বানিয়াচংয়ে কঠোর লকডাউনে তৎপর উপজেলা প্রশাসন – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

বানিয়াচংয়ে কঠোর লকডাউনে তৎপর উপজেলা প্রশাসন

প্রকাশিত: ৮:১২ অপরাহ্ণ, জুলাই ৭, ২০২১

বানিয়াচংয়ে কঠোর লকডাউনে তৎপর উপজেলা প্রশাসন

 

 

বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরা প্রতিরোধে সরকারের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে সারা দেশের মতো কঠোর অবস্থান রয়েছে বানিয়াচং উপজেলা প্রশাসন। তাই উপজেলা জুড়ে অনেকটা ফাঁকা অবস্থায় দেখা গেছে। সেই সাথে প্রশাসনের সক্রিয় তৎপরতা লক্ষ্য করা গেছে।
বুধবার (৭ জুলাই) সকাল থেকে বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, বানিয়াচং থানার পুলিশ বিভিন্ন স্থানের মোড়ে মোড়ে চেকপোস্ট বসিয়েছে। রাস্তায় বের হওয়া লোকজন ও যানবাহন আটকে ঘর থেকে বের হওয়ার কারণ জিজ্ঞেস করছে তারা। সদুত্তর না পেলে যাত্রীদের আবার বাসায় ফেরার নির্দেশ দিচ্ছে পুলিশ।

এদিকে, বানিয়াচং উপজেলায় বাস, ইজিবাইক, ভ্যানসহ যানবহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। তবে নিত্য প্রয়োজনীয় এবং মাছসহ কাচা বাজার খোলা থাকবে বিকাল ৪টা পর্যন্ত। উপজেলার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে, পাশাপাশি তল্লাশিও চালানো হচ্ছে। পুলিশ টহলের পাশাপাশি উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় সোনাবাহিনীর টহল রয়েছে। লকডাউনের অন্যান্য দিনের চেয়ে মানুষের পদচারনা কম দেখা গেছে। বিভিন্ন সড়কে পুলিশ, সেনাবাহিনীর টিমকে দায়িত্ব পালন করতে দেখা গেছে। বন্ধ রয়েছে গণপরিবহন।

বানিয়াচং উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাসুদ রানার নেতৃত্বে দিনব্যাপী সেনাবাহিনী, পুলিশ ও আনসারের সহায়তায় অভিযান পরিচালনা করে উপজেলা সদরের গ্যানিংগঞ্জ বাজার, বড় বাজার, আদর্শ বাজার, শরীফ উদ্দিন সড়ক ও ছিলাপাঞ্জা মোড়সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে সরকারি নির্দেশিকা অমান্য করায় ১৮টি মামলায় ৪ হাজার ১ শত টাকা অর্থদন্ড প্রদান করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

বানিয়াচং থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ এমরান হোসেন বলেন, আমরা খুবই তৎপর আছি এবং কঠোরভাবে লকডাউন কে সফল করার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি। আমাদের পক্ষ থেকে টহল এবং মনিটরিং টিম যথাযথভাবে মাঠে কাজ করে যাচ্ছে। লকডাউন বাস্তবায়নে পুলিশ কঠোর ভূমিকায় রয়েছে। আইন অমান্য করলে কাউকেই ছাড় দেওয়া হবে না।

উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাসুদ রানা বলেন, উপজেলায় লকডাউন কার্যকর করতে সেনাবাহিনীসহ অন্যান্য আইন-শৃঙ্খলাবাহিনী মাঠে কাজ করছেন। বিনা কারণে মানুষের চলাচল ও ভিড় এড়ানোর জন্য কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। আমরা উপজেলার বিভিন্ন স্থানে, বাজারে অভিযান পরিচালনা করেছি। বিধিনিষেধ অমান্যকারীদের জরিমানা করা হচ্ছে।

সরকারি আইন অমান্য করে জরুরী প্রয়োজন ছাড়া যারা মাক্স ছাড়া ঘর থেকে রাস্তায় বের হওয়া ব্যাক্তি, গণপরিবহন, পিকআপ ভ্যান, মোটর সাইকেল, সিএনজি, রিক্সা চলা ও দোকানপাট, ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান খোলা রাখছেন তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে।