নিলামে অংশগ্রহণ না করতে আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র : আবু রায়হান পাভেল – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

নিলামে অংশগ্রহণ না করতে আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র : আবু রায়হান পাভেল

প্রকাশিত: ১০:০০ অপরাহ্ণ, জুন ২৭, ২০২০

নিলামে অংশগ্রহণ না করতে আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র : আবু রায়হান পাভেল

কানাইঘাট দিঘীরপাড়পূর্ব ইউনিয়নের সড়কের বাজার এলাকায় প্রয়াত মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম, মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ ও সিলেটের সাবেক সিটি মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের মৃত্যুতে টানানো ৩টি ডিজিটাল ব্যানার রাতের আঁধারে ছিড়ে ফেলার ঘটনায় সড়কের বাজার পশুর হাটের সাবেক ইজারাদার আবু রায়হান পাভেলকে গায়েল করার অভিযোগ।
এই বিষয়ে গত শুক্রবার কানাইঘাট দিঘীরপাড়পূর্ব ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ-সভাপতি কামরুল ইসলাম কানাইঘাট থানায় সড়কের বাজার পশুর হাটের সাবেক ইজারাদার আবু রায়হান পাবেল ও তার আত্মীয়-স্বজনদের আসামী করে একটি অভিযোগ দাখিল করেন ।
এই বিষয়ে সড়কের বাজার পশুর হাটের সাবেক ইজারাদার আবু রায়হান পাভেল বলেন, আগামী ২ জুলাই বৃহস্পতিবার পবিত্র ঈদ-উল-আযহাকে সামনে রেখে সড়কের বাজার পশুর হাট নিলামের ডাক হওয়ার কথা রয়েছে। আর সেই নিলামে আমি যাতে অংশগ্রহণ না করতে পারি সেজন্য আমার বিরুদ্ধে স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহল গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মরহুম মোহাম্মদ নাসিম, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক মরহুম শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ ও সিলেট সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র মরহুম বদর উদ্দিন আহমদ কামরান আমার শ্রদ্ধেও সম্মানীত নেতৃবৃন্দ। আমি সর্বদা এসকল নেতৃবৃন্ধের প্রতি সম্মান ও শ্রদ্ধা জানিয়ে আসছি। আমার প্রতিপক্ষ এই ব্যানার ছেড়াকে কেন্দ্র করে আমাকে গায়েলের চেষ্টা লিপ্ত রয়েছেন। আমার প্রতিপক্ষ নিজে ব্যানার ছিড়ে ফেলে আমাকে নিলামে অংশগ্রহণ থেকে বিরত রাখতে এধরনের মনগড়া নাটক সাজিয়ে কানাইঘাট থানায় অভিযোগ দাখিল করেছেন। যা সম্পন্ন মিথ্যা ও বানোয়াট। এ ঘটনা সম্পর্কে আমি কিছু জানি না বা এই ঘটনার সাথে আমার কোন ধরনের সম্পৃক্ততা নেই।
এই বিষয়ে কানাইঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শামসুদ্দোহা পিপিএম বলেন, ঘটনা তদন্ত চলছে। স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ বলছেন ব্যানার ছেড়ে ফেলার কথা। তবে আমরা বিষয়টি তদন্ত করে দেখছি। এই বিষয়ে একটি অভিযোগও দাখিল করা হয়েছে। তবে তিনি নিলাম প্রক্রিয়া এই ঘটনার সাথে জড়িয়ে আছে কি না আমার জানা নেই। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে বলে নিশ্চিত করেন।
এদিকে অভিযোগ তদন্তকারী কর্তকর্তা কানাইঘাট থানার এসআই পান্না জানান, আমি সরজমিনে গিয়ে বিষয়টি তদন্তকালে স্থানীয় আওয়ামী লীগের কয়েকজন নেতা ঘটনার বিবরণ দেন। এই বিষয়ে ব্যানার ছিড়ে ফেলার কোন ছবি বা ফুটেজ আছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন না। এ ধরনের কোন প্রমান আমি এখনো পাইনি।