ধলই চা বাগান খুলে দেবার দাবিতে কমলগঞ্জে চা শ্রমিকদের মানববন্ধন – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

ধলই চা বাগান খুলে দেবার দাবিতে কমলগঞ্জে চা শ্রমিকদের মানববন্ধন

প্রকাশিত: ৪:৪২ অপরাহ্ণ, জুলাই ৩০, ২০২০

ধলই চা বাগান খুলে দেবার দাবিতে কমলগঞ্জে চা শ্রমিকদের মানববন্ধন

কমলগঞ্জ প্রতিনিধি
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের ধলই চা বাগান অন্যায়ভাবে আকস্মিকভাবে বন্ধ রাখা হয়েছে। খুলে দেওয়ার দাবিতে উপজেলার রহিমপুর ইউনিয়নের মিরতিঙ্গা চা বাগানের চা শ্রমিকরা মানবন্ধন কর্মসূচি পালন করেন। বৃহস্পতিবার (৩০ জুলাই) সকাল ৮টায় মিরতিঙ্গা চা বাগানের পঞ্চায়েত সভাপতি মন্টু অলমিকের সভাপতিত্বে চা শ্রমিকরা কাজে যোগদানের আগেই বাগানের রাস্তায় দাঁড়িয়ে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন।
ধলই চা বাগানের বিতর্কিত ব্যবস্থাপক আমিনুল ইসলামকে অপসারণের দাবিকে কেন্দ্র করে গত ২৭ জুলাই সন্ধ্যায় একটি নোটিশ টাঙিয়ে ধলই চা বাগান অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করে ধলই চা বাগান কোম্পানী। এর প্রতিবাদে ও অভিলম্বে ধলই চা বাগান খুলে দেবার দাবিতে বৃহস্পতিবার সকাল ৮টায় মিরতিঙ্গা চা বাগানের চা শ্রমিকরা ব্যানারসহ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে। রহিমপুর ইউনিয়নের সদস্য ও বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের মনু-ধলই ভ্যালির কার্যকরি কমিটির সভাপতি ধনা বাউরীর নেতৃত্বে এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়।
মানববন্ধন চলাকালে বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের মনু-ধলই ভ্যালির কার্যকরি কমিটির সভাপতি ধনা বাউরী বলেন, সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে ধলই চা বাগান কোম্পানী নোটিশ দিয়ে ধলই চা বাগান বন্ধ করেছে। গত বুধবার কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদে প্রশাসন, চা বাগান মালিক পক্ষ, চা শ্রমকি ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দ ও চা শ্রমিকদের উপস্থিতে টানা ৪ ঘন্টা চলা বৈঠকে প্রমাণিত হয়েছে যে ঘোষণায় ধলই চা বাগান বন্ধ করা হয়েছে তা ছিল সম্পূর্ণ বেআইনী। বৈঠকে চা শ্রমিকদের দাবি ছিল চা বাগান খুললেও বিতর্কিত ব্যবস্থাপক আমিনুর ইসলামকে ধলই চা বাগানে প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না। চা বাগান মালিক পক্ষ ব্যবস্থাপক আমিনুল ইসলামকে ধলই চা বাগানে প্রবেশের পর চা বাগান খুলতে চায়। এ জন্য কোন প্রকার সমাধান ছাড়া বৈঠকটি শেষ হয়
বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক রাম ভজন কৈরী বলেন, ধলই চা বাগানে কোন প্রকার সমস্যা ছিল না। এখন চা বাগানে বাহির থেকে দূর্ণীতিবাজ ব্যবস্থাপক আমিনুল ইসলাম মুঠোফোনে তার তৈরী কিছু সংখ্যক যুবকদের নির্দেশনা দিয়েছেন মার দাঙ্গা করে, গাছ গাছালি কেটে, চা গাছের ক্ষতি করে ধলই চা বাগানের ব্যাপক ক্ষতি সাধন করাতে। যাতে প্রশাসন দেখতে পায় ধলই চা বাগান ধংসের পথে। এর প্রমাণ হিসেবে মুঠোফোনের অডিও রেকর্ড উপজেলা পরিষদে প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের সামনে তুলে ধরা হয়েছে। সুতরাং কোন অবস্থায় এই বিতর্কিত ব্যবস্থাপককে সাধারণ চা শ্রমিকরা মেনে নিবে না।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল