশাপাশি শুধু জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় নয়, বাংলাদেশের সকল পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় সহ সমস্ত শিক্ষার্থীদের যেনো মেস ভাড়া মওকুফ করে তার জন্য যেন প্রশাসন কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ করে এবং রাষ্ট্রীয় প্রজ্ঞাপন জারি করেন।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল