ঠান্ডা-গরম বল দিয়ে উয়েফার ড্রয়ে কারচুপি! – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

ঠান্ডা-গরম বল দিয়ে উয়েফার ড্রয়ে কারচুপি!

প্রকাশিত: ১০:৪৪ পূর্বাহ্ণ, জুন ১৪, ২০১৬

ঠান্ডা-গরম বল দিয়ে উয়েফার ড্রয়ে কারচুপি!

uroউয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের ড্রতেও তাহলে কার
চুপি হয়েছে? সাবেক ফিফা সভাপতি সেপ ব্ল্যাটার সেরকম দাবিই করেছেন। আর এই ড্রয়ে কারচুপি করতে নাকি পাত্রে রাখা ছোট ছোট বলগুলো কিছু ঠান্ডা করা হতো। যেন যিনি না দেখে বলটা তুলবেন, হাত দিয়ে ধরলেই যেন বুঝতে পারেন কোন বলগুলো ঠান্ডা। কোনগুলো ঠান্ডা নয়!

ব্ল্যাটারের দাবি, বিশ্বকাপের ড্রতে তাঁর সময়ে এমন কিছু হয়নি। অভিযোগটা আসলে উঠেছিল আর্জেন্টিনাকে নিয়ে। ২০১৪ বিশ্বকাপে ইরান, বসনিয়া ও নাইজেরিয়ার সঙ্গে এক গ্রুপে পড়েছিল আর্জেন্টিনা। অভিযোগ উঠেছিল, ড্রতে কারচুপি করে আর্জেন্টিনাকে সহজ গ্রুপ পাইয়ে দেওয়া হয়েছে। ব্ল্যাটার সেই অভিযোগ অস্বীকার করে উল্টো দাবি করেন, ফিফা নয়, উয়েফা করে কারসাজি!

ব্ল্যাটার ব্যাখ্যা করেছেন, ‘অবশ্যই সংকেত দিয়ে, গরম বা ঠান্ডা করে এটা করা যায়। এটা টেকনিক্যালি সম্ভব। অন্য সময় হলেও হতে পারে, তবে আমার সময় ফিফায় কখনো এটা দেখিনি। কিন্তু উয়েফার ড্রতে আমি এটা দেখেছি। আপনি যদি কিছু বল রেফ্রিজারেটরে রাখেন, তাহলেই তো গরম ও ঠান্ডা বলের পার্থক্য আলাদা করা যায়। স্পর্শ করলেই বুঝতে পারবেন কোনটা কী রকম।’

টুর্নামেন্টগুলোতে কোন দল কোন গ্রুপে পর্বে এটা লটারির ড্রয়ের মাধ্যমে ঠিক করা হয়। আর সেই ড্রয়ে আলাদা আলাদা পাত্রে ছোট বলের ভেতরে লুকানো কাগজে লেখা থাকে দলগুলোর নাম। যিনি পাত্র থেকে বল তোলেন, তার পক্ষে বলা সম্ভব নয় কোন দলের নাম লেখা বল তুলছেন। কিন্তু যদি নির্দিষ্ট দলগুলোর বল ঠান্ডা করে রাখা হয় আর যারা বল তুলবে তাঁদের সেভাবেই নির্দেশনা দেওয়া হয়? এটাই হচ্ছে ব্ল্যাটারের দাবি।
এই মুহূর্তে দুর্নীতির অভিযোগে ফিফা থেকে ছয় মাসের জন্য নিষিদ্ধ ব্ল্যাটার। তবে নিজেকে আবারও নির্দোষ দাবি করে এবার বোমাই ফাটালেন এই সাবেক প্রধান। তবে ব্ল্যাটারের কথা কতটা সত্যি কে জানে।