পৌর পরিষদের বিশেষ সভা : ছাতকের মেয়র কালাম চৌধুরীর বিরুদ্ধে কুর্ৎসারটনাকারী বিএনপি জামাতের দালাল গোষ্ঠী ও ওই নারী কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে নিন্দা প্রস্তাব গৃহীত – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

পৌর পরিষদের বিশেষ সভা : ছাতকের মেয়র কালাম চৌধুরীর বিরুদ্ধে কুর্ৎসারটনাকারী বিএনপি জামাতের দালাল গোষ্ঠী ও ওই নারী কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে নিন্দা প্রস্তাব গৃহীত

প্রকাশিত: ৯:২৬ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২, ২০২১

পৌর পরিষদের বিশেষ সভা : ছাতকের মেয়র কালাম চৌধুরীর বিরুদ্ধে কুর্ৎসারটনাকারী বিএনপি জামাতের দালাল গোষ্ঠী ও ওই নারী কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে নিন্দা প্রস্তাব গৃহীত

ছাতক প্রতিনিধি

বার বার নির্বাচিত ছাতক পৌরসভার জননন্দিত মেয়র জনাব আবুল কালাম চৌধুরীর বিরুদ্ধে কুর্ৎসারটনাকারী বিএনপি জামাতের দালাল গোষ্ঠী বোমা মানিকের চামচাদের জ্ঞাতার্থে –
ছাতক পৌরসভার ৪, ৫ ও ৬ নম্বর ওয়ার্ড এলাকায় ব্যাটারিচালিত ইজিবাইক থেকে স্থানীয় নারী কাউন্সিলর তাসলিমা জান্নাত কাকলী ও তার স্বামী চাঁদা আদায় করছেন মর্মে গত ১৮ আগস্ট মেয়রের নিকট একটি লিখিত অভিযোগ করেন ইজিবাইক চালক আতিকুল মিয়া, নূরুল হোসেন ও বিরাজ আলী।অভিযোগের ব্যাপারে পৌর পরিষদের সভায় নিন্দা প্রস্তাব উত্থাপন হয়। পরে তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে সুপারিশ পাঠানোর সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।২২ আগস্ট অনুষ্ঠিত পৌর পরিষদের বিশেষ সভায় বিষয়টি উত্থাপন করে উপস্থিত ১১ সদস্যের মধ্যে ১০ জনের সম্মতিতে ওই নারী কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে নিন্দা প্রস্তাব গৃহীত হয়।
কিন্তু চাঁদাবাজি বন্ধ না হওয়ায় ২৬ আগস্ট অনুষ্ঠিত পরিষদের অপর এক সভায় তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে সুপারিশ পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয় পৌর পরিষদ। সেইসাথে তিনিসহ সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে ছাতক থানায় পরিষদের পক্ষ থেকে মামলা দায়ের সিদ্ধান্তও গৃহীত হয় সভায়। ২৬ আগস্ট নারী ওই কাউন্সিলর, তার স্বামীসহ চার জনকে আসামী করে ছাতক থানায় মামলা দায়ের করে পৌরপরিষদ।মামলা নং ২৮, তারিখ ২৭-০৮-২০২১। অভিযুক্ত নারী কাউন্সিলের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ ও মামলা দায়ের সিদ্ধান্তও গৃহীত হওয়ার পর সভা শেষে পৌরসভা অফিসে ওই নারী কাউন্সিলর এবং তার স্বজনরা সহ বিএনপি জামাতের চ্যালাচামুণ্ডাদের নিয়ে পৌর ভবনে ভাংচুর চালায়,ভবনের গ্লাস ভাংচুর এবং পৌর মেয়রসহ কাউন্সিলরদের অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে এবং সংশ্লিষ্টদের দেখে নেওয়ার হুমকি দেন তিনি, এরই প্রেক্ষিতে উর্ধতন কর্মকর্তাদের পরামর্শে মেয়র মহোদয় ওই কাউন্সিলর এর বিরোদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেন, যার প্রেক্ষিতে ওই নারী কাউন্সিলর মিথ্যা মামলার আশ্রয় নিয়েছে। এই মহিলা কাউন্সিলর ও তার ভাইদের বিরোদ্ধেও অতীতে আকিজ ফ্যাক্টরিতে প্রভাব বিস্তার ও চাঁদাবাজি অভিযোগে আকিজ ফ্যাক্টরী কর্তৃপক্ষ ছাতক থানা মামলা দায়ের করে।এছাড়াও এই নারী কাউন্সিলর ও তার ভাইদের বিরোদ্ধে ছাতক থানায় হত্যা,পুলিশ এসল্ট, ডাকাতি, চাঁদাবাজি সহ অসংখ্য মামলা রয়েছে।
একটি কুচক্রী মহলের ইন্ধনে একজন জননন্দিত ও জনপ্রিয় মেয়রকে হেয় প্রতিপন্ন করার যে অপচেষ্টা করা হচ্ছে তা ছাতক পৌরবাসী কোন ভাবেই মেনে নেবে না।এই ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।্বিগত পৌর নির্বাচনে এমপি মানিক প্রকাশ্যে আবুল কালাম চৌধুরীর নৌকার বিরোদ্ধে অবস্থান নেয়।কিন্ত আবুল কালাম চৌধুরীর জনপ্রিয়তার কাছে ওরা বারবার পরাজিত হয়ে এই ষড়যন্ত্রকারীরা ষড়যন্ত্র করে জননন্দিত মেয়রকে হেয় করার উদ্যেশ্য মিথ্যা মামলার আশ্রয় নিয়েছে। এরা বিগত দিনেও সফল হয়নি।এখনো ইনশাল্লাহ সফল হবেনা।ছাতক শহরের চাদাবাজী, জামাত, বিএনপি, হেফাজত রক্ষা সহ সকল কুকর্মের মূল হোতা এমপি বোমা মানিক ও তার ভাতিজা বিচি। সম্প্রতি জামাত, বিএনপি, হেফাজত ও চাদাবাজদের পক্ষে ফেইসবুকে তাদের কর্মীদের স্ট্যাটাস ই তা প্রমাণ করে।
সবশেষে বলব আগুন নিয়ে খেলবেন না, পরিনাম ভাল হবে না, ছাতকবাসীকে সাথে নিয়ে প্রয়োজনে দাঁতভাঙা জবাব দেওয়া হবে।তাই সাধু সাবধান ।