বাংলাদেশে এসে বিয়ে করে স্ত্রীকে রেখে ফিরে যায় কলকাতায়। দেশে ফিরে আবারো বিয়ে করেন তিনি। কিন্তু এ খবর চাপা রইল না। খবর পেয়ে যায় বাংলাদেশি স্ত্রী। কলকাতায় গিয়ে  স্বামীকে বেধড়ক মারলেন ওই নারী। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের বনগাঁর গাইঘাটা থানার মোড়লডাঙায়।

হরিচাঁদ মণ্ডল নামে ওই ব্যক্তির ভারত এবং বাংলাদেশ দু’জায়গারই পরিচয়পত্র রয়েছে। ২০১৮ সালে বাংলাদেশে যায় সে। সেখানেই পেশায় স্কুলশিক্ষিকা তহমিনা খাতুনের সঙ্গে হৃদয় বিনিময় হয় হরিচাঁদের। সে বছরই বিয়ে হয় দু’জনের। বিয়ে সেরেই ভারতে চলে আসে হরিচাঁদ।

এখানে এসেও আরেক তরুণীকে ভাল লেগে যায় তার। বিয়েও করে ফেলে সে। সম্প্রতি সে কথা জানতে পারেন তহমিনা। পাসপোর্ট তৈরি করে ফেলেন তিনি। বান্ধবীকে সঙ্গে নিয়ে বাংলাদেশ থেকে গাইঘাটায় আসেন হরিচাঁদের প্রথম স্ত্রী তহমিনা।

স্থানীয়দের সঙ্গে কথাবার্তা বলতে শুরু করেন ওই মহিলা। বিয়ের ছবি দেখালে সবাই হরিচাঁদের ঠিকানা তাকে জানান। সেই মতো ওই মহিলা হরিচাঁদের বাড়ির বাইরে যান। হরিচাঁদকে ঘরের ভিতর রেখে দরজায় তালা লাগিয়ে দেন তিনি। তহমিনা খাতুন বলেন, আমাকে বিয়ে করে ফের আরো একটি মেয়েকে বিয়ে করেছে হরিচাঁদ৷ আমি নিজের অধিকারের জন্য লড়াই করছি।

এদিকে, খবর লোকমুখে ছড়িয়ে যায় গোটা এলাকায়। খবর পায় গাইঘাটা থানার পুলিশ। তড়িঘড়ি ঘটনাস্থলে পৌঁছায় বিশাল পুলিশবাহিনী। হরিচাঁদ সে খবর পাওয়ার পরই বাড়ি থেকে বেরনোর চেষ্টা করে। সেই সুযোগে ওই মহিলা হরিচাঁদকে মারধরের চেষ্টা করেন। তবে পুলিশ মহিলার কবল থেকে তাকে উদ্ধার করে। অভিযুক্ত হরিচাঁদকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

ডেস্ক রিপোর্ট

Leave a comment

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.