জাফলং ট্যুরিস্ট পুলিশের কষ্ট লাঘব হবে কবে ? – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

জাফলং ট্যুরিস্ট পুলিশের কষ্ট লাঘব হবে কবে ?

প্রকাশিত: ৩:৫৫ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১২, ২০২১

জাফলং ট্যুরিস্ট পুলিশের কষ্ট লাঘব হবে কবে ?

জুনেহ আহমদ :: নেই কোন স্থায়ী-অস্থায়ী কোন অফিস বা বসার জায়গা। তবুও দেশসেবায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নকে এগিয়ে নিতে বিশ্বমহলে বাংলাদেশের নাম উজ্জ্বল করতে রোদ-বৃষ্টির মধ্যে সততা ও নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছে জাফলং ট্যুরিস্ট পুলিশ।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আহ্বানে করোনাকালে জাফলং ট্যুরিস্ট পুলিশ ওসি রতন শেখের নেতৃত্বে সংক্রমনণ রোধে প্রশংসনীয় কাজ করে যাচ্ছে।

পর্যটকদের স্বাস্থ্যবিধি মানার জন্য মাইকিং, পুলিশং সভা, হারানো শিশুকে উদ্ধার, পর্যটকদের নিরাপত্তা, রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে নিজ উদ্যোগে পর্যটকদের পিপাসা মিঠানো, ওসি নিজ হাতে নদী থেকে লাশ উদ্ধার, প্রতারকের হাত থেকে টাকা উদ্ধার, ছিনতাই হওয়া মোবাইল উদ্ধার, মানিব্যাগ উদ্ধারসহ বিভিন্ন কাজ করে প্রশংসীত হয়েছে জাফলং ট্যুরিস্ট পুলিশ।

কিন্তু দু:খের বিষয় এত কিছুর মধ্যেই জাফলং ট্যুরিস্ট পুলিশ দুর্ভোগ ও কষ্ট নিয়ে তাদের দায়িত্ব পরিচালনা করে যাচ্ছে।

শনিবার (১১ সেপ্টেম্বর) দুপুর ২ টা ৩০ মিনিটের সময় পর্যটন কেন্দ্রে দায়িত্বরত ট্যুরিস্ট পুলিশ জাফলং সাব-জোন এর এ এস আই মো নজরুল ইসলাম জাফলং জিরো পয়েন্টে হঠাৎ রৌদ্রের তীব্রতায় অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাৎক্ষণিক পুলিশ সদস্য আলমগীর এবং ডিউটি তদারকিতে থাকা জাফলং সাব-জোন এর ইউনিট ইনচার্জ ওসি মো রতন শেখ তাকে উদ্ধার করে এক ঘন্টাব্যাপী সেবা শুশ্রূষা করে একটু সুস্থ করে প্রাথমিক চিকিৎসার জন্য ৩ কিলোমিটার দূরে জাফলং মামার দোকানের স্থানীয় চিকিৎসকের কাছে নিয়ে চিকিৎসা প্রদানের মাধ্যমে সুস্থ করে তুলেন।

এ বিষয়ে জাফলং ট্যুরিস্ট পুলিশ জাফলং জোনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রতন শেখ বলেন, আমাদের ট্যুরিস্ট পুলিশের জন্য নির্ধারিত কোন স্থায়ী-অস্থায়ী কোন অফিস বা বসার জায়গা নেই। প্রতিদিন আমাদের কর্মরত অফিসাররা তাদের দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ছে। এই রোদ-বৃষ্টির মধ্যে ক্লান্ত শরীরকে একটু বিশ্রামের জন্য নেই কোন ব্যবস্থা। আমাদের অফিসার কেউ অসুস্থ হলে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার সুযোগই নেই। অসুস্থ অফিসারকে নিয়ে ৩ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে যেতে হয় মামার দোকানে। অনেক সময় নদী পাড়াপাড়ে জন্য নৌকাও মিলে না। এত কষ্ট ও দুর্ভোগের মধ্যে আমরা আমাদের দায়িত্ব পালন করছি। আমি উর্ধতন কর্মকর্তা যারা রয়েছেন তাদের বিনীতভাবে অনুরোধ করি তারা যেনো আমাদের দিকে সু-দৃষ্টি দেন।

উল্লেখ্য, দেশি-বিদেশি পর্যটকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ও পর্যটকদের বিরুদ্ধে অপরাধের তদন্তে ২০০৯ সালে ট্যুরিস্ট পুলিশের যাত্রা শুরু হয়। সিলেটের জাফলং, বিছানাকান্দি, মাধবকুণ্ড, লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানসহ দেশের গুরুত্বপূর্ণ পর্যটন এলাকায় ট্যুরিস্ট পুলিশ তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল