নয়াপল্টনে বিএনপির কর্মসূচি থেকে আটক ৬০ – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

নয়াপল্টনে বিএনপির কর্মসূচি থেকে আটক ৬০

প্রকাশিত: ৩:৩৪ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০১৮

নয়াপল্টনে বিএনপির কর্মসূচি থেকে আটক ৬০

পূর্বনির্ধারিত কালো পতাকা প্রদর্শন কর্মসূচি থেকে বিএনপির ৬০ নেতাকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। শনিবার নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে তাদের আটক করা হয়। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে কালো পতাকা প্রদর্শন কর্মসূচি পালন করছিলেন নেতাকর্মীরা। সকালে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নেতৃত্বে নেতাকর্মীরা কালো পতাকা হাতে নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নেন।

এ সময় বিপুল সংখ্যক পুলিশ কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নেয়। এক পর্যায়ে জলকামান ব্যবহার করে নেতাকর্মীদের সরিয়ে দেয়।

এ সময় বিএনপির ঢাকা বিভাগীয় সহ-জলবায়ু বিষয়ক সম্পাদক মুস্তাফিজুর রহমানসহ অন্তত ৬০ জনকে পুলিশ আটক করে।

এছাড়া পুলিশের লাঠিচার্জ ও জলকামানে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আতাউর রহমান ঢালী, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, নির্বাহী কমিটির সদস্য নিপুন রায় চৌধুরী, কদমতলী থানা মহিলা দলের সনিয়া আহমেদসহ বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন।

তাদের কয়েকজনকে পার্শ্ববর্তী ইসলামী ব্যাংক সেন্ট্রাল হাসপাতালে নেয়া হয়েছে।

মির্জা ফখরুল, স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদসহ কেন্দ্রীয় নেতারা কার্যালয়ে ভেতের অবস্থান করছেন। কার্যালয়ের মূল ফটকের তালা দেয়া হয়েছে।

নয়াপল্টন এলাকায় কাউকে দাঁড়াতেই দিচ্ছে না পুলিশ। প্রিজন ভ্যান, রায়ট কার, জলকামানসহ সাজোয়া যান নিয়ে অবস্থান করছে পুলিশ।

বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সালাম আজাদ বলেন, ‘আমাদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে পুলিশ ন্যাক্কারজনকভাবে হামলা চালিয়েছে। তারা নেতাকর্মীদের ওপর জলকামান দিয়ে গরম পানি ছুঁড়েছে। লাঠিচার্জ এমনকি লাথি, কিল ঘুষি মেরে মাটিতে ফেলে দিয়েছে।’

মতিঝিল জোনের এসি শিবলি নোমান বলেন, ‘বিএনপি কালো পতাকা প্রদর্শন কর্মসূচি পালনে অনুমতি নেয়নি। গুরুত্বপূর্ণ এই সড়কে সকাল থেকে অবস্থান নিয়ে তারা জনসাধারণের স্বাভাবিক কার্যক্রম বিঘ্নিত করছিল। এজন্য জলকামান ব্যবহার করে তাদের সরিয়ে দেয়া হয়েছে।’

পল্টন থানার ডিউটি অফিসার রেজভী আকতার বলেন, বিএনপির নয়াপল্টনস্থ দলীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে প্রায় ৬০ জনকে আটক করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে পূর্বের কোনো মামলা আছে কিনা তা যাচাই করা হচ্ছে। যাচাই-বাছাই শেষে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।