বদরুলকে নিয়ে শাবিপ্রবি ছাত্রদলের সিনিয়র যুগ্ম আহবায়কের বক্তব্য (পত্রিকা কাটিং) – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

বদরুলকে নিয়ে শাবিপ্রবি ছাত্রদলের সিনিয়র যুগ্ম আহবায়কের বক্তব্য (পত্রিকা কাটিং)

প্রকাশিত: ৮:৫৫ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ৬, ২০১৬

বদরুলকে নিয়ে শাবিপ্রবি ছাত্রদলের সিনিয়র যুগ্ম আহবায়কের বক্তব্য (পত্রিকা কাটিং)

sudip-dada৬ অক্টোবর ২০১৬, বৃহস্পতিবার: একজন মন্ত্রী বলেছেন বদরুল শিবির হতে পারে এই নিয়ে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (শাবিপ্রবি) ছাত্রদলের সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক ও ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের সদস্য সুদীপ জ্যোতি এষ তার ফেইসবুক পোষ্টে ব্যাখ্যা দিয়েছেন।

যা নিম্নে তুলে ধরা হলো:

চরম ক্ষমতা মানুষকে উম্মত্ত করে; পাশবিক বানায় কিন্তু চরম নির্লজ্জ এবং বেহায়াও যে বানিয়ে ফেলে এইটা বর্তমানের আওয়ামীলীগার এবং তাদের অন্ধ সমর্থকদের না দেখলে জানা হতনা।
এখন উনাদের মুখে শুনছি এম সি কলেজে বোন খাদিজাকে চাপাতি দিয়ে কুপানো ছাত্রলীগ নেতা বদরুলো নাকি সাবেক শিবির কর্মী! তা ধরে নিলাম সে সাবেক শিবির কর্মী। সেই ছেলে যখন পূর্বে ছাত্রলীগের সক্রিয় কর্মী থাকা অবস্থায় ইভ টিজিং এর কারনে গণধোলাই খায় তখন আপনারা বলেন শিবির মেরেছে ছাত্রলীগ করার কারনে।এখন সে যখন আবার চাপাতি দিয়ে মেয়ে কুপায় সে আবার শিবির হয়ে যায়! যদিও সে বিশ্ববিদ্যালয়ের মত গুরুত্বপূর্ণ ইউনিটে ছাত্রলীগের সহ সম্পাদক। নিজেদের এই ধূর্ততা ধরতে পারেন আপনারা?

মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়া খাদিজার সামনে দাঁড়িয়ে সেল্ফি তুলেন এদের মহিলা নেত্রীরা আবার এইটারে জাস্টিফাইয়ো করতে চায় এদের চেলা চামুন্ডারা। আই সি ইউতে মৃত্যু পদযাত্রী একটা মানুষ যার বেঁচে থাকার সম্ভাবনা প্রায় নেই তার সামনে দাঁড়িয়ে সেল্ফি তুলে নিজেদের জাহির করার মাঝেও যারা অসুস্থতা দেখেনা তারা নিজেরাই মানসিক অসুস্থ।সব ধরনের অসুস্থ মানুষের জন্যই আমি একধরনের মমতা অনুভব করি নিজের মধ্যে কিন্তু কেন জানি এদের জন্য কোন ধরনের মমতা অনুভব করছিনা।শুধুই ঘৃণা। ছিঁ!

14563439_10210390312025240_8939067286992337095_nপত্রিকা কাটিং

২০১২ সালে ১৫ অথবা ১৬ জানুয়ারী এই খাদিজা আক্তার নার্গিসকে উক্তত্য করতে গিয়ে সিলেটের শহরতলীর জাঙ্গাইল এলাকায় শফির উদ্দিন হাই-স্কুলের সামনে স্থানীয়রা থাকে গণধোলাই দেয়। তখনো তার পরিচয় ছাত্রলীগ তাই ঘটনার সাথে সাথে স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতারা রাস্তা অবরোধ করে বিচার চান, দোষ চাপান ছাত্র শিবিরের উপড়। ঐদিন রাতেই ১২ জন জামায়াত ও শিবিরের নেতা গ্রেফতার করা হয়, রিমান্ডে নেয়া হয়। বদরুলকে শিবির মারেনি সে মার খেয়েছে ইভটিজিংয়ের জন্য তখনো কেউ বিশ্বাস করেনি।

এক করুন মিউজকের সূরে বদরুলের রিপোর্ট হয়েছিল “বদরুল আর হাটতে পারবেনা, শিবির কেড়ে নিল তার স্বপ্ন”। জাফর ইকবাল কলম ধরেছিলেন “মেধাবী বদরুলের আর হাটা হবে না“। সবাই মিলেই উৎসাহ ও প্রেরণা দিয়েছিলেন আজকের এক পাশবিক বদরুলকে, তা কি অস্বিকার করা সম্ভব?

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল