টমটমের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পুলিশের আর কোনো আইনি বাঁধা নাই – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

টমটমের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পুলিশের আর কোনো আইনি বাঁধা নাই

প্রকাশিত: ৬:৫১ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৮, ২০২০

টমটমের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পুলিশের আর কোনো আইনি বাঁধা নাই

নিজস্ব প্রতিবেদক : সিলেটের সড়কে ধাপটের সাথে চলাচল করছে অবৈধ টমটম (ইজি বাইক)। প্রশিক্ষণবিহীন অদক্ষ ও শিশু চালকদ্বারা পরিচালিত শত শত ইজি সবাইকের কারণে যেমন সৃষ্টি হচ্ছে যানজট তেমনি ঘটছে দুর্ঘটনা।

একটা সময় সিলেট সিটি করপোরেশন ও পুলিশ প্রশাসন টমটমের (ইজি বাইক) বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করে মাঠে নামলে সড়ক থেকে অল্পদিনে উধাও হয় তিন চাকার এ বাহন। পরে টমটম মালিকদের একটি পক্ষ হাইকোর্টে রীট করে (নং- ৯৫৩২/১৫) দক্ষিণ সুরমায় চালায় বিআরটিএর অনুমোদনবিহীন টমটম। রীটের কারণে বেকায়দায় পড়ে সিসিক ও ট্রাফিকপুলিশ। সেই রীটের মেয়াদ শেষ হয়েছে সাড়ে তিন মাস আগে। সে কারণে অবৈধ ইজি সবাইকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আইনি আর কোনো বাঁধা থাকলো না।

এদিকে, প্রতিদিন সিলেটের নানা স্থানে অবৈধ যানবাহনের বিরুদ্ধে ট্রাফিকপুলিশের অভিযান অব্যাহত থাকলেও ইজি বাইকের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিতে দেখা যায় না। এমনকি অভিযানের বিস্তর বর্ণনা দিয়ে গণমাধ্যমে প্রেরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে ইজি বাইক সংক্রান্ত কোনো খবর থাকেনা। বিষয়টি নিয়ে সিলেটের মিডিয়াপাড়ায় গুঞ্জনের ডালপালা মেলছে।

রাস্তায় বের হলেই দেখা মিলে বীর দর্পণে বিস্ফোরণ আতঙ্ক ছড়িয়ে এখনও সড়কে চলছে মেয়াদউত্তীর্ণ গ্যাস সিলিন্ডার বহনকারী শত শত ইজি বাইক। নামমাত্র ব্রেকে ঠিকমত কাজ না করায় ছোটখাটো দুর্ঘটনাকে কেন্দ্র করে নিত্যদিন দ্বন্দ্বে জড়ায় টমটম চালকরা।

গত ১১ ডিসেম্বর শুক্রবার সোয়া ৭টার দিকে এসএমপি পুলিশ কমিশনার মো.নিশারুল আরিফ আলমপুরস্থ বাসায় ফিরছিলেন। তার গাড়ি কদমতলী বান্দ নামকস্থান অতিক্রম করার আগ মুহূর্তে সড়ক ফাঁকা করতে কয়েকটি যানবাহনের সাথে একটি টমটমকে সিগন্যাল দেন সে সময় ডিউটি পালনকারী রেকার অপারেটর কামাল। সিগন্যাল অমান্য করার বিষয় নিয়ে টমটম চালক আফরোজের সাথে কামালের বাকবিতণ্ডা হয়। আফরোজের ফোনকলে টমটম ড্রাইভার সোলেমান, শামীম, রুবেল, নজরুল ও রাজকুমারসহ অন্যান্যরা এসে সিলেট-জকিগঞ্জ সড়ক অবরোধের চেষ্টা করে সড়কে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করার কথা প্রত্যক্ষদর্শীদের বর্ণনায় পাওয়া যায়। পরবর্তীতে রেকার অপারেটর হাবিবসহ কয়েকজনের মধ্যস্থতায় সেদিনের ঘটনা ইতি টানে।

এ ধরণের ন্যাক্কারজনক ঘটনা প্রায়ই ঘটছে বলে জানিয়েছেন বাস টার্মিনালের পরিবহন শ্রমিকরা। যত্রতত্র দাঁড় করে যাত্রী উঠানো-নামোর কারণে যানজট সৃষ্টকারী ইজিবাইকসহ অবৈধ যানবাহন চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আরোপের জন্য দীর্ঘদিন থেকে পুলিশ প্রশাসন ও জেলা প্রশাসকসহ নানা মহলে পরিবহন নেতারা দাবি জানিয়ে আসছেন।

এ ব্যাপারে হাইকোর্টে রীটকারী ইউসুফ খাঁনের সাথে কথা হলে তিনি জানান, ৯ আগস্ট রীটের মেয়াদ শেষ হয়েছে। আমরা পরবর্তীতে আবারো রীটের মেয়াদ বাড়াতে আবেদন করবো। বর্তমানে অন্য একটি পক্ষ ভূয়া রীটের কথা বলে টমটম থেকে চাঁদা তোলে রাস্তায় টমটম চালাচ্ছে। বিষয়টি উল্লেখ করে রীটের মেয়াদ শেষ হওয়ার কথা লিখিতভাবে পুলিশ প্রশাসনকে জানিয়েছেন বলে তিনি বলেন।

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক ডিসি) ফয়সল মাহমুদ বলেন, সব ধরণের অবৈধ স্ট্যান্ড ও যানবাহনের বিরুদ্ধে আমাদের কার্যক্রম সব সময়ই চলে। বর্তমানে অনটেস্ট সিএনজির বিরুদ্ধে অভিযানের ফোকাসটা বেশি দেয়া হচ্ছে। অচিরেই ফোকাসটা টমটমের দিকে যাবে। টমটম পরিচালনার রীটের মেয়াদ শেষ হওয়ার বিষয়টি সম্পর্কেও তিনি ওয়াকিবহাল আছেন বলে জানান ট্রাফিক ডিসি ফয়সল মাহমুদ।