তাকবীরে তাশরীক কি জেনে নিন?

প্রকাশিত: ৭:২৮ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২৬, ২০১৭

তাকবীরে তাশরীক কি জেনে নিন?

১ সেপ্টেম্বর ফজর থেকে ৫ সেপ্টেম্বর আছর পর্যন্ত (৯ জিলহজ্ব থেকে ১৩ জিলহজ্ব) তাকবীরে তাশরীক অর্থাৎ প্রত্যেক ফরজ নামাজের সালাম ফিরিয়ে তাকবীর বলা ওয়াজিব। তা হলো : আল্লাহু আকবার, আল্লাহু আকবার লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহু আল্লাহু আকবার আল্লাহু আকবার ওয়া লিল্লাহিল হামদ্। উল্লেখিত পাঁচদিন প্রত্যেক ফরজ নামাজের সালাম ফিরিয়ে পুরুষগণ উচ্চ আওয়াজে আর নারীগণ নিম্নস্বরে এ তাকবীর পড়বে। ১বার পড়া ওয়াজিব, ৩বার পড়া সুন্নাত।
যিলহজ্ব মাস কড়া নাড়ছে৷ আসুন, যিলহজ্ব মাসের আমলগুলো জেনে নিই৷
১. নখ-চুল না কাটা। যারা কুরবানি করবেন বিশেষত তারা, আর যারা কুরবানি করবেন না একাধিক রেওয়ায়াত মতে তারাও যিলহজ্ব মাসের চাঁদ দেখার পর থেকে নিয়ে কুরবানি করা পর্যন্ত নখ, চুল, গোঁফ না কাটা মুস্তাহাব৷
২. এই দশকে যিকর, তাসবীহ ও অন্যান্য আমল বেশি বেশি করা। হাদীসে এসেছে, এই দিনসমূহে ইবাদত-বন্দেগি করা আল্লাহ তাআলার নিকট সর্বাধিক পছন্দনীয়৷
৩. প্রথম নয় দিন রোযা রাখা। কয়েকখানা হাদীস থেকে এটা প্রমাণিত যে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এই নয় দিন রোযা রেখেছেন৷ তাই এই নয় দিন রোযা রাখা মুস্তাহাব৷
৪. আরাফার দিন অর্থাৎ নয় যিলহজ্ব রোযা রাখা। এই দিনের রোযা এত ফযীলতপূর্ণ যে, আগের-পিছনের এক এক বছরের গোনাহ মাফের ঘোষণা সহীহ হাদীসে এসেছে৷
৫. তাকবীরে তাশরীক পড়া। নয় যিলহজ্বের ফজর থেকে তেরো যিলহজ্ব আসর পর্যন্ত প্রত্যেক ফরয নামাযের সাথে সাথে একবার তাকবীরে তাশরীক পাঠ করা নারী-পুরুষ সবার জন্যে ওয়াজিব৷ পুরুষরা সশব্দে ও নারীরা আস্তে পাঠ করবেন৷
৬. কুরবানী করা। আল্লাহ তাআলা রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে কুরবানি করতে হুকুম করেছেন৷ তিনি সেই হুকুম পালন করেছেন৷ তাই প্রত্যেক সামর্থ্যবান, নেসাব পরিমাণ সম্পদের মালিকের উপর কুরবানি করা ওয়াজিব৷ কুরবানির ক্ষেত্রে সম্পদের বছর পুরা হওয়া শর্ত নয়৷
৭. ঈদুল আযহার নামায। ঈদুল আযহার নামায আদায় করা প্রত্যেক সাবালক পুরুষের উপর ওয়াজিব৷ বান্দা যখন ঈদগাহের দিকে নামাযের উদ্দেশ্যে বের হয়, তখন আল্লাহ তাআলা ফিরিশতাদের সঙ্গে গর্ব করেন এবং ক্ষমার ঘোষণা দেন৷ তাই প্রত্যেক মুসলিম পুরুষের উপর আবশ্যক হলো, আল্লাহ তাআলার বড়ত্ব ও তাঁর আনুগত্য প্রকাশের লক্ষে ঈদগাহে জড়ো হওয়া৷
সামনেই যিলহজ্ব মাস৷ আসুন, আমলগুলো করি৷ আল্লাহ তাআলা আমাদেরকে এই দশকের আমলগুলো গুরুত্বসহকারে পালন করার তাওফীক দান করুন৷

হাফিজ শাহ সুফইয়ান
শিক্ষক ফরিদা বাদ মাদ্রাসা
সিলেট, অাল গণী ইসলামী ইন্সপায়ার সভাপতি ও সিলেট সংবাদ এর নিয়মিত ইসলামি কলামিস্ট।