প্রতিটি দিন হোক ভালবাসা দিবস – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

প্রতিটি দিন হোক ভালবাসা দিবস

প্রকাশিত: ৯:১৬ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১১, ২০২০

প্রতিটি দিন হোক ভালবাসা দিবস

পারভীন বেগম:
ভালবাসা সবার মধ্যে আছে। ভালবাসাহীন কোন মানুষ সমাজে নেই। কারো মাঝে বেশি আবার কারো মাঝে কম। এই হচ্ছে তফাত। ভালবাসা মানুষের জীবনকে সুন্দর করে তুলে, আবার কখনো বিষাক্ত করে তুলে। ভালবাসা, নরম তুলোর মত আবেগে মোড়ানো, ভাষায় প্রকাশ না করতে পারা স্পর্শকাতর এক তীব্র অনুভূতির নাম। রঙ, রূপ, গন্ধবিহীন এই তীব্র অনুভূতির এক অদ্ভুত ক্ষমতা আছে, আর সেটি অপরের প্রতি তীব্র আকর্ষণ। এই আকর্ষণের শক্তি এতটাই প্রবল যার টানে অপরকে পাশে পেতে মানুষ ছুটে যায় বিশ্বের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে, জয় করে সকল প্রতিকূলতাকে, পরিশ্রান্ত ক্লান্ত মানুষ ব্যস্ততা, ক্লান্তি ভুলে প্রিয়জনকে বলি ভালবাসা ও ভাল লাগার কথা। ভালবাসা দিবসকে আলাদা করে দেখার কিছু নেই। যাকে ভালবাসা যায় তাকে কেবল কোনো নির্দিষ্ট দিনের জন্য ভালবাসা নয়।

ভালবাসা হবে সারা জীবনের জন্য। ভালবাসা মানে শুধু প্রেমিক-প্রেমিকার ভালবাসা বুঝায় না। ভালবাসা হতে পারে মা-বাবার প্রতি সন্তানের ভালবাসা, ভাইয়ের প্রতি বোনের ভালবাসা, স্বামীর প্রতি স্ত্রীর ভালবাসা, বন্ধুর প্রতি বন্ধুর ভালবাসা। নেতার প্রতি কর্মীদের ভালবাসা। ভালবাসার মত সুপ্ত প্রতিভা সবার মধ্যেই থাকে। কারো মধ্যে যে এই সুপ্ত প্রতিভা নেই এমন কোন মানুষ নেই। ভালবাসা শব্দটি কয়েকটি শব্দের মধ্যে আটকে ফেললেই যে সীমাবদ্ধতায়ই রূপ নিবে তা কিন্তু না। ভালবাসাকে কখনো আবদ্ধ করা যায় না। কারন ভালবাসা সীমাহীন। ভালবাসার মধ্যে থাকতে হবে সম্মান শ্রদ্ধাবোধ। ভালবাসার মানুষটির ওপর নির্ভর করা যাবে তাকে বিশ্বাস করা যাবে শতভাগ। যাকে ভালবাসা যায় তাকে ছেড়ে থাকা কখনোই সম্ভব নয়। এর মাঝেই ভালবাসার রঙিন সুন্দর স্বপ্নগুলো হাতছানি দেয়।ভালোবাসতে আলাদা করে ভালোবাসার দিন লাগে, নাকি সব দিনই ভরে উঠবে ভালবাসায়।

আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ভালবাসা দিবস পালন করবেন বিশ্ববাসি। এ দিনটিকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চলছে তুমুল আলোচনা। কেউ বলছেন, এভাবে দিবস পালনে করপোরেট ছোঁয়া থাকে, প্রাণ থাকে না। কেউ বলছেন, এভাবে ভালোবাসাকে বেঁধে ফেলার কিছু নেই। আবার কেউ বলছেন, ভালোবাসা তো আছেই, কিন্তু একটা নির্দিষ্ট দিনে সেটি কাছের মানুষের সঙ্গে মিলেমিশে একাকারের জন্য বরাদ্দ থাকলে সমস্যার কিছু নেই।

এক যুবক তার ফেসবুক পেজে লিখেছেন, ভালবাসার জন্য আলাদা দিন লাগে নাকি? তার ফেসবুক স্ট্যাটাসের নিচে মতামতের জায়গায় তার বন্ধু লিখেছেন, এই দিনটা আসলে তাদের জন্য হওয়া উচিত ছিল যারা ভালবাসা পায় না সারা বছর। আরেকজন তার ব্যবহারিত ফেইসবুকে লিখেছেন, প্রতিটি দিন হোক ভালোবাসা দিবস। প্রত্যেক দিন থেকে থেকে ভালবাসা দিবসের দিনটি আলাদা করে স্মরণে সমস্যা দেখেন না অনেকেই। আরেক যুবক তার ফেইসবুকে লিখেছেন, ভালবাসা যেন শুধু মুখে আর ফেসবুকের পাতায় নয়, ভালবাসা হয়ে উঠুক চিন্তা-চেতনায়, মননে, বন্ধুত্ব, মিত্রতা, সখ্য, আনুকূল্য, ভক্তি, নিষ্ঠা, অনুরক্তি, স্নেহ, মমতায়! ভালবাসা চিরন্তণ এবং সব মানুষের মধ্যেই এটি সবসময় বিরাজ করে।

অতীতে ভালোবাসা ছিলো নিতান্তই আত্মিক, তাই প্রকাশ ছিলো শুধু ভালোবাসার মানুষগুলোর মধ্যে, লোক দেখানো ব্যাপারটি অনেকে চিন্তাও করতো না। ভালবাসা দিবস যেন একটি দিনের মধ্যে আমরা সীমাবদ্ধ না রাখি। প্রতিদিন হউক আমাদের জন্য ভালবাসা দিবস। আর এই ভালবাসা শুধু প্রেমিক-প্রেমিকার জন্য না হয়। মা-বাবা, ভাই-বোন, স্বামী-স্ত্রী, ছেলে-মেয়ে, বন্ধু-বান্ধব ও পরিবারে প্রতি বিরাজ থাকে করবে সারা বছর। জীবনের গতি নির্ধারণ করে ভালোবাসা। মানুষ বেঁচে থাকে ভালোবাসায়। ভালবাসাকে শুধু মাত্র একটা দিন দিয়ে নির্ধারণ করা যাবে না। ভালবাসা দিবসের কি প্রয়োজন? প্রতিটি দিন হোক ভালবাসা দিবস।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •