বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ পুত্র শেখ কামালের জন্মদিন! এস এম জাকির হোসেনের পোষ্ট – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ পুত্র শেখ কামালের জন্মদিন! এস এম জাকির হোসেনের পোষ্ট

প্রকাশিত: ১০:০৬ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ৫, ২০১৬

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ পুত্র শেখ কামালের জন্মদিন! এস এম জাকির হোসেনের পোষ্ট

0-54জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ পুত্র শেখ কামালের ৬৭ তম জন্মদিন আজ। ১৯৪৯ সালের এই দিনে শেখ কামাল তদানীন্তন গোপালগঞ্জ মহকুমার টুঙ্গীপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের কালোরাতে মাত্র ২৬ বছর বয়সে শাহাদাত বরণ করেন। দিনটি পালন উপলক্ষে আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন ক্রীড়া ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।

আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী সংগঠন সকাল ৮টায় ধানমন্ডি আবাহনী ক্লাব প্রাঙ্গণে শহীদ শেখ কামালের প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ ও সকাল ৯ টায় বনানী কবরস্থানে তার সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন, কোরানখানি, মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করেছে।

আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ সকাল ১১ টায় এ উপলক্ষে ধানমন্ডি বঙ্গবন্ধু ভবন প্রাঙ্গণে আলোচনা সভা, দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করেছে। এদিকে শেখ কামালের জন্মদিন উপলক্ষে আওয়ামী যুবলীগ সকাল ১০ টায় শিল্পকলা একাডেমিতে আলোচনা সভা ও আলোকচিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করেছে। অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ এমপি প্রধান অতিথি থাকবেন।

আবাহনী সমর্থক গোষ্ঠী বৃহষ্পতিবার মধ্যরাত ১২টা ১ মিনিটে ক্লাব চত্বরে আবাহনীর প্রতিষ্ঠাতা শেখ কামালের প্রতিকৃতিতে পুস্পমাল্য অর্পণ করে তার স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানাবে।

এছাড়ও আজ বিকাল ৪টায় আবাহনী ক্লাব প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হবে স্মৃতিচারণ সভা। এতে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির নেতৃবৃন্দ ও ক্লাবের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত থাকবেন।

বহুমাত্রিক অনন্য সৃষ্টিশীল প্রতিভার অধিকারী, তারুণ্যের দীপ্ত প্রতীক শহীদ শেখ কামাল শাহীন স্কুল থেকে মাধ্যমিক ও ঢাকা কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগ থেকে বি.এ. অনার্স পাস করেন। বাংলাদেশের শিল্প, সাহিত্য, সংস্কৃতি অঙ্গনের শিক্ষার অন্যতম উৎসমুখ ‘ছায়ানট’-এর সেতার বাদন বিভাগের ছাত্র ছিলেন তিনি।

তিনি ছিলেন ঢাকা থিয়েটারের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা। অভিনেতা হিসেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যাঙ্গনে প্রতিষ্ঠিত ছিলেন। শৈশব থেকে ফুটবল, ক্রিকেট, হকি, বাস্কেটবলসহ বিভিন্ন খেলাধূলায় প্রচন্ড উৎসাহ ছিল তাঁর। তিনি উপমহাদেশের অন্যতম সেরা ক্রীড়া সংগঠন, বাংলাদেশে আধুনিক ফুটবলের প্রবর্তক আবাহনী ক্রীড়াচক্রের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন। সেই সময়ের জনপ্রিয় সাংস্কৃতিক সংগঠন স্পন্দন শিল্পীগোষ্ঠীরও প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন তিনি।

শেখ কামাল স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম ওয়্যারকোর্সে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত হয়ে মুক্তিবাহিনীতে কমিশন লাভ ও মুক্তিযুদ্ধের প্রধান সেনাপতি জেনারেল ওসমানির এডিসি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। স্বাধীনতার পর শেখ কামাল সেনাবাহিনী থেকে অব্যাহতি নিয়ে লেখাপড়ায় মনোনিবেশ করেন।

তিনি বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য ছিলেন এবং শাহাদাত বরণের সময় বাংলাদেশ কৃষক শ্রমিক আওয়ামী লীগের অঙ্গ-সংগঠন জাতীয় ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ছিলেন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট শাহাদাত বরণের সময় তিনি সমাজবিজ্ঞান বিভাগের এমএ শেষ পর্বের পরীক্ষা দিয়েছিলেন।

দলের সাধারণ সম্পাদক ও জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম শহীদ শেখ কামালের ৬৭তম জন্মদিন দেশবাসীকে সাথে নিয়ে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করার জন্য আওয়ামী লীগ ও তার সহযোগী, ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলোর সকল স্তরের নেতা-কর্মী, সমর্থক, শুভানুধ্যায়ীদের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন।

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসেনের ফেইসবুক পোষ্ট-

13876340_1133615956702609_2526124290740817647_nমাত্র ২৬ বছরের জীবনে একজন মানুষ নিজেকে কতটুকু মেলে ধরতে পারেন তার উৎকৃষ্ট প্রমাণ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ পুত্র বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ শেখ কামাল।

অল্প সময়েই নিজের মেধা, যোগ্যতা ও সৃষ্টিশীলতা দিয়ে নিজেকে এমনভাবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন, তাঁর সমকক্ষ তো দূরের কথা তাঁর কাছাকাছি কাউকে খুঁজে পাওয়াও কঠিন।

তিনি সঙ্গীত সংগঠক হিসেবে যেমন সফলতা অর্জন করেছেন তেমনি ক্রীড়া সংগঠক হিসেবে নিজের স্বাতন্ত্র্যবোধের পরিচয় দিয়েছেন। ছিলেন সফল ছাত্ররাজনীতিক ও মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক। সমাজের নানা বিষয় নিয়েই তিনি মৌলিক চিন্তা করতেন।

বাঙালিকে সৃজনশীলতা ও মননশীলতায় উন্নতর জাতি হিসেবে প্রতিষ্ঠায় নিজেকে উৎসর্গ করেছিলেন বঙ্গবন্ধুর এই সুযোগ্য পুত্র, আর সেটাই কাল হয়ে দাঁড়িয়েছিলো তাঁর জন্য।

আজ বেঁচে থাকলে তাঁর বয়স হতো ৬৭ বছর। অসম্ভব প্রতিভার অধিকারি যুবকটিকে ১৫ আগস্ট বিয়ের মাত্র এক মাসের মাথায় সস্ত্রীক হত্যা করে একদল নরঘাতক। তিনি বেঁচে থাকলে এ-দেশ, এ-জাতি আরও অনেক কিছুই পেতো। কিন্তু হন্তারকের নিমর্ম বুলেট আমাদের কাছ থেকে কেড়ে নিয়েছে তাঁকে। আমরা এই সৃষ্টিশীল আধুনিক মানুষটিকে ধরে রাখতে পারি নি। এ আমাদেরই ব্যর্থতা।

তবে কথা দিচ্ছি তাঁর দেখানো পথ ধরে আমরা এগিয়ে যাবো দূর-বহুদূর।

শুভ জন্মদিন তারুণ্যের প্রতীক বঙ্গবন্ধু পুত্র শেখ কামাল।