দলবদলের আগেই কোচ বদল – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

দলবদলের আগেই কোচ বদল

প্রকাশিত: ৮:২৫ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১০, ২০১৬

দলবদলের আগেই কোচ বদল

43সকাল সাড়ে ১১টা। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন হোটেল লা মেরিডিয়ানের বল রুমে প্রবেশ করলেন। ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লীগের ‘প্লেয়ার বাই চয়েজ’- লটারি পদ্ধতিতে দলবদলের জন্য কক্ষটি প্রস্তুত। ১২ ক্লাবের কর্মকর্তারা নির্দিষ্ট টেবিলে বসে আছেন। বিসিবি সভাপতি তখন ঘুরে ঘুরে প্রতিটি টেবিলেই যাচ্ছেন, কথা বলছেন। আবাহনীর টেবিলে তখন খালেদ মাহমুদ সুজন বসা। তাকে দেখে প্রশ্ন ‘তুমি আবাহনীর টেবিলে কেন?’ সুজন বললেন, ‘আমিও দল বদল করেছি।’ হেসে উঠলেন পাপন। সত্যি আবাহনীতে দায়িত্ব নিয়েছেন জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক ও বর্তমান বিসিবি পরিচালক। ২০১০ সালে আবাহনী শেষ চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল তার হাত ধরেই। এরপর তিনি প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাবে কাটিয়েছেন পাঁচ বছর। শেষ আসরে দলটি চ্যাম্পিয়নও হয় তার কোচিংয়ে। শোনা যাচ্ছে, বিসিবি সভাপতির চাপেই তিনি এখন প্রাইম ব্যাংক ছেড়ে আবাহনীতে। প্লেয়ার ড্রাফট শেষে খালেদ মাহমুদ ও প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাবের সেক্রেটারি তানজিল চৌধুরী মুখোমুখি বসে গল্প করছিলেন। তখনই দৈনিক মানবজমিনের সঙ্গে কথা বলেন নিজেদের নতুনভাবে এগিয়ে চলা নিয়ে। তাদের কথোপকথনের মূল অংশ তুলে ধরা হলো-

‘আমার ওপর চাপ ছিল না’- খালেদ মাহমুদ সুজন
এর আগে আমি আবাহনীর সঙ্গে একবারই কাজ করেছিলাম। সেই বছর আবাহনী চ্যাম্পিয়ন হয়। এরপরই আমি আবাহনী ছেড়ে প্রাইম ব্যাংকে চলে আসি। এখন ভালো লাগছে যে, আবার আমি এই দলটিতে ফিরে এসেছি। আবাহনীতে কাজ করা সব সময় চ্যালেঞ্জিং। এবার আমরা দলে সাকিব তামিমকে একসঙ্গে দলে পেয়েছি। তাই দলটি শক্তিশালী বলা যেতে পারে। তামিম দারুণ ফর্মে আছে। তবে সাকিবকে কবে পাব সেটি বলতে পারছি না। কারণ, ও আইপিএলে আছে। এছাড়া আমাদের দলটিতে যে তরুণ সদস্যরা আছে, তারা খুবই ভালো। মোসাদ্দেক সৌকত, নাজমুল হোসেন শান্ত আছে, আবুল হাসান রাজু, তাসকিন, জুবায়ের হোসেন লিখনকে নিয়ে বলবো ব্যাটিং বোলিং দুটিই ভালো। আর এই পদ্ধতিতে দল ব্যালেন্সড হয়েছে। সব দলের মধ্যে খুব বেশি শক্তির পার্থক্য নেই।
আর প্রাইম ব্যাংক ছেড়ে দেয়ার বিষয়ে আমার ওপর কোনো চাপ ছিল না। এই বয়সে চাপেরও কিছু নেই। এটি পারস্পরিক সমঝোতার মধ্যেই হয়েছে। কোনো প্রেসার ছিল না। আবাহনী অনেক দিন থেকেই চাচ্ছিল। আমার পক্ষে প্রাইম ব্যাংক ছেড়ে দেয়াটা খুব সহজ ছিল না। আবাহনী হয়তো ভেবেছে, চ্যাম্পিয়ন করার জন্য আমাকে প্রয়োজন আছে। আর এটিও ঠিক না যে আমি গেলেই চ্যাম্পিয়ন হবে। এছাড়া আমি প্রাইম ব্যাংকের জন্য দুঃখিত। এখন তাদের কোচ জুয়েল ভাই, তিনি অনেক অভিজ্ঞ; আশা করি তার হাত ধরেই দল ভালো করবে। তাদের সঙ্গে একটা দারুণ সম্পর্ক হয়েছিল; আশা করি আবাহনীও আমাকে সেই রকম কাজের সুবিধা দেবে। তবে আমি সেখানে দুটি দায়িত্বে ছিলাম কোচ কাম ম্যানেজার। আবাহনীতে অবশ্য সেটি হবে না। এখন এখানে আমার ওপর যে আস্থা রাখা হয়েছে। আমি সেটির প্রতিফল ঘটাতে চাই। বাকিটা আল্লাহর ইচ্ছা। তবে আমি বলবো, প্রাইম ব্যাংকের কাজের অভিজ্ঞতা আমার কাজে আসবে। এছাড়া প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাব আমার দল হারলেও তারা অনুপ্রেরণা দিত। আমি বিশ্বাস করি, আবাহনীতেও সেই বিষয়গুলো পাব।

‘কোচ নিয়ে মন্তব্য করতে চাই না’- তানজিল চৌধুরী
আমরা যে দলটি পেয়েছি সেটি নিয়ে খুব খুশি। প্লেয়ার বাই চয়েজে যদিও ভাগ্যের বিষয়। কিন্তু আমরা যেমন একটি তরুণ দল চেয়েছিলাম সেটি পেয়েছি। এখন নজর দিবো বিদেশি ক্রিকেটারের দিকে। সুজন ভাই চলে গেলেন এখন তো আমাদের আর তেমন কিছুই করার নেই। তার চলে যাওয়া আমি মেনে নিয়েছি। তাই কোনো ধরনের মন্তব্য করতে চাই না। তবে তার সঙ্গে আগের মতো ভালো সম্পর্ক থাকবে; আমরা অনেক বছর ধরে একসঙ্গে কাজ করেছি। আবার বলছিলেন, তাকে ছেড়ে দেয়া নিয়ে কোনো চাপ ছিল- এমন বিষয়ে মন্তব্য করতে চাই না।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল