পুরোনো রূপে মেয়র আরিফ – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

পুরোনো রূপে মেয়র আরিফ

প্রকাশিত: ১১:২১ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৩১, ২০১৯

পুরোনো রূপে মেয়র আরিফ

———-লতিফ নুতন———-

দৈনিক সিলেটের দিনকালের নির্বাহী সম্পাদক নাজমুল কবীর পাভেলের উপর পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে আক্রমন কিসের আলামত? সিসিক মেয়র, বিএনপি নেতা আরিফুল হক চৌধুরী কি চাচ্ছেন? নিজ দলের কর্মীর লাশের উপর দিয়ে মেয়র হয়েছেন। তাতে তিনি কোনোভাবে বিচলিত নন। ৯১ থেকে ৯৬ আর ২০০১ থেকে ২০০৬ পর্যন্ত তিনি ছিলেন বরপুত্র। তৎকালীন অর্থমন্ত্রী মরহুম সাইফুর রহমানের নিকটজন। এখন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের গুটিকয়েক নেতার সেল্টারে আবার বরপুত্র মেয়র আরিফ। তাতে নগরবাসী হতবাক। মেয়র আরিফের আশ্রয়দাতা আওয়ামী লীগ নেতাদের একবার মনে পড়ে নাÑমেয়র আরিফুল হকের অতীতের ইতিহাস। সাবেক সফল অর্থমন্ত্রী বৃহত্তর সিলেটের কৃতি সন্তান শাহ এ এম এস কিবরিয়া হত্যা মামলার অন্যতম আসামি আরিফের খুঁটির জোর কোথায়?
সাবেক স্পিকার মরহুম হুমায়ুন রশীদের সিলেট নগরীকে তিলত্তমা নগরী করবেন। আজ তার স্বপ্ন বাস্তবায়ন হচ্ছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিলেটের নগর উন্নয়নে কোটি কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন। কিন্তু নগর উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ না থাকায় উন্নয়নের হিসাব নগরবাসী জানেন না। আওয়ামী লীগ নেতারা নীরব ভূমিকা পালন করছেন। বর্তমান সরকারের ব্যাপক উন্নয়ন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কথা কেউ বলছেন না। বর্তমান নগর উন্নয়নের সুফল চলে যাচ্ছে বিএনপি’র ঘরে।
আজ নগর ভবন বিএনপি-জামাত ও শিবিরের চারণ ভূমি। শিবির ক্যাডার, ডে-লেবার হিসেব মেয়র আরিফুল হকের হাতের ডান হচ্ছে শাহাব উদ্দিন শিহাব। এই শিহাব কে? তাকে কেন গোয়েন্দা নজরদারিতে নেওয়া হচ্ছে না। মেয়র আরিফুল হকের ব্যাক্তিগত নিরাপত্তাকর্মীদের জীবন বৃত্তান্ত কি? একজন সাংবাদিককে পেশাগত দায়িত্ব পালনে কেন বাধা দেওয়া হলÑতা জানতে চায় সিলেটবাসী। সাবেক মেয়র বদরউদ্দিন আহমদ কামরানের আমলে পরিচ্ছন্ন ছিল সিসিক। তাকে আন্ধকারে রেখে একজন হত্যা মামলার আসামি মেয়র নির্বাচিত হলেন। তা এখনো তৃর্ণমূল আওয়ামী লীগ কর্মীদের বুকে দাউ দাউ করে জ্বলছে।
নগর উন্নয়নে বর্তমান সরকারের কোটি কোটি টাকার উন্নয়ন কোথায় যাচ্ছে? ফুটপাত উচ্ছেদের নামে কি চলছে? ফুটপাত উচ্ছেদ নগরবাসীর দাবী। কিন্তু নগর শ্রমিক দলের নগর কমিটি’র নুরুল ইসলামের দখলে ফুটপাত। প্রতিদিন চাঁদাবাজী করছে শ্রমিকদল নেতা নুরুল ইসলাম। তার ভাগ পাচ্ছেন কারা? কীনব্রিজ বন্ধ নিয়ে নাটক হল। বার বার মেয়র আরিফের নাটক কবে বন্ধ হবে?
প্রশ্ন হল কোনো সাংবাদিক কখনো কারো প্রতিপক্ষ নন। কোনো সংবাদপত্র কারো প্রতিপক্ষ নন। তবে কেন সাংবাদিক নাজমুল কবীর পাভেলের উপর আক্রমন? কী অপরাধ নাজমুল কবীর পাভেলের? কী অপরাধ দৈনিক সিলেটের দিনকালের? কেন নিরাপত্তাহীনতায় থাকবে সিলেটের দিনকাল পরিবার? কেন সংবাদকর্মীরা পেশাগত দায়িত্ব পালনে বাঁধাগ্রস্ত হবে?
আজ সিসিকের মেয়র আরিফুল হক তাঁর মেয়েকে চাকুরী দিয়েছেন। চাকুরী দিয়েছেন তার ভায়রা ভাইকে। চাকুরী দিয়েছেন ছাত্রদল ও শিবির ক্যাডারকে। তিনি আজও তার পুরানো অভ্যাস ছাড়তে পারেননি। আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীরা ফুঁসে উঠতে পারে যে কোনো মুহূর্তে। নগরবাসী ফুঁসে উঠলে সামাল দিবে কে? আবার আপনাকে যেতে হবে শ্রীঘরে।