নির্বাচনী কৌশলের অংশ হিসেবে লোদীর বাসায় আরিফ – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

নির্বাচনী কৌশলের অংশ হিসেবে লোদীর বাসায় আরিফ

প্রকাশিত: ১২:১৪ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ৮, ২০১৭

নির্বাচনী কৌশলের অংশ হিসেবে লোদীর বাসায় আরিফ

সিলেট সিটি করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র পদ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী ও প্যানেল মেয়র (১) রেজাউল হাসান কয়েস লোদীর মাঝে। সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া হত্যা মামলায় কারাগারে যাওয়ার আগে লোদীকে ভারপ্রাপ্ত মেয়রের দায়িত্ব দিয়ে যাননি আরিফ। ১ম প্যানেল মেয়র হিসেবে ভারপ্রাপ্ত মেয়রের দায়িত্ব না পেয়ে ক্ষুব্ধ হন লোদী। নগরভবনের ভেতরের এই দ্বন্ধ গড়ায় আদালত পর্যন্ত।

আদালতের রায় লোদীর পক্ষে গেলেও নানা কারণে ভারপ্রাপ্ত মেয়রের দায়িত্ব পাননি লোদী। সেই থেকে নগরভবনমুখীও হননি কয়েস লোদী। তাদের এই দ্বন্ধের ঢেউ লাগে রাজনীতিতেও। নিজ দলের দুই জনপ্রতিনিধির পরস্পরবিরোধী এই অবস্থান ভালোভাবে নেননি বিএনপি নেতারাও। কিন্তু গতকাল মঙ্গলবার সকালে হঠাৎ করে লোদীর হাউজিং এস্টেটের বাসায় হাজির হন আরিফ।  অনেকে মনে করছেন আসছে সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন প্যানেল মেয়র ও মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি হিসেবে কয়েস লোদী অবস্থান ও নির্বাচনী কৌশলের অংশ হিসেবে লোদীর বাসায় গিয়েছিলেন আরিফুল হক চৌধুরী।

নগরভবনের এই দ্বন্ধে প্রায় তিনবছর মুখ দেখাদেখি বন্ধ ছিল আরিফ-লোদীর। কারাগার থেকে মুক্ত হওয়ার পরও আরিফের পাশে দেখা যায়নি লোদীকে। আগামী সিটি নির্বাচনে আরিফকে চ্যালেঞ্জ জানাতে মেয়র পদে প্রার্থীতা ঘোষণা দিয়ে প্রচারণাও চালিয়ে যাচ্ছিলেন লোদী। এ অবস্থায় গতকাল লোদীর বাসায় আরিফের যাওয়াকে নিয়ে তৈরি হয়েছে নতুন গুঞ্জন। অনেকে মনে করছেন নির্বাচনকে সামনে রেখেন নতুন কৌশল অবলম্ব করেছেন আরিফুল হক চৌধুরী। বিগত সময়ে তিনি কাউন্সিলদের মধ্যে অত্যন্ত জনপ্রিয় এবং বার বার নির্বাচিত কাউন্সিলর ও কাউন্সিলরদের ভোটে নির্বাচিত ১ম প্যানেল মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পরও কেন  লোদীকে ভারপ্রাপ্ত মেয়রের দায়িত্ব প্রধান করা হয়নি। প্রথম প্যানেল মেয়র নির্বাচিত আবার তার বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব সব কিছু জেন রহস্য জনক। ঠিক যে ভাবে রহস্য জনক ভাবে লোদীর বাসায় আরিফুল হক চৌধুরী। ছবি তুলে ফেইনবুকে অাপলোড করে দ্বন্ধ নিরসনের কথা জানানো সবকিছুতে যেন নির্বাচনী কৌশল ও রহস্য মনে করছেন অনেকেই

এ ব্যাপারে সিটি করপোরেশনের ৪নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও ১ম প্যানেল মেয়র রেজাউল হাসান কয়েস লোদী বলেন, ‘হঠাৎ করে মেয়র আরিফ আমার বাসায় আসেন। তিনি আমার ও আমার মায়ের সাথে কুশল বিনিময় করেছেন। ভারপ্রাপ্ত মেয়র পদ নিয়ে অতীতে ঘটে যাওয়া ঘটনাগুলো অনাকাঙ্খিত বলে দাবি করেছেন।

মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, হাউজিং এস্টেটে তার এক বন্ধুর বাসায় গিয়েছিলেন। ফেরার পথে তিনি কয়েস লোদীর বাসায় ওঠেন।