তারাপুরেই রাগীব আলীকে অবাঞ্চিত ঘোষণা – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

তারাপুরেই রাগীব আলীকে অবাঞ্চিত ঘোষণা

প্রকাশিত: ৭:৪১ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ১৪, ২০১৬

তারাপুরেই রাগীব আলীকে অবাঞ্চিত ঘোষণা

27801যে তারাপুর এলাকায় দখল সাম্রাজ্য তৈরি করে  নিজের প্রভাব প্রতিপত্তি বিস্তার করেছিলেন অবশেষে সেই তারাপুর এলাকাতেই অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হল আলোচিত শিল্পপতি রাগীব আলীকে।

ভূমি আত্মসাতের আলোচিত দুই মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানাভুক্ত আসামি রাগীব আলী ভারতে পালিয়ে যাওয়ার পর  ক্ষোভে-বিক্ষোভে ফুঁসছে তারাপুর এলাকাবাসী। প্রতারণার মাধ্যমে দখলকৃতজমি তাদের কাছে বিক্রি করে তাদের বিপদে ফেলে পালিয়ে যাওয়ায় তাই রাগীব আলীকে তারাপুর এলাকায় অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেছে তারাপুরবাসী।

রাগীব আলীর অবৈধ স্থাপনায় জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে গ্যাস ও বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্নকরণের নোটিশ যাওয়ার পর রবিবার (১৪ আগস্ট) সকালে ‘আমরা সিলেটবাসী’ নামক একটি সংগঠনের ব্যানারে পাঠানটুলা পয়েন্টে আয়োজিত অবস্থান কর্মসূচি পালিত হয়। ওই অবস্থান কর্মসূচিতে বক্তারা রাগীব আলীর জালিয়াতির কারণে তারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন উল্লেখ করে ক্ষতিপূরণের দাবি জানান, একই সঙ্গে তারা কথিত এ দানবীরকে তারাপুরে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেন।

অবস্থান কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখতে গিয়ে করেরপাড়া এলাকার বাসিন্দা সিতিল দে বলেন, “রাগীব আলী আমাদেরকে পথে বসিয়ে পালিয়ে গেছে । সে একজন প্রতারক, তাকে আমরা আজ থেকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করছি।” এসময় তারা ক্ষতিপূরণের দাবিতে স্লোগান দিতে থাকেন।

আবদুর রাজ্জাক খানের সভাপতিত্বে ও সেলিম আহমদ সেলিমের পরিচালনায় আয়োজিত অবস্থান কর্মসূচিতে এলাকার বিভিন্ন পাড়ার বাসিন্দারা বক্তব্য রাখছেন।

উল্লেখ্য, সিলেটের তারাপুর চা বাগানের দেবোত্তর সম্পত্তিতে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণের মাধ্যমে হাজার কোটি টাকার ভূমি আত্মসাতের আলোচিত দুটি মামলায় বুধবার রাগীব আলীসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি হয়। এরপরই কোনো এক সময়ে রাগীব আলী সপরিবারে ভারত পালিয়ে যান। রাগীব আলীর ভারতে যাওয়ার বিষয়টি প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিশ্চিত করতে গিয়ে জেলা পুলিশের অতিরিক্ত সুপার (মিডিয়া) সুজ্ঞান চাকমা গত শুক্রবার সিলেটটুডে টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, রাগীব আলী ভারতে পালিয়ে গেছেন, এর সত্যতা পাওয়া গেছে।

প্রসঙ্গত, ৪২২ দশমিক ৯৬ একর জায়গায় গড়ে ওঠা তারাপুর চা-বাগান পুরোটাই দেবোত্তর সম্পত্তি। ১৯৯০ সালে ভুয়া সেবায়েত সাজিয়ে বাগানটির দখল নেন রাগীব আলী। গত ১৯ জানুয়ারি প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে হাইকোর্টের আপিল বিভাগের এক বেঞ্চ তারাপুর চা-বাগান দখল করে গড়ে ওঠা সব স্থাপনা ছয় মাসের মধ্যে সরিয়ে নেওয়ার নির্দেশ দেন। রায় বাস্তবায়ন করতে সিলেটের জেলা প্রশাসনকে নির্দেশ দেওয়া হয়। ১৫ মে চা বাগানের বিভিন্ন স্থাপনা ছাড়া ৩২৩ একর ভূমি সেবায়েত পঙ্কজ কুমার গুপ্তকে বুঝিয়ে দেয় জেলা প্রশাসন।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল