টাঙ্গাইলে ৬ সংখ্যালঘু নেতাকে পোস্টার লাগিয়ে হত্যার হুমকি – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

টাঙ্গাইলে ৬ সংখ্যালঘু নেতাকে পোস্টার লাগিয়ে হত্যার হুমকি

প্রকাশিত: ৫:৫৬ অপরাহ্ণ, জুলাই ২২, ২০১৬

টাঙ্গাইলে ৬ সংখ্যালঘু নেতাকে পোস্টার লাগিয়ে হত্যার হুমকি

1469188558_70955_1টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলায় ‘সংখ্যালঘু ধর্মীয়’ ছয় নেতার বাড়ির দেয়ালে পোস্টার সাটিয়ে হত্যার হুমকি দিয়েছে ‘জঙ্গিরা’।

চাঁদতারা অঙ্কিত সবুজ রঙের কালিতে লেখা ওই পোস্টার বৃহস্পতিবার রাতের কোনো এক সময় ছয়জনের নাম উল্লেখ করে তিন নেতার বাড়ির গেটে সাটিয়ে দেয়া হয়।

জানা গেছে, উপজেলা হিন্দু-বৌদ্ধ-খৃষ্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি সরণ দত্ত, সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) ভূঞাপুর শাখা সাধারণ সম্পাদক ও ভূঞাপুর প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি সন্তোষ কুমার দত্ত, ফলদা কেন্দ্রীয় কালিমন্দির পরিচালনা কমিটির সহ-সভাপতি নিতাই চন্দ্র বর্মণ, ফলদা ইউনিয়ন পরিষদের পাঁচ ওয়ার্ডের সদস্য কনক চন্দ্র ঘোষ, অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক সুশীল রঞ্জন বসাক, ফলদা প্রকৌশল শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি সাধন মজুমদার ও সংখ্যালঘু নেতা ভজন চন্দ্র ঘোষের নাম উল্লেখ করে তিনজনের বাড়িতে চাঁদতারা অঙ্কিত সবুজ রঙের কালিতে হাতের লেখা পোস্টার বৃহস্পতিবার রাতের কোনো একসময় সাটিয়ে দেয় ‘জঙ্গিরা’।

শুক্রবার সকালে ঘুম থেকে উঠার পর সাটানো পোস্টার দেখে ভূঞাপুর থানা পুলিশে খবর দেয়া হয়।

পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পোস্টারগুলো উদ্ধার করে ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করে।

এ ঘটনায় হিন্দু অধ্যুষিত ফলদা গ্রামের সংখ্যালঘু পরিবারের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।

নেতা সন্তোষ কুমার দত্ত জানান, সম্প্রতি পার্শ্ববর্তী গোপালপুর উপজেলায় যেভাবে সংখ্যালঘুর বাড়িতে পোস্টার টাঙিয়ে দর্জিকে হত্যা করা হয়েছে তদরূপ একইভাবে আমাদের সংখ্যালঘু ছয় নেতাকে হত্যার হুমকি দিয়ে বাড়ির দেয়ালে পোস্টার সাটিয়ে দিয়েছে জঙ্গিরা। আমরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি।’

এদিকে সাংবাদিক নেতাকে হত্যার হুমকি প্রদানকারী জঙ্গিদের আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তি নিশ্চিতের আহ্বান জানান ভূঞাপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি আসাদুল ইসলাম বাবুল।

ভূঞাপুর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফজলুল কবির জানান, পুলিশের পক্ষ থেকে সংখ্যালঘু পরিবারদের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হবে এবং খুব দ্রুত আসামিদের আইনের আওতায় আনা হবে।’

উল্লেখ্য, সম্প্রতি টাঙ্গাইলের গোপালপুরে হিন্দু ধর্মের এক দর্জিকে হত্যার আগে তার বাড়িতে পোস্টার সাটিয়ে দিয়েছিল জঙ্গিরা। এরপর কয়েকদিন পর জঙ্গিরা ওই দর্জিকে হত্যা করে পালিয়ে যায়।

পরে ইসলামিক স্টেট (আইএস) হত্যার দায় স্বীকার করে টুইটে বার্তা প্রদান করে।

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল