বালাগঞ্জে ‘আয়না মার্কেট’ অপসারণে সওজের চিঠি – দৈনিক সিলেটের দিনকাল

বালাগঞ্জে ‘আয়না মার্কেট’ অপসারণে সওজের চিঠি

প্রকাশিত: ৪:০৬ অপরাহ্ণ, জুলাই ২৩, ২০২০

বালাগঞ্জে ‘আয়না মার্কেট’ অপসারণে সওজের চিঠি
বালাগঞ্জ প্রতিনিধি
বাংলাদেশ সড়ক ও মহাসড়ক আইন অনুযায়ী কোনো সড়ক বা মহাসড়কের ৩০ ফুটের মধ্যে কোনো স্থাপনা নির্মাণ না করার নির্দেশনা রয়েছে। সেই নির্দেশনাকে অমান্য করে সিলেট-সুলতানপুর-বালাগঞ্জ সড়কের বিভিন্ন স্থানে সড়ক ও জনপথ বিভাগের অধিগ্রহণকৃত সরকারি ভূমির ওপর বহুতল ভবন ও মার্কেট নির্মাণ করা হয়েছে। এই সড়কের বালাগঞ্জ উপজেলা অংশে বালাগঞ্জ ইউনিয়নের গহরমলি এলাকায় সড়কের দু’পাশে বিশাল এলাকাজুড়ে ভূমি দখল করে গড়ে ওঠেছে বাজার। সেই বাজারে পাকা ও টিন সেডের তৈরী প্রায় শতাধিক দোকান-পাট রয়েছে। কথিত ‘আয়না মার্কেট’ নামে ওই বাজারের পরিচিতি রয়েছে। এদিকে ১২জুলাই সওজ বিশ্বনাথ সড়ক উপ-বিভাগ সিলেট এর উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মো. নূরুল মজিদ চৌধুরী স্বাক্ষরিত একটি পত্র আয়না মার্কেটের সকল ব্যবসায়ী ও দোকান মালিকদের নিকট প্রেরণ করা হয়। ওই পত্রে বলা হয়েছে- ‘সিলেট (তেলিখাল)-সুলতানপুর-বালাগঞ্জ (জেড-২০১৩) সড়কের ২২তম কিলোমিটারে আবস্থিত ‘আয়না মার্কেট’ সওজের আওতাধীন ভূমির উপর বেআইনিভাবে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করা হয়েছে। পত্র পাওয়ার ৭ দিনের মধ্যে সড়ক ও জনপথ বিভাগের ভূমিতে নির্মিত অবৈধ স্থাপনা নিজ দায়িত্বে অপসারণ করতে হবে। অন্যতায় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’ কিন্ত সাত দিন অতিবাহিত হওয়ার পরও নিজ দায়িত্বে কাউকে স্থাপনা অপসারণ করতে দেখা যায়নি। এখন সওজ কতৃপক্ষ কার্যকর উদ্যোগ নেবেন নাকি চিঠি দিয়ে-ই তাদের দায়িত্ব শেষ- সেটি এখন দেখার বিষয়। স্থানীয় বাসিন্ধাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, ওই এলাকার আয়না মিয়া নামের ভূমি খেকো এক ব্যক্তি বিগত কয়েক বছর আগে প্রথমে সড়ক ও জনপথ বিভাগের ভূমি দখল করে মার্কেট নির্মাণ করেন। এর পর সেখানে দোকান-পাট বানানোর প্রতিযোগিতা শুরু হয়-যা এখনও অব্যাহত আছে। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বারবার নিষেধ করা স্বত্ত্বেও নিষেধ অমান্য করে রাতের আঁধারে নির্মাণ করা হয় এসব দোকান-পাট। সরকারি ভূমিতে দোকান-পাট নির্মাণ প্রতিযোগিতার পাশাপাশি এই বাজারের নামকরণ নিয়ে চলছে আধিপত্য বিস্তারের লড়াই। আয়না মিয়ার বিরোধীরা ‘সাতগ্রাম পয়েন্ট’ বা ‘মামুন মার্কেট’ নামে এই বাজারের নাম প্রচার করে আসছেন। এছাড়া এই সড়কের বালাগঞ্জ উপজেলা অংশের আরও একাধিক স্থানে সরকারি ভূমি দখল করে দালান, আধা পাকা, দোচালা-চৌচালা টিনের দোকান ও মার্কেট নির্মাণ করাসহ অসংখ্য অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করা রয়েছে। এসব অবৈধ স্থাপনার কারণে সড়ক দিনদিন সংকুচিত হওয়ায় বিগত দিনে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটছে। বর্তমানে এই সড়কে যাত্রীবাহি বাস ও ভারী যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। যেভাবে সড়কের ভূমি দখল করা হচ্ছে তাতে ভাবিষ্যতে যাত্রীবাহি বাস ও ভারী যানবাহন চালু হলে প্রতিদিন দুর্ঘটনা ঘটার আশঙ্কা রয়েছে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

ফেসবুকে সিলেটের দিনকাল