প্রতিভার সাক্ষর রাখতে চান এডভোকেট আব্দুস সাত্তার – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

প্রতিভার সাক্ষর রাখতে চান এডভোকেট আব্দুস সাত্তার

প্রকাশিত: ৫:২৩ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৩০, ২০১৯

প্রতিভার সাক্ষর রাখতে চান এডভোকেট আব্দুস সাত্তার

শৈশবে পাকিস্তানী শাসক গোষ্ঠীর অত্যাচার, নির্যাতন দেখে এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রেমে পড়ে যান আব্দুস সাত্তার, তিনি দশম শ্রেণীতে লেখা-পড়া অবস্থায় অনুপ্রেরণায় ছাত্রলীগের রাজনীতির প্রতি ধাবিত হন আব্দুস সাত্তার। প্রখর মেধা শক্তি ও প্রতিবাদী বক্তব্যের দক্ষতায় এগিয়ে যেতে থাকেন তিনি। কলেজ জীবনে পদার্পণ করেই বিয়ানীবাজার ও মদন মোহন কলেজে ছাত্রলীগের সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করেন।

জেল-জুলুম, মামলা-হামলার ভয় উপেক্ষা করে ছাত্রলীগের বিজয় নিশান উড্ডীন করতে তার আগ্রহ সে সময় ছাত্রলীগের মিছিলের শ্লোগান মাস্টার আর অসাধারণ বক্তৃতায় তিনি সে সময়ে ছাত্র আন্দোলন বেগবান করতে রাখেন ভূমিকা। স্বৈরশাসক এরশাদ বিরোধী আন্দোলনে তৎকালীন ছাত্রলীগ নেতাদের সাথে আব্দুস সাত্তার রাখেন সাহসী ভূমিকা। পরবর্তীতে ছাত্র-রাজনীতির পাঠ চুকিয়ে নিজ যোগ্যতায় জায়গা করে নেন যুবলীগের সদস্য হিসেবে। পাশা-পাশী মেধাবী আব্দুস সাত্তার আইন পেশায় উচ্চতর ডিগ্রী নিয়ে সিলেট জেলা বারের তরুণ আইনজীবী হিসেবে যোগ দেন।সেখান যোগদানের পর বঙ্গবন্ধু পেশাজীবী আইনজীবী পরিষদের সদস্য ছিলেন তিনি। সেখানে গিয়েও বাজিমাত করেন।

২০১৭ সালে নির্বাচিত হন জেলা বারের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক।পরবর্তীতে আওয়ামী লীগ সমর্থিত আইনজীবী হিসেবে জেলা ছিনিয়ে আনেন বঙ্গবন্ধু অনুসারীদের হারানো গৌরব। আর পিছনে তাকাতে হয় নি তাকে। বঙ্গবন্ধু অনুসারীদের ঐক্যের প্রতীক হয়ে পরবর্তীতে নির্বাচিত হন কানাইঘাট উপজেলা আওয়ামীলীগের প্রস্তাবিত কমিটির সদস্য।এর পর প্রস্তাবিত কমিটি থেকে হয়ে যান কানাইঘাট উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম আহবায়ক। ছাত্রলীগ, যুবলীগ, আওয়ামী লীগের নির্যাতিত, মামলা-ক্রান্ত নেতাকর্মীদের ভরসার শেষ আশ্রয়স্থল হয়ে উঠেন এডভোকেট আব্দুস সাত্তার।

শুধু কি তাই? বিনে পয়সায় আইন সেবার পাশা-পাশি দলীয় নেতা কর্মীদের দু:সময়ে পাশে দাঁড়ানোর কারণে তাকে বলা হয় ছাত্রলীগের বিনে পয়সার উকিল। ১/১১ এর কঠিন সময় শুধু সাহসী পদক্ষেপই নেননি, বিশেষ গোয়েন্দা সংস্থা ও প্রশাসনের ধমক, হুমকি উপেক্ষা করে জনেনত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে জনমত গঠনে রাখেন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। শুধু জেলা আইনজীবী সমিতির যুগ্ম সম্পাদক নির্বাচিত হননি, আইনজীবীদের অধিকার আর দাবিদাওয়া নিয়ে সর্বোচ্চ ফোরামে তুলে ধরেছেন বক্তব্য।আইন পেশায় দীর্ঘ ১৫ বছরের বর্ণাঢ্য জীবনের অধিকারী আব্দুস সাত্তার এবার চমক দেখাতে চান কানাইঘাট উপজেলা আওয়ামীলীগে।

একজন বঙ্গবন্ধু অনুসারী হিসেবে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের পদে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে রয়েছেন তিনিও। তার যোগ্যতা, সাংগঠনিক দক্ষতা আর নেতৃত্বগুণ আওয়ামী লীগ পরিবারে প্রশংসনীয়। কানাইঘাট উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রার্থী হচ্ছেন কি না জানত চাইলে তিনি বলেন, আমার স্বপ্ন ছিল শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই যেন বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার হয়। আমার সৌভাগ্য তা দেখে যেতে পেরেছি। আর আমার স্বপ্ন হলো জননেত্রী, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে ভূমিকা রাখা। আর ভূমিকা রাখতে হলে ক্ষেত্র প্রয়োজন। তাই সুযোগ পেলে জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা বাস্তবায়নে নিজের সর্বোচ্চ দিতে প্রস্তুত আছি।

জয়নাল আযাদ