নগরীতে পিয়াজের পর হঠাৎ করে বেড়েছে আদা রসুনের দাম – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

নগরীতে পিয়াজের পর হঠাৎ করে বেড়েছে আদা রসুনের দাম

প্রকাশিত: ৭:২০ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ৪, ২০২০

নগরীতে পিয়াজের পর হঠাৎ করে বেড়েছে আদা রসুনের দাম

নিজস্ব প্রতিবেদক:
নগরের পিয়াজের পর হঠাৎ করে গত তিন দিনে দাম বেড়েছে আদা-রসুনের। যদিও কিছুটা হলেও কমেছে পিয়াজের দাম। নিত্যপ্রয়োজনীয় মসলাপণ্য রসুনের দাম বেড়েছে কেজিপ্রতি ৩০ থেকে ৫০ টাকা। এতে দেশি পুরোনো ও আমদানি করা রসুনের কেজি ২০০ টাকা ছাড়িয়েছে। চীনা আদার দাম বেড়েছে কেজিতে ২০ টাকা।

ব্যবসায়ীদের দাবি, করোনাভাইরাসের কারণে চীন থেকে আমদানিনির্ভর রসুন ও আদা আসা কমেছে। তা ছাড়া দেশি রসুনের মৌসুম শেষ হয়েছে। নতুন আগাম দেশি রসুন এবং আমদানি করা রসুনের সরবরাহও কম। এসব কারণে এ পণ্য দুটির দাম বাড়ছে।

বাজার ঘুরে দেখা গেছে, প্রতিকেজি দেশি পুরোনো রসুন বিক্রি হয়েছে ২০০ থেকে ২২০ টাকায়। দেশি নতুন রসুনের দাম খুচরা বাজারে ১২০ টাকা; দোকানিরা তা বিক্রি করছেন ১৪০ টাকা কেজি দরে। আমদানি করা রসুন ক্রেতারা কিনছেন ১৯০ থেকে ২০০ টাকায়। গত বৃহস্পতিবারও প্রতি কেজি দেশি পুরোনো রসুন ১৭০ থেকে ১৮০ টাকা কেজি বিক্রি হয়। আমদানি করা রসুন ছিল ১৬০ থেকে ১৭০ টাকা।

টিসিবির বাজারদরের তথ্য অনুযায়ী, সপ্তাহের ব্যবধানে রসুনের দাম বেড়েছে কেজিতে ১০ থেকে ৩০ টাকা। আর এক মাসের ব্যবধানে দেশি রসুনের দাম বেড়েছে কেজিতে ৪০ টাকা। দেশি রসুন প্রতি কেজি ১৫০-২২০ টাকা আর আমদানি করা রসুন ১৬০-১৮০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। আগের সপ্তাহে দেশি রসুন ছিল কেজিপ্রতি ১৪০-২০০ টাকা, আমদানি করা রসুন ছিল ১৩০-১৫০ টাকা। গত বছরের এ সময় দেশি রসুন কেজিপ্রতি ৫০-৭০ টাকা ও আমদানি করা রসুন ৭০-৮০ টাকায় বিক্রি হয়। গত বছরের একই সময়ের তুলনায় দ্বিগুণের বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে রসুন।

টিসিবির তথ্যে জানা গেছে, আদার দামও কেজিতে ২০ টাকা বেড়ে মানভেদে১৩০-১৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। শুকনা মরিচ কেজিতে ৫০ টাকা বেড়ে ২৪০-৪০০ টাকা হয়েছে। এদিকে গত তিন দিনে পিয়াজের দাম কমেছে কেজিতে ৩০ টাকা। বাজারে হালিকাটা বা বীজের পিয়াজের সরবরাহ বেড়েছে। এতে দাম কমে আসছে। পাইকারিতে প্রতিকেজি দেশি পিয়াজ ১০০ থেকে ১২০ টাকায় বিক্রি হয়। আমদানি করা চীনা পিয়াজ বিক্রি হয়েছে ৫০ থেকে ৬০ টাকায়।

কালিঘাটের ব্যবসায়ী আরাফাত বলেন, করোনাভাইরাসের কারণে চীনে নতুন করে পণ্য আমদানির জন্য ঋণপত্র খোলা সম্ভব হয়নি। এখন কেবল আগের আমদানি প্রক্রিয়ায় থাকা রসুন ও আদা আসছে। তাই পণ্য দুটির দাম বাড়ছে। তবে দেশি আদা পাইকারি বাজারে তুলনামূলক কম দামে বিক্রি হচ্ছে। দেশি নতুন রসুনের দামও কম রয়েছে।

লালদিঘিরপারের ব্যবসায়ী লায়েক মিয়া বলেন, দেশি রসুনের সরবরাহ কম হওয়ার সুযোগে আমদানিকারকরা চীনা রসুনের দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন। গত তিন দিনে পাইকারি বাজারে আমদানি করা রসুনের দাম কেজিতে ৪০ টাকা বেড়েছে। ফলে খুচরা বাজারেও দাম বাড়ছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল