নবীন আইনজীবীদের সহায়তায় প্রধানমন্ত্রীর সাহায্য চাইলেন এডভোকেট রুহুল আনাম চৌধুরী মিন্টু – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

নবীন আইনজীবীদের সহায়তায় প্রধানমন্ত্রীর সাহায্য চাইলেন এডভোকেট রুহুল আনাম চৌধুরী মিন্টু

প্রকাশিত: ৮:০০ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ৭, ২০২০

নবীন আইনজীবীদের সহায়তায় প্রধানমন্ত্রীর সাহায্য চাইলেন এডভোকেট রুহুল আনাম চৌধুরী মিন্টু
নিজস্ব প্রতিবেদক
নবীন আইনজীবীদের সাহায্য নিশ্চিত করতে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সহযোগিতা চেয়ে ফেসবুকে স্টেটাস দিয়েছেন বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের সম্মানিত সদস্য এডভোকেট রুহুল আনাম চৌধুরী মিন্টু। তিনি লিখেছেন “বাংলাদেশের প্রিয় নবীন ও সাময়িকভাবে আর্থিক অসুবিধায় থাকা আমাদের জুনিয়র সহকর্মী আইনজীবী ভাই-বোনগন— আমার সালাম নিবেন। আমাদের দেশে প্রায় ষাট হাজার আইনজীবীগনের একটি বড় সম্মানজনক পরিবার। ১০০% ভাগ উচ্চ শিক্ষিত লোকের পরিবার একমাত্র এটাই। এই পরিবারে প্রায় ৪০ হাজার ভাই- বোন নবীন বা জুনিয়র আইনজীবীগনের তালিকায় রহেছেন, যারা কোর্টে গেলে সিনিয়রগনের সাথে সারা দিন কাজ করার পর বিকালে ছোট অংকের একটা সম্মানি পান, তাছাড়া মাঝে মধ্যে ছোট খাটো মামলা পরিচালনা করে সামান্য ফি পান, এটা দিয়েই কোনরকমে চলতে হয়। এটা আমরা ভালো করে বুঝি, কারন আমরাও একসময় এভাবে ছিলাম। সুতরাং আমার প্রিয় জুনিয়র আইনজীবী ভাই- বোনগনের সাময়িক আর্থিক অসুবিধাগুলো অনুমান করতে পারি। অধিকাংশ আইনজীবীগন শহরে বাসা ভাড়া দিয়ে থাকেন। ঢাকায় ২৫ হাজারের নিচে বাসা ভাড়া পাওয়া যায় না। অন্য শহরগুলোতে ১৫ হাজার টাকার নিচে বাসা ভাড়া পাওয়া যায় না। তাছাড়া পরিবার পরিজনের খরচতো আছেই। বর্তমান করোনা ভাইরাস এর জন্য দেশ ও জনগনের কল্যানে অফিস আদালত বন্ধ। এসময়ে আমাদের প্রানপ্রিয় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নিজের সূখ শান্তি বিসর্জন দিয়ে দিন রাত পরিশ্রম করে যাচ্চেন এবং দেশের জনগনের কল্যানে কোটি কোটি টাকা বরাদ্ধ দিচ্চেন। দেশের মানুষ খুবই আনন্দিত। কেউ না খেয়ে মারা যাবে না এটা সত্য। এ দেশের মানুষ আমাদের দেশরত্ন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ১০০% ভাগ বিশ্বাস করে, ভালোবাসে এবং জানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশ ও জনগনকে বর্তমান পরিস্থিতি থেকে উত্তরনের সকল ব্যবস্থা করেছেন, শুধু জনগনকে সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী সচেতন থাকতে হবে।মানুষের ঘরে ঘরে সরকারীভাবে খাবার পৌছে দেওয়া হচ্চে । কিন্তু আমাদের প্রায় ৪০ হাজার নবীন ও জুনিয়র আইনজীবীগন তাদের সাময়িক আর্থিক সমস্যার কথা কাউকে না বলতে পারছেন না সইতে পারছেন। কারন এটা এমন এক পেশা যাকে বলা হয় Dignified profession. আমাদের প্রিয় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ছাড়া এ সমস্যা কাউকে বলা যায় না। তিনিই আমাদের অভিবাবক, যিনি আইনজীবীগনকে প্রচুর ভালোবাসেন। ফলে ১১৭ কোটি টাকা ব্যয়ে ১৫ তলা বিশিস্ট বার কাউন্সিল ভবন নির্মান করে দিচ্চেন এবং কাজও দ্রুত গতিতে এগিয়ে যাচ্চে। বর্তমানে নবীন ও জুনিয়র আইনজীবীগনের সাময়িক আর্থিক অসুবিধা দূর করার জন্য তাদের পক্ষ থেকে বিশ্বনেত্রী ১৭ কোটি মানুষের আশ্রয়ের একমাত্র ঠিকানা আমাদের প্রানপ্রিয় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, শান্তির আহবানকারী জননেত্রীর কাছে আমাদের প্রানের দাবী আপনি আমাদের নবীন ও জুনিয়র আইনজীবীগনের জন্য দয়া করে ১০০ কোটি টাকা বরাদ্ধ দিন, এটা আপনার জন্য কোন বিষয়ই না । কারন আপনি ছাড়া বলারও জায়গা নেই, চাওয়ারও জায়গা নেই, পাওয়ারও জায়গা নেই। তাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, দয়া করে বার কাউন্সিল এর মাধ্যমে আমাদের নবীন ও জুনিয়র আইনজীবী ভাই- বোনদের দিকে সুনজর দিন। আপনিই পারেন তাদের এই সমস্যা সমাধান করতে। প্রিয় নবীন আইনজীবী ভাই- বোনগন, আমরা আপনাদের পাশে আছি এবং থাকব। আমাদের প্রিয় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে ইনশাআল্লাহ আশার বানী শুনবেন, কারন তিনি কাউকে ফিরিয়ে দেন না, যদি যুক্তিসংগত, ন্যায়সংগত ও আইনসংগত আবদার করা হয়। আমাদের বার কাউন্সিল এর নেতৃবৃন্দ আপনাদের এ বিষয় নিয়ে একে অন্যের সাথে যোগাযোগ করে যাচ্চেন। গতকাল বার কাউন্সিল এর লিগ্যাল এন্ড এডুকেশন কমিটির চেয়ারম্যান জনাব কাজী নজিবুল্লা হিরু এ বিষয় নিয়ে মাননীয় আইনমন্ত্রী মহোদয়ের সাথে কথা বলেছেন। আশা করি একটা ভালো খবর পাবেন ইনশাআল্লাহ।
এ এফ মোঃ রুহুল আনাম চৌধুরী মিন্টু
সদস্য- বাংলাদেশ বার কাউন্সিল।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •